কাশ্মীর সমস্যার মেটাতে ভারত পাকিস্তানের আলোচনা সম্ভব নয়, তৃতীয় পক্ষ জরুরি : শাহ মেহমুদ কুরেশি
শাহ মেহমুদ কুরেশি(Photo Credit: ANI)

নিউইয়র্ক, ১২ সেপ্টেম্বর: জম্মু-কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে। রাষ্ট্রসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে এনিয়ে তোলপাড় ফেলেছিল পাকিস্তান। সেই দাবিকে মিথ্যে বলে নস্যাৎ করেন ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের প্রতিনিধিরা। ঠিক তার একদিন পরেই পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশির (Shah Mehmood Qureshi) দাবি, কাশ্মীর ইস্যুতে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে আলোচনা সম্ভব নয়। এই সমস্যার স্থায়ী সমাধান করতে হলে তৃতীয়পক্ষের মধ্যস্থতা প্রয়োজন। নিউইয়র্কে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা প্রসঙ্গে শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেন, ভারত পাকিস্তানের মধ্যে কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে কোনও আলোচনা হওয়া আর সম্ভব নয়। একমাত্র তৃতীয় পক্ষের মধ্যস্থতাই (third party intervention) দুই দেশের মধ্যে আলাচনকে ফলপ্রসূ করতে পারে।

বড় বড় আন্তর্জাতিক শক্তিগুলির সহযোগিতায় কাশ্মীরের সমাধান করতে রাজি নয় পাকিস্তান। কাশ্মীরের বহুপাক্ষিক সমস্যার সমাধানের জন্য পাকিস্তান চাপ দিচ্ছে ঠিকই, তবে বিশ্বের বড় শক্তিরা সেখানে নাক গলাক তানিয়ে আপত্তিও রয়েছে। তবে রাশিয়া ও চিন ইতিমধ্যেই ভারত পাকিস্তানকে আলোচনায় বসে দুই দেশের মধ্যে বেড়ে ওঠা সমস্যার সমধান করে নিতে বলেছে। এদিকে গত জুলাইতেই এক আলোচনা প্রসঙ্গে ভারত পাকিস্তানের মধ্যেকার তিক্ততা কমাতে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা নিতে ইচ্ছে প্রকাশ করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পাকিস্তান এই সময় নীরব থাকলেও ভারতের তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, দুই দেশের ঝামেলা মেটাতে বাইরের কাউকে দরকার নেই। এরপর আর ভারত পাকিস্তান প্রসঙ্গ উঠলেও মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালনের কথা ট্রাম্প বলেননি। এদিকে গত মঙ্গলবার হোয়াইটহাউসে এক সাংবাদিক সম্মেলনে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ভারত পাকিস্তানের মধ্যে তৈরি হওয়ায় উত্তেজনা এখন অনেকটাই কমেছে, অন্তত দুসপ্তাহ আগের পরিস্থিতির থেকে এখন অনেকটাই ভাল। ভারত পাকিস্তান চাইলে এই সম্পর্কের উন্নতি তিনি সহযোগিতা করতে পারেন। দুই দেশকেই তিনি ভাল করে জানেন, আর এই সহযোগিতার ইচ্ছে সম্পর্কে দুই দেশই ওয়াকিবহাল। আরও পড়ুন-Shah Mehmood Qureshi on Kashmir: কাশ্মীর ভারতের অংশ , ৭২ বছর পর সত্যিটা স্বীকার করল পাকিস্তান(দেখুন ভিডিও)

উল্লেখ্য, জি-৭ সামিটে যখন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও ডোনাল্ড ট্রাম্প এক সঙ্গে যৌথ সাংবাদিক সম্মেলন করেন। সেখানে নরেন্দ্র মোদি বলেছিলেন, ভারত পাকিস্তান নিজেরাই কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করতে পারবে। ঠিক তার পরে পরেই সমস্যা সমাধানে সহযোগিতার কথা বলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এরপরেই মধ্যস্থতার প্রস্তাব নাকচ করে নরেন্দ্র মোদি জানান, ‘পাকিস্তানের অনেক সমস্যা আছে। এই সমস্যা মেটাতে অন্য কাউকে আমরা চাইছি না। নিজেরাই আলোচনা করে সমাধান খুঁজে নেব।’