কাশ্মীর সমস্যাকে মুখ্য করে সন্ত্রাসের শিল্প খুলে বসেছে পাকিস্তান : এস জয়শংকর
এস জয়শংকর(Photo Credits: ANI)

নিউইয়র্ক, ২৫ সেপ্টেম্বর: পাকিস্তানের সঙ্গে কথা বলতে ভারতের কোনও সমস্যা নেই তবে ‘টেররিস্তানের’ সঙ্গে কথা বলতে বেজায় সমস্যা আছে। পাকিস্তানে এখন সেটাই চলছে। রীতিমতো সন্ত্রাসের শিল্প খুলে বসেছে পাকিস্তান, কাশ্মীর সমস্যা সমাধানেই চলছে এই সন্ত্রাসের শিল্প। মঙ্গলবার নিউইয়র্কে এশিয়া সোসাইটির এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে পাকিস্তানক একহাত নিলেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর (S Jaishankar)। জম্মু-কাশ্মীরের উপর থেকে স্পেশ্যাল স্ট্যেটাস তুলে নেওয়ার পর থেকেই এর বিরোধিতা করে আসছে পাকিস্তান। রাষ্ট্রপুঞ্জ, আন্তর্জাতিক আদালতের মতো জায়গায় এই প্রসঙ্গ তুলেছে ইসলামাবাদ। কিন্তু সব জায়গাতেই তাদের বিফল হতে হয়েছে। পাকিস্তানের এই বিরোধিতা যে শুধুমাত্র কাশ্মীরের জন্য নয়, বরং সন্ত্রাসকে জিইয়ে রাখা ও ছড়িয়ে দেওয়াই হল মূল লক্ষ্য।

এদিন জয়শংকর বলেন, “পাকিস্তানের সঙ্গে যে কোনও বিষয়েই কথা বলতে পারে ভারত। কিন্তু ‘টেররিস্তানের’ সঙ্গে কথা বলার কোনও মানে নেই।  আমরা আমাদের সীমান্তের মধ্যে যা পরিবর্তন করার করেছি। এর সঙ্গে পাকিস্তানের কোনও সম্পর্ক নেই। তাও তারা বিরোধিতা করছে। পাকিস্তান সন্ত্রাসের নামে একটা শিল্প খুলে বসেছে। এটা শুধুমাত্র কাশ্মীরের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। বাস্তবে কাশ্মীরের সঙ্গে এর কোনও সম্পর্কই নেই। তারা ভারতের বিরুদ্ধে এই সন্ত্রাসের কারবার খুলে বসেছে। ৭০ বছর ধরে কাশ্মীরের ফায়দা তুলেছে পাকিস্তান। এতদিন ধরে কাশ্মীরকে ভারতের থেকে আলাদা করে রাখা হয়েছিল। এই আলাদা থাকার সুযোগ নিয়ে কাশ্মীরের মানুষদের ভুল বুঝিয়ে সন্ত্রাস চালিয়েছে জইশ, হিজবুল বা লস্করের মতো জঙ্গি সংগঠন। কাশ্মীরের মানুষদের উন্নয়ন হয়নি। তার সুযোগ নিয়েছে ইসলামাবাদ। কিন্তু এখন কাশ্মীরও ভারতের অন্যান্য রাজ্যের মতোই। তাই ৭০ বছর ধরে চালানো এই সন্ত্রাস আর চালাতে পারছে না পাকিস্তান। তাদের এতদিনের চালানো সন্ত্রাসের মডেল ব্যর্থ হয়ে যাওয়ায় হতাশ হয়ে পড়ছে তারা। ” আরও পড়ুন-'Global Goalkeeper Award': স্বচ্ছ ভারত অভিযান-এর জন্য 'গ্লোবাল গোলকিপার অ্যাওয়ার্ড' দেওয়া হল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে

তবে এখন অবশ্য সন্ত্রাস চালানোর চেষ্টা করলে যে পাকিস্তানকে রেয়াত করা হবে না, তাও জানিয়ে দিয়েছেন জয় শংকর। তিনি বলেন, “পাক সরকার, সেনা ও জঙ্গিরা যদি ভারতে সন্ত্রাস চালানোর চেষ্টা করে, তাহলে ঠিক সেটাই করা হবে যা আমেরিকা আফগানিস্তানের সঙ্গে করেছে। ঘরে ঢুকে তাদের জবাব দেব আমরা। এটা নতুন ভারত। এই ভারত যেমন সবার পাশে থাকে, দরকার পড়লে ঘরে ঢুকে শত্রুকে ধ্বংস করতেও পারে।” তবে কাশ্মীর নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে পাকিস্তান নিজেদের অর্থনৈতিক ভিত্তিকে সুদৃঢ় করুক। সন্ত্রাসের রাস্তা থেক সরে না এলে পাকিস্তানেক কোনও সহযোগিতা করা হবে না, এদিন স্পষ্টই জানিয়ে দিলেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী।