Chandrayan 2: নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে ৭০ ছাত্রছাত্রী সাক্ষী থাকবে চন্দ্রযান ২ -র চাঁদে পা রাখার ঐতিহাসিক মুহূর্তে
নরেন্দ্র মোদী থাকবেন আজ ইসরো ভবনে (Photo Credits: PTI/ISRO)

বেঙ্গালুরু, ৬ সেপ্টেম্বর: How To Watch Chandrayan 2 live streaming: ভারতের চন্দ্রযান টু (Chandrayan 2) ৭ সেপ্টেম্বর শনিবার পাকাপাকিভাবে চাঁদের মাটি ছোঁবে। আর তারপরই তৈরী হবে এক বড় ইতিহাস। ইতিহাস তৈরী করতে আর কিছুক্ষণ সময়ের অপেক্ষা। চন্দ্রযান টুর সরাসরি সম্প্রচার হবে ন্যাট জিও ইন্ডিয়া (Nat Geo India) , ষ্টার প্লাস (Star Plus), হটস্টার (Hot Star) এবং ষ্টার ভারতে (Star Bharat)। কোন রকম ত্রুটি না থাকলে আশা করা যাচ্ছে শনিবার রাত ১.৩০ টা থেকে ২.৩০ টের মধ্যে চাঁদের মাটি ছোঁবে ল্যান্ডার বিক্রম (Lander Vikram)।

'ব্যাঙ্গালোরে ইসরোতে সারা দেশের ৭০ জন ছাত্রছাত্রীর সঙ্গে চন্দ্রযান ২- র চাঁদে পা রাখার এই ঐতিহাসিক মুহূর্ত দেখবো ভেবে আমি খুবই উত্তেজিত। এবার ভুটান থেকেও আমরা ছাত্রছাত্রীদের পেয়েছি' - বলে টুইট করেন প্রধানমন্ত্রী।

 

 

রোভার প্রজ্ঞান (Rover Pragyan) বেরিয়ে আসবে বিক্রম ছেড়ে সকাল ৫.৩০ টা থেকে ৬.৩০ টার মধ্যে। চাঁদে অবতরণের আগের শেষ ১৫ মিনিট খুব উল্লেখযোগ্য একটি সময়। ইসরোর তরফ থেকে জানানো হয়েছে, 'সফ্ট ল্যান্ডিং' -র আশা করা যাচ্ছে। ইসরো কেন্দ্রে বসে সরাসরি সম্প্রচার দেখতে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং সারাদেশের ৭০ জন ছাত্রছাত্রী। এই ইসরোর সরাসরি সম্প্রচার দেখানোর জন্য সারা দেশে একটি কুইজ কনটেস্টের আয়োজন করা হয়। সেখানে প্রত্যেকটি রাজ্যের সর্বাধিক স্কোর করা ২ জন করে ছাত্র বা ছাত্রীদের পাঠানো হয়েছে বলে সূত্রের খবর। আরও পড়ুন, Android 10: জল্পনা শেষ করে হাজির Android 10, আপনার ফোনে আপডেট করতে দেখে নিন কী করবেন

ন্যাট জিও- র টুইট,

চন্দ্রযান টু চাঁদের কক্ষপথে প্রবেশ করার পর ২২ আগস্ট প্রথম গহ্বরগুলির ছবি পাঠায়। ২, ৬৫০ কি.মি দূরত্ব থেকে ওই ছবি তোলা হয়েছিল। এরপর চাঁদের আরও কাছাকাছি পৌঁছে দুটি ভাগে ভাগ হয়ে যায় চন্দ্রযান ২। ল্যান্ডার বিক্রম (Lander Vikram) ও অরবিটার দুটি ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। বুধবার ভোররাতে দ্বিতীয় ডি- অরবিটিংয়ের মাধ্যমে চাঁদের একদম কাছাকাছি পৌঁছে যায় চন্দ্রযান- ২ এর ল্যান্ডার।

প্রসঙ্গত, অন্ধ্র প্রদেশের শ্রীহরিকোটা (Andhra Pradesh Sriharikota) থেকে দুপুর ২.৪৩ মিনিটে সফল উত্ৎক্ষেপণ হয় 'চন্দ্রযান ২'। চন্দ্রযান-২-এর অভিযানে খরচ হয়েছে প্রায় ১,০০০ কোটি টাকা। চাঁদে জলের সন্ধান পাওয়া গেলে সেখানে তৈরী হবে বাসস্থান, হবে চাষাবাদ। তৈরী করা হবে অক্সিজেন ও হাইড্রোজেন। এখন শুধু কয়েক ঘন্টার অপেক্ষা।