Florida: ফ্লোরিডার পেনসাকোলা নৌসেনা ঘাঁটিতে বন্দুকধারীর হামলা, অন্তত মৃত ২
(Photo: Twitter)

ফ্লোরিডা, ৬ ডিসেম্বর: অ্যামেরিকার ফ্লোরিডার (Florida) পেনসাকোলা (Pensacola) নৌসেনা ঘাঁটিতে (Naval Air Station) বন্দুকধারীর হামলা। যার জেরে শুক্রবার সকালে এয়ার স্টেশন পেনসাকোলা বন্ধ করে দেওয়া হয়। এস্কাম্বিয়ার কাউন্টি শেরিফের অফিস ( Escambia County Sheriff's Office) ঘোষণা করেছে যে, পেনসাকোলেতে বন্দুকধারীকে নিকেশ করা হয়েছে। সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, বন্দুকধারী ছাড়াও আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে। ফ্লোরিডার সামরিক ঘাঁটিতে এই ঘটনা সম্পর্কে আর কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি। যদিও শেরিফের অফিস আরও কেউ আহত বা নিহত হয়েছে কি না তা জানায়নি। জানা যাচ্ছে, ঘাঁটির দুটি প্রবেশদ্বার বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং প্রায় ঘটনার সঙ্গে সঙ্গেই পুলিশের পাশাপাশি এটিএফ ও এফবিআই ঘটনাস্থলে পৌঁছোয়। সুরক্ষা বাহিনী ঘাঁটির ভবনে তল্লাশি চালাচ্ছে।

খবরে বলা হয়েছে, ঘাঁটির মূল গেটের কাছে শ্যুটারকে হত্যা করা হয়েছে। নৌঘাঁটিতে আহত কর্মীদের দ্রুত নেভি অ্যাম্বুলেন্সে করে ব্যাপটিস্ট হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এদিকে অ্যামেরিকার কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, ঘটনায় অন্তত ১০ জনের গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। যদিও প্রকৃত সংখ্যা সম্পর্কে এখনও নিশ্চিতভাবে কিছু জানানো হয়নি। আরও পড়ুন: Pearl Harbor Shooting: পার্ল হারবারে বন্দুকবাজের হামলা থেকে কপাল জোরে রক্ষা পেলেন ভারতীয় বায়ুসেনা প্রধান রাকেশ কুমার সিং

বুধবার হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জে পার্ল হারবার (Pearl Harbour) নৌসেনা ঘাঁটিতে বন্দুকবাজের হামলায় প্রাণ যায় ২ জনের। আহত হন আরও একজন। গুলি চালানোর পর আত্মঘাতী হয় বন্দুকবাজ। এই ঘটনার সময় সেই নৌসেনা ঘাঁটিতেই উপস্থিত ছিলেন ভারতের বায়ুসেনা প্রধান আরকেএস ভাদুড়িয়া ও তাঁর টিম। তাঁরা সবাই অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন বলে জানা গেছে। প্রশান্ত মহাসাগরীয় বায়ুসেনা প্রধানদের কনফারেন্সে অংশ নিতে সেখানে গিয়েছেন ভারতীয় নৌসেনারা। এক আধিকারিক জানিয়েছেন, 'মৃত দু জন প্রতিরক্ষা দফতরের অসামরিক কর্মী। আহত আর এক সাধারণ নাগরিকের অবস্থা এখন স্থিতিশীল। তিনি হাসপাতালে ভর্তি।'

বায়ুসেনার তরফে জানানো হয়েছে, পার্ল হারবারের (Pearl Harbour) ন্যাভাল বেস এবং এয়ারফোর্স বেসের মধ্যে বেশ খানিকটা দূরত্ব রয়েছে। খুব কাছাকাছি নয় এই দুই মিলিটারি বেস। এই দূরত্বের কারণেই দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব হয়েছে। কারণ এয়ার চিফ মার্শাল ভাদোরিয়া এবং তাঁর দল ন্যাভাল বেসে থাকলে বা বায়ুসেনার বেস থেকে ন্যাভাল বেসের তেমন দূরত্ব না থাকলে বিপদের সম্ভাবনা ছিল।