Rahul Gandhi: কংগ্রেস সভাপতি হিসেবে ফিরতে পারেন রাহুল গান্ধী, ইঙ্গিত খোদ রাগার গলায়
রাহুল গান্ধী

নয়া দিল্লি, ১৬ অক্টোবর: কংগ্রেসের সভাপতি পদে (Congress President) কি ফিরতে চলেছেন রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi)? শনিবার কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি বা কর্ম সমিতির বৈঠক (CWC Meet)-র পর যা খবর তাতে রাহুলই হয়তো কংগ্রেস সভাপতির পদে ফিরতে চলেছেন। রাহুলের নেতৃত্বেই ২০২৪ লোকসভায় জিততে ঝাঁপাবে কংগ্রেস। এতদিন যাবো না, যাবো না করেও আজ শেষপর্যন্ত রাহুল গান্ধী জানিয়েছেন, কংগ্রেস সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার অনুরোধ তিনি বিবেচনা করবেন। এই ক বছরের মধ্যে এই প্রথম রাহুল এমন কথা বললেন। এর আগে তিনি কিছুতেই দলের সভাপতি হিসেবে কাজ করতে রাজি হচ্ছিলেন না।

সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে কংগ্রেসকে নেতৃত্ব দিক রাহুল গান্ধী। কর্মসমিতির বৈঠকে এই প্রস্তাব দিয়েছেন অশোক গেহলট (Ashok Gehlot) সহ বেশ কয়েকজন শীর্ষস্তরের কংগ্রেস নেতা। কংগ্রেসের এখন বড় একটা অংশ চাইছেন স্বচ্ছ ভাবমূর্তির রাহুল গান্ধীই দলের দায়িত্ব নিক। G23-নামের যে ২৩জন নেতা কংগ্রেসে বিদ্রোহ করেছেন, তাদের সঙ্গে সমঝোতা করে এগিয়ে গিয়ে ফের দলের পুরনো জৌলস ফেরাতে রাহুলই যে সেরা ব্যক্তি হবেন তা নিয়েই অনেকেই এক মত। আরও পড়ুন: 'রাবণ, বার্ধক্য ও পরের জন্ম নষ্ট হয়ে যাবে', কাকে অভিশাপ দিলেন বিজেপি সাংসদ প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর ?

দেশজুড়ে কংগ্রেসের অবস্থা এখন একেবারেই খারাপ। বেশ কিছু রাজ্যে দল সাইনবোর্ডে পরিণত হয়েছে, হাতে গোণা যে কটা রাজ্যে দল ক্ষমতায় সেখানে এত অন্তর্দ্বন্দ্ব যে দলের ইমেজ খারাপ হচ্ছে। এমন সময় রাহুল দায়িত্ব নিলে দল ঘুরে দাঁড়াবে বলে আশায় অনেকে। আগামী বছর পঞ্জাব, গুজরাট, উত্তরাখণ্ড, উত্তরপ্রদেশে নির্বাচন। ২০২৪ লোকসভায় কংগ্রেসকে ঘুরে দাঁড়াতে হল, স্থায়ী সভাপতি খুবই দরকার।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে তাঁর নেতৃত্বে লড়ে দলের ভরাডুবির পর কংগ্রেস সভাপতির পদ ছেড়েছিলেন রাহুল গান্ধী। দলের শীর্ষ নেতৃত্ব থেকে নীচুস্তরের কর্মীরা অনেক আবেদন করার পরও রাহুল সভাপতির পদে ফিরতে চাননি। এরপরই অন্তবর্তীকালীন সভাপতি হিসেবে কংগ্রেসের দায়িত্ব নেন সোনিয়া গান্ধী। কিন্তু কোনও স্থায়ী সভাপতি না থাকায় কংগ্রেসের মধ্যেই প্রশ্ন উঠেছিল। সোনিয়ার নেতৃ্ত্বে গত দু বছরে দলের হাল আরও খারাপ হয়েছে। দিল্লি, পশ্চিমবঙ্গের মত রাজ্যে কংগ্রেস নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছে। বিহার, অসমেও হাল খারাপ। ২০২৪ লোকসভায় নরেন্দ্র মোদীকে কঠিন চ্যালেঞ্জ ফেলতে হলে কংগ্রেস স্থায়ী সভাপতি আসা খুবই জরুরি।