Manoj Mukund Naravane: দায়িত্ব থেকে অবসর বিপিন রাওয়াতের, ভারতের পরবর্তী সেনাপ্রধান হচ্ছেন মনোজ মুকুন্দ নারাভানে
মনোজ মুকুন্দ নারাভানে (Photo Credit: Twitter)

নতুন দিল্লি, ১৭ ডিসেম্বর: আগামী ৩১ ডিসেম্বর জেনারেল বিপিন রাওয়াত (General Bipin Rawat) গত তিন বছরের সেনা প্রধানের দায়িত্ব সম্পূর্ণ করছেন। তিনি তারপর হয়ে যাবেন চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ। তাঁর জায়গায় ভারতের পরবর্তী সেনা প্রধান হচ্ছেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নারাভানে (Manoj Mukund Naravane)। বর্তমানে তিনি ভারতীয় সেনাবাহিনীর উপপ্রধানের পদে রয়েছেন। তার আগে ছিলেন ইন্টার্ন কম্যান্ডের জিওসি-ইন-সি (জেনারেল অফিসার কম্যান্ডিং ইন চিফ)। ২০২২ সালের এপ্রিল মাস পর্যন্ত সেনাপ্রধানের দায়িত্বে বহাল থাকবেন নারাভানে। সেনাপ্রধান নিয়োগের ক্ষেত্রে সরকার সিনিয়রিটি মেনটেন করেছে। তিনি এবং নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনীর দুই সেনা প্রধান একেবারেই সমসাময়িক। তাঁরা একসঙ্গে জাতীয় প্রতিরক্ষা অ্যাকাডেমি কোর্সের অন্তর্ভুক্ত।

১৯৮০ সালের জুন মাসে শিখ লাইট ইনফ্যান্ট্রি রেজিমেন্টের সাত নম্বর ব্যাটেলিয়নে কর্মজীবন শুরু করেন। ৩৭ বছরের কর্মজীবনে একাধিক কম্যান্ডের শীর্ষ পদে ছিলেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল নারাভানে। কাশ্মীর ও উত্তর-পূর্ব ভারতে জঙ্গিদমন অভিযানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল তাঁর। কাশ্মীরে তিনি রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের অধিনায়ক ছিলেন। তাছাড়া অসম রাইফেলসের ইনস্পেকটর জেনারেলের (নর্থ) দায়িত্বও সামলেছেন তিনি। শ্রীলঙ্কায় অপারেশন পবনের সময় তিনি ভারতীয় শান্তিরক্ষা বাহিনীর সদস্য হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেন। মায়ানমারের ভারতীয় দূতাবাসে প্রতিরক্ষা আধিকারিক হিসেবে তিন বছর দায়িত্ব পালন করেছিলেন। সুদীর্ঘ কর্মজীবনে দেশের সেবা ও কর্তব্যনিষ্ঠার জন্য লেফটেন্যান্ট জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নারাভানেকে সেনাপদক (২০১৫), বিশিষ্ট সেবা পদক, অতি বিশিষ্ট সেবা পদক (২০১৭) এবং পরম বিশিষ্ট সেবা পদক (২০১৯) সম্মানে ভূষিত করা হয়। আরও পড়ুন-CJI SA Bobde: ধর্ষণ মামলার দ্রূত নিষ্পত্তিতে দুই বিচারপতির কমিটি তৈরি করলেন সিজেআই এসএ বোবদে

পুণের বাসিন্দা মনোজ মুকুন্দ নারাভানে ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যাকাডেমি (পুণে) ও ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমির (দেহরাদূন) প্রাক্তনী। চলতি বছর ১ সেপ্টেম্বর লেফটেন্যান্ট জেনারেল দেবরাজ আনবুর অবসরের পর থেকে ভারতীয় বাহিনীর উপপ্রধানের দায়িত্ব সামলাচ্ছিলেন নারাভানে। তার আগে ছিলেন ইস্টার্ন কম্যান্ডের প্রধান। ভারত-চিন সীমান্তের প্রায় চার হাজার কিলোমিটার নজরদারির দায়িত্ব থাকে ইস্টার্ন কম্যান্ডের উপর। ইস্টার্ন কম্যান্ডের জিএসি-ইন-সির আগে তিনি সেনা প্রশিক্ষণ কম্যান্ডের জিওসি-ইন-সির পদে ছিলেন।