Gyanvapi Mosque Case: ১৯৯১ সালের আইন দ্বারা উপাসনার স্থানের ধর্মীয় চরিত্র নির্ণয়ে বাধা নেই, জ্ঞানবাপী মামলায় পর্যবেক্ষণ সুপ্রিম কোর্টের
Supreme Court (Photo Credit: ANI/Twitter)

নতুন দিল্লি, ২০ মে: জ্ঞানবাপী মসজিদ মামলার ( Gyanvapi Mosque Case) শুনানির জন্য বারাণসী জেলা আদালতে (Varanasi District Court) পাঠাল সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court)। এত দিন জ্ঞানবাপী মামলাটি ছিল বারাণসী দায়রা আদালতে। বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড় (Justice D.Y. Chandrachud), বিচারপতি সূর্য কান্ত (Justices Surya Kant) ও বিচারপতি পিএস নরসিমার (P.S. Narasimha) ডিভিশন বেঞ্চ শুক্রবার এই নির্দেশ দিয়েছে। শুক্রবার জেলা আদালতকে মামলা হস্তান্তরের নির্দেশ দিয়ে বিচারপতি চন্দ্রচূড় বলেন, "এমন স্পর্শকাতর মামলার শুনানির জন্য আরও অভিজ্ঞ বিচারবিভাগীয় আধিকারিকের প্রয়োজন।" সুপ্রিম কোর্ট শুক্রবার মৌখিকভাবে পর্যবেক্ষণ করেছে যে ১৯৯১ সালের উপাসনার স্থান আইন (Worship Act, 1991) দ্বারা উপাসনার স্থানের ধর্মীয় চরিত্র নির্ণয়ে বাধা নেই।

মসজিদ কমিটির প্রতিনিধিত্বকারী সিনিয়র অ্যাডভোকেট হুজেফা আহমাদিকে সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ বলে, "ধরুন একটি পার্সি মন্দির আছে এবং এলাকার কোণে একটি ক্রস রয়েছে। আগয়ারির উপস্থিতি কি ক্রসটিকে আগয়ারি বা আগয়ারি খ্রিস্টান করে তোলে? এই হাইব্রিড চরিত্রটি ভারতে অজানা নয়।" আরও পড়ুন: Monkeypox Outbreak: মাঙ্কিপক্সের প্রাদুর্ভাব নিয়ে আলোচনার জন্য জরুরি বৈঠক ডাকল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

জবাবে আহমদি জানান যে ১৯৪৭ সালের ১৫ অগাস্টে জ্ঞানবাপী মসজিদের ধর্মীয় চরিত্রটি বিতর্কিত নয়। যদিও হিন্দু মামলাকারীদের প্রতিনিধিত্বকারী আইনজীবী জোর দিয়েছিলেন যে এটি দৃঢ়ভাবে বিতর্কিত। বেঞ্চ আরও যোগ করেছে যে কোনও স্থানের ধর্মীয় চরিত্রের নির্ণয় উপাসনা স্থান আইনের ৩ ও ৪ নম্বর ধারা অনুযায়ী বাধা নেয়। জবাবে আহমদি উত্তর দিয়েছিলেন যে যদি এই সমস্ত নির্ধারণের অনুমতি দেওয়া হয়, তবে আইনটির মৃত্যু হয়ে যাবে।

১৯৯১ সালের উপাসনা স্থান আইনের ৪ নম্বর ধারা অনুসারে, ১৯৪৭ সালের ১৫ অগাস্টে একটি উপাসনালয়ের ধর্মীয় চরিত্র সেই দিনটির মতোই থাকবে। আইনের ৩ ধারায় বলা হয়েছে, কোনও ব্যক্তি কোনও ধর্মীয় সম্প্রদায়ের কোনও উপাসনালয় বা উহার কোনও অংশকে একই ধর্মীয় সম্প্রদায়ের কোনও ভিন্ন অংশের বা কোনও ভিন্ন ধর্মীয় সম্প্রদায়ের বা উহার কোনও বিভাগের উপাসনালয়ে রূপান্তর করতে পারবে না।