KIFF Rescheduled: করোনার কাঁটায় পিছিয়ে জানুয়ারিতে ২৬-তম কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসব, দেখে নিন দিনক্ষণ
কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসব (Photo Credits: Facebook)

কলকাতা, ২৯ অক্টোবর: সবদিক দিয়ে গোছগাছ চলছিল। আমন্ত্রণের পর্বও মিটেছিল নির্বিঘ্নে। তবে কাজের কাজটাই আর হল না, করোনা আবহে ২৬-তম কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে (Kolkata International Film Festival) পড়ল ছেদ। বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি জানিয়ে দিলেন এই লংক্রমমের পরিস্থিতি ২০২০-তে রাজ্যে কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসব হচ্ছে না। বরং তা পিছিয়ে গেল আগামী জানুয়ারি মাসে। ২০২১ সালের ৮-১৫ জানুয়ারি হবে কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসব। এদিন মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণার খবরে কলকাতার সিনেমাপ্রেমী মানুষের মনে পড়েছে বিষাদের ছোঁয়া। করোনার ঘায়ে উৎসব মুখর বাঙালি দুর্গাপুজোতেও প্রায় দোর এঁটে ঘরে রইল। তাতে সংক্রমণের গতি কমানো যায়নি। প্রশাসনের নিয়মকে তুচ্ছাতিতুচ্ছ জ্ঞান করে অনেকেই রাস্তায় বেরিয়েছে। তার মাশুল গুনছে রাজ্য।

প্রতিদিন হু হু করে বাড়ছে আক্রান্তের তালিকা। উত্তর ২৪ পরগনার অবস্থা সবথেকে খারাপ। রাজ্যপ্রশাসন ও স্বাস্থ্য দপ্তরের উদ্বেগ বাড়িয়ে মৃত্যুর পরিসংখ্যান মাত্রাছাড়া। এই পরিস্থিতিতে বিনোদনের জন্য যদি ফের লাগামছাড়া সংক্রমণ হয় তাহলে তা শুধু নিয়ন্ত্রণের বাইরেই চলে যাবে না। বিপদও বেড়ে যাবে কয়েকগুণ। চলচ্চিত্র উৎসবের বিনিময়ে এতবড় ক্ষতি স্বীকার করতে নারাজ পশ্চিমবঙ্গ সরকার। তাছাড়ার করোনা ঘায়ে এবার অস্কার, গোয়া চলচ্চিত্র উৎসব সবেতেই পড়েছে দাঁড়ি। গোয়া চলচ্চিত্র উৎসবও জানুয়ারিতে পিছিয়েছে। তবে করোনাকালেও যাতে উৎসবে কোনওরকম খামতি না থাকে তাই আয়োজনও হয়েছিল ভালমতোই। শাহরুখ খান অমিতাভ বচ্চনদের আমন্ত্রণ করা হয়েছিল। দেশবিদেশ থেকে সিনেমা ব্যক্তিত্বরাও ছিলেন সেখানে স্বাগত তবে মাদ সাধল মহামারী। আরও পড়ুন-Sukumar Hansda Passes Away: প্রয়াত বিধানসভার ডেপুটি স্পিকার তথা জঙ্গল মহলের চিকিৎক নেতা সুকুমার হাঁসদা

মুখ্যমন্ত্রীর টুইট

তাছাড়া আনলক ৫.০-তে কেন্দ্র সিনেমাহল গুলিতে মাত্র ৫০ শতাংশ দর্শক সমাবেশের অনুমোদন দিয়েছে। এভাবে তো আর ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল হতে হতে পারে না। চলচ্চিত্র উৎসব মানে সিনেমাপাগল মানুষের মিলনমেলা। সিনেমা নিয়ে তর্ক, আলাপ আলোচনা, আড্ডা, সিনেমার প্রদর্শন। তারউপরে সত্যজিৎ রায়ের জন্মশতবর্ষ চলছে। এমতাবস্থায় কোভিডের মতো ছুৎমার্গের রোগ তো হু হু করে ছড়াবে। সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং তায় সংক্রমণের ভয়। জোড়া গুঁতোয় উৎসব উঠতো শিকেয়। তাই সবদিক সামাল দিয়ে বদলে গেল কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবের সময়সূচি।