৩৭০-এর গেরো,  দুই দেশের মধ্যে ডাক পরিষেবা বন্ধ করায় পাকিস্তানকে একহাত নিল ভারত
প্রতীকী ছবি (Photo Credit: PTI)

নতুন দিল্লি, ২১ অক্টোবর: একতরফা ভাবে দুই দেশের মধ্যে ডাক পরিষেবা (postal mail service) বন্ধ করেছে পাকিস্তান। ভারতকে না জানিয়েই দু’দেশের মধ্যে ডাক পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়ায় এদিন পাকিস্তানকে দুষল নয়াদিল্লি। এই পরিষেবা বন্ধ করে আন্তর্জাতিক ডাক পরিষেবা চুক্তি লঙ্ঘন (contravention of international norms) করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছে ভারত। এই প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ (Union Minister Ravi Shankar Prasad) বলেন, “দুই দেশের মধ্যে কোনও পরিষেবা বন্ধ করতে হলে তা দু’দেশের মধ্যে কথা বলে করা উচিত। কিন্তু পাকিস্তান তো পাকিস্তান। তাই নিজেরাই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কোনও নোটিস ছাড়াই পাকিস্তান থেকে চিঠি আসা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। বিষয়টি আন্তর্জাতিক মহলে তোলা হবে।”

মূলত জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা উঠে যাওয়ার পরে পরেই এই ডাক পরিষেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয় ইমরান খানের সরকার। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, জম্মু কাশ্মীরের উপর থেকে স্পেশ্যাল স্ট্যাটাস তুলে নেওয়ার পর থেকে একের পর এক সিদ্ধান্ত নিচ্ছে পাকিস্তান। প্রথমে আকাশপথ ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি করে পাকিস্তান। তারপর ব্যবসায়িক লেনদেন বন্ধ করেছে তারা। এ বার ডাক পরিষেবা বন্ধ করল পাকিস্তান। এ ছাড়া সীমান্তে প্রতিদিন গুলি চালাচ্ছে পাক সেনা ও জঙ্গিরা। কাশ্মীরের শান্তি ভঙ্গ করতে ও নাশকতার কাজ করতে উঠেপড়ে লেগেছে ইসলামাবাদ। কখনও বিদেশের মাটিতে গিয়ে ইমরান ও বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি কেঁদে পড়ছেন এই বলে যে এূার বোধহয় আর রক্ষা হল না। কাশ্মীরের মানুষের মানবাধিকার ভেসে গেল। তবে বিশ্বের কাছে কেঁদে কেটেও খুব একটা সহানুভূতি কিন্তু পাকিস্তানের ঝুলিতে যায়নি তা বলাই বাহুল্য। আরও পড়ুন-'পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ঢুকে জঙ্গি ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেব', পাকিস্তানি জঙ্গিদের হুঁশিয়ারি দিলেন জম্মু ও কাশ্মীরের রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক

সোমবার একটি সাংবাদিক সম্মেলন করে এবিষয়ে ক্ষোভ উগরে দিলেন কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ। তিনি বলেন, “পাকিস্তান দু’দেশের মধ্যে ডাক পরিষেবা বন্ধ করে দিয়েছে। এই পরিষেবা বন্ধ করার আগে ভারতকে কিছু জানায়নি তারা। এই সিদ্ধান্ত আন্তর্জাতিক ডাক পরিষেবা চুক্তির বিরুদ্ধে। সেই চুক্তি লঙ্ঘন করেছে ইসলামাবাদ।”