Shoaib Malik slams Pakistan players: বিশ্বকাপে লজ্জার বিদায়, পাক ক্রিকেটারদের পেশাদারিত্বের অভাবের সমালোচনা শোয়েব মালিকের
Pakistan Team (Photo Credit: Pakistan Cricket/ X)

আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০২৩ থেকে বিদায় নিয়েছে পাকিস্তান। শনিবার কলকাতায় ইংল্যান্ডের কাছে ৯৩ রানে হেরেছে তারা। লিগের নয়টি ম্যাচে এটি পাকিস্তানের পঞ্চম পরাজয় এবং ম্যান ইন গ্রিন আফগানিস্তানের উপরে নেট রান রেটের ভিত্তিতে পঞ্চম স্থানে অভিযান শেষ করেছে। এই হতাশাজনক পারফরম্যান্সের পর বাবর আজম ও তার দল সমর্থক, প্রাক্তন ক্রিকেটার ও বিশেষজ্ঞদের সমালোচনার মুখে পড়েছে। পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক শোয়েব মালিকও (Shoaib Malik) বর্তমান খেলোয়াড়দের পেশাদারিত্বের অভাবের জন্য সমালোচনা করেছেন। তাঁর কথায়, 'ভ্রমণ নামেই অজুহাত। সারা পৃথিবী ঘুরে বেড়াচ্ছে। দেখুন ভারতের ক্যালেন্ডার। তাদের পেসাররা গতি ও সুইং হারায়নি। পেশাদারিত্বই আমাদের দলে অনুপস্থিত।' তিনি বলেন, 'আপনারা তাদের অর্ধেককে জিজ্ঞাসা করুন এবং তারা জানে না কিভাবে পুনরুদ্ধার করতে হবে। সাম্প্রতিক অতীতে আমাদের কাছে এমন কোনো উপাদান নেই, যা আপনাকে ক্র্যাম্প থেকে মুক্তি দিতে পারে। আমরা দেখেছি ম্যাক্সওয়েলের ক্ষেত্রে তারা তাকে কিছু সময় দিয়েছে এবং সে মারাত্মক ক্র্যাম্প নিয়ে খেলেছে।' Sourav Ganguly on Pakistan Cricket: কীভাবে ভারতের মতো শক্তিশালী হবে পাকিস্তান, ওয়াসিম আক্রমদের জানালেন সৌরভ গাঙ্গুলি

ভ্রমণের বিষয়টিকে তিনি পুরোটাই অজুহাত বলে উড়িয়ে দিয়েছেন। বাবর আজম (Babar Azam), হারিস রউফ (Haris Rauf) এবং শাহীন শাহ আফ্রিদির (Shaheen Shah Afridi) মতো পাকিস্তানের বড় নামগুলোর ব্যর্থতার কথা বিবেচনা করে মালিক নির্বাচকদের পরামর্শ দেন, যখন সফরকারী দলগুলো তাদের প্রথম পছন্দের খেলোয়াড় পাঠাচ্ছে না, তখন দ্বিতীয় সারির দলকে মাঠে নামাতে হবে। তিনি বলেন, 'তাদের নিয়ম করা উচিত যে ভ্রমণকারী দল যদি তাদের বি স্কোয়াড পাঠায়, তবে নিশ্চিত করুন যে আমাদের বি খেলোয়াড়রা তাদের উন্নয়নের জন্য তাদের মুখোমুখি হচ্ছে।'

শোয়েব মালিকও বাবর আজমের অধিনায়কত্ব শৈলীর সমালোচনা করে বলেছিলেন যে বাবর আজমকে তার দৃষ্টিভঙ্গিতে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তিনি এই প্রসঙ্গে বলেন, 'দলের অভাব। অধিনায়কের কাছ থেকে কোনও স্ট্রিট স্মার্টনেস নেই। আমরা শুধু ছোট দলগুলোর বিপক্ষেই জিতেছি। সে গত তিন বছর ধরে অধিনায়ক এবং কোনও উন্নতি হয়নি।' এইবার বিশ্বকাপে পাকিস্তানের জয় এসেছে শুধু নেদারল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ এবং ডিএলএস নিয়মে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে।