Adhir Ranjan Chowdhury: 'মোগাম্বোকে খুশ করতে আমরা সব কিছু করব’,  ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভারত সফরকে কটাক্ষ অধীর চৌধুরির
অ্যামেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও মোগাম্বো (Photo: Twitter)

নতুন দিল্লি, ২৩ ফেব্রুয়ারি: অ্যামেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে (Donald Trump) স্বাগত জানাতে কোটি কোটি টাকা ব্যয় করা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে কড়া আক্রমণ করলেন কংগ্রেস নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরি (Adhir Ranjan Chowdhury)। ডোনাল্ড ট্রাম্পকে তিনি মোগাম্বো (Mogambo) বলেন। 'মিস্টার ইন্ডিয়া' ছবির খলনায়ক মোগাম্বো। এই চরিত্রে অভিনয় করেন প্রয়াত অমরেশ পুরী। অধীর চৌধুরির দাবি যে সরকার 'মোগাম্বো' কে খুশি করার জন্য সব কিছু করছে। তিনি বলেন, "সরকারের কোষাগার থেকে কোটি কোটি টাকা ব্যয় করার দরকার কী? ট্রাম্পকে খুশিকরতে বস্তিতে বসবাসকারী লোকজনকে আড়াল করা হচ্ছে বা তারা সরতে বাধ্য হচ্ছে। এটা কি সঠিক আচরণ? গুজরাত নরেন্দ্র মোদির আমলে উন্নত হয়েছে, অন্যদের কাছে তা একটি মডেল হিসাবে পেশ করা হয়েছিল। আর সেখানে দরিদ্রদের শোষণ করা হচ্ছে। এর মানে আমরা মোগাম্বোকে খুশি করার জন্য সব কিছু করব। আমরা মোদি সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করব।"

২৫ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপতি ভবনে অ্যামেরিকার প্রেসিডেন্টের সম্মানে নৈশভোজের আয়োজন করা হয়েছে। সেখানে লোকসভার বিরোধী দলনেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু নৈশভোজে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি বিরোধী দলনেত্রী সনিয়া গান্ধিকে। সেই যুক্তিতে আমন্ত্রণ ফিরিয়ে দিয়েছেন অধীর। কেন্দ্রীয় সরকারকে তাঁর কটাক্ষ, “মার্কিন প্রেসিডেন্ট ভারতে আসছেন। তাঁর সম্মানে নৈশভোজের আয়োজন করা হচ্ছে। কিন্তু সেখানে সনিয়া গান্ধি আমন্ত্রিত নয়। প্রেসিডেন্টের সঙ্গে স্রেফ মোদি থাকবেন। এটা কোন ধরণের গণতন্ত্র?” আরও পড়ুন: Donald Trump Visit To India: 'বাঁদরামি' রুখতে ডোনাল্ড ট্রাম্পের নিরাপত্তায় মোতায়েন ৫ বাঁদর!

তিনি আরও বলেন, “ট্রাম্প এখানে আসছেন। ভারত তার জন্য একটি দুর্দান্ত নৈশভোজের আয়োজন করবে, তবে বিরোধী দলকে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে না। কেন সনিয়া গান্ধিজি আমন্ত্রিত হননি। ‘হাউডি মোদি’ ইভেন্টে রিপাবলিকান এবং ডেমোক্র্যাটরা,দুই পক্ষই মঞ্চ ভাগ করে নিয়েছিলেন। তবে এখানে, কেবল মোদিই থাকবেন ট্রাম্পের সাথে। এটা কোন ধরণের গণতন্ত্র?" অধীরের ব্যাখা, “ট্রাম্প ভারতে আসছেন, এটা খুব বড় বিষয়। অ্যামরিকা একটি শক্তিশালী দেশ এবং আমরা আমাদের দেশে তাদের রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানাই। তিনি যে দেশের প্রতিনিধিত্ব করেন সে দেশকে প্রাচীনতম গণতন্ত্র বলে এবং ভারতকে বৃহত্তম গণতন্ত্র হিসাবে বিবেচনা করা হয়। গণতন্ত্রের এমন কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা প্রত্যেকে শ্রদ্ধা করবে।”