Netaji Subhas Chandra Bose Jayanti 2020: নেতাজি  ধর্মনিরপেক্ষতার সওয়াল করতেন, এখন ধর্মনিরপেক্ষদের দেশত্যাগ করানোর চেষ্টা চলছে: মমতা ব্যানার্জি
মমতা ব্যানার্জি (Photo Credits: IANS)

দার্জিলিং, ২৩ জানুয়ারি: দার্জিলিঙে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর ১২৩তম জন্মজয়ন্তী (Netaji Subhas Chandra Bose) অনুষ্ঠানে যোগ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি (Mamata Banerjee)। সেই অনুষ্ঠান থেকেই সরাসরি আক্রমণ করলেন BJP-কে। নেতাজির জন্মদিবসে প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে তৃণমূল সুপ্রিমো বলেন, "নেতাজি ধর্ম নিরপেক্ষতার পক্ষে সওয়াল করতেন। দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষমতা ছিল নেতাজির। যাঁর এই ক্ষমতা থাকে, তিনিই প্রকৃত নেতা।" রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই চারবছর পাহাড়ে ও একবছর সমতলে নেতাজির জন্মজয়ন্তী পালন করেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই নিয়ম মেনেই এবার নেতাজির ১২৩ তম জন্মজয়ন্তী পালনে দার্জিলিঙের ম্যালে হাজির মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আগামীকালই কলকাতায় ফিরে যাওয়ার কথা তাঁর।

এই সময়ের খবর অনুযায়ী, দার্জিলিঙে নেতাজির জন্মজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, "হিন্দু, মুসলিম, জৈন, বৌদ্ধ, নেপালি- সবার পাশে দাঁড়াতেন নেতাজি। সওয়াল করতেন ধর্মনিরপেক্ষতার পক্ষে। এখন ধর্ম নিরপেক্ষদের দেশত্যাগ করানোর চেষ্টা চলছে। আর হিন্দু ধর্মেরই বদনাম করছে BJP।" মুখ্যমন্ত্রীর আরও দাবি, হিন্দু মহাসভার বিরোধিতা করেছিলেন নেতাজি। বলেন, "১৯৪০ সালের ১২ মে ঝাড়গ্রামে এক জনসভায় ভাষণ দিতে এসে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু হিন্দু মহাসভার সমালোচনা করেছিলেন, আজ এই চিন্তাভাবনাগুলি অনেক প্রাসঙ্গিক।" আরও পড়ুন: Netaji Subhas Chandra Bose Jayanti 2020: জন্মদিনে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুকে শ্রদ্ধা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির, বাংলায় টুইট করে শ্রদ্ধা জানালেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ

মমতা বলেন, "নেতাজি অখণ্ড ভারতের পক্ষে লড়াই করেছিলেন, তবে এখন যারা ধর্ম নিরপেক্ষতা অনুসরণ করেন তাঁদের হটিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে।" তাঁর অভিযোগ, "নেতাজির নিখোঁজ রহস্য উদঘাটন করতে সরকার উদ্বিগ্ন নয়, আসলেই কী ঘটেছিল তা জানার জন্য কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।"

২৩ জানুয়ারি নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর জন্মদিনে 'জাতীয় ছুটি' ঘোষণার দাবিও তোলেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রসঙ্গত, এর আগেও নেতাজির জন্মদিবসকে জাতীয় ছুটি ঘোষণার দাবি তুলেছিলেন তিনি। তবে কেন্দ্রের তরফে তাতে কর্ণপাত করা হয়নি। গতকাল মিছিল শেষে সভা থেকে ভাষণের সময় 'সুভাষবাদ ও গান্ধীবাদ' দুইয়ই মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। আজও একই আহ্বান করেন তিনি।