Doordarshan Turns 60: ভারতীয় টিভির স্বর্ণযুগ উপহার দেওয়া দূরদর্শন শুধু নস্টালজিয়ায় বন্দি থাকতে নারাজ
৬০-এ পা দিল দূরদর্শন । (Photo Credits: File Image)

নয়া দিল্লি, ১৫ সেপ্টেম্বর: আজ দূরদর্শনের জন্মদিন। ১৯৫৯ সালে পরীক্ষামূলকভাবে দূরদর্শন চালু হয়েছিল। ছ বছর বাদে প্রতিমা পুরী দূরদর্শনের প্রথম পাঁচ মিনিটের নিউজ বুলেটিন পড়েছিলেন। সেই দূরদর্শন আজ ৬০ বছরে পা দিল। ৬০ বছরটা একটা মাইলস্টোন ধরা যেতে পারে। ৬০ বছরে পা দিয়েও দূরদর্শনের অবশ্য অবসর নেওয়ার কোনও পরিকল্পনা নেই। এই এতগুলো বছরে দূরদর্শন একেবারে বিনামূল্য মানুষকে বিনোদন দিয়ে গিয়েছে। যখন দেশে বেসরকারী টিভি চ্যানেল বলে কিছু ছিল না, স্পেসালাইজড চ্যানেলের ধারনই ছিল না। তখন সব কিছুকে কী সুন্দর ভাবে সময় ধরে ধরে সাজিয়ে গোটা দেশকে বিনোদন দিত।

মেট্রো শহর-বড় শহর-ছোট শহর-মফস্বল-গ্রাম সব ধরনের দর্শকদের একসঙ্গে বসিয়ে রাখার ম্যাজিকটা জানত দূরদর্শন। জানত কথাটা বলতে হচ্ছে, কারণ ক্রমশ কেবল-ডিশ টিভি চ্যানেলগুলির দাপটে কোণঠাসা হতে শুরু করেছে। নেট ফ্লিক্স, হটস্টার-দের মত অনলাইন স্ট্রিমিং আসার মত দূরদর্শন আরও দূরগ্রহের হয়ে উঠেছে। তবু হাজারো চ্যানেল, বিনোদনের ভিড়ে দূরদর্শন নিজেদের একটা আলাদা জায়গা ধরে রাখতে পেরেছে। বিনোদনের মাধ্যমে সামাজিক শিক্ষা, গ্রামীণ খবরে জোরের মত কাজ দূরদর্শন করে চলেছে। সঙ্গে দূরদর্শনকে বেসরকারী বিনোদন চ্যানেলগুলির মত বিনোদনী অনুষ্ঠান আনার চেষ্টাও চলছে।

১৯৮২ সালের ১৫ অগাস্ট নয়া দিল্লিতে প্রথম জাতীয় সম্প্রচার পরিষেবা শুরু করে দূরদর্শন। তখন সেই চ্যানেলের নাম ছিল DD1। সেই বছরই প্রথমবার দেশ রঙীন টিভিতে দেখেছিল প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর স্বাধীনতা দিবসে জাতীর উদ্দেশ্যে ভাষণ। এরপর সেই বছর দিল্লিতে আয়োজিত এশিয়ান গেমস-এর সরাসরি সম্প্রচারও রঙীন টিভিতে হয়েছিল। বলিউড সহ দেশের বহু সেলেবের জন্ম দিয়েছে দূরদর্শন। কালজয়ী বিভিন্ন ধারাবাহিক, শো-ও হয়েছে দূরদর্শনে। আট থেকে নয়ের দশকে 'তু তু ম্যায় ম্যায়', 'মহাভারত', 'দেখ ভাই দেখ', 'উড়ান', 'ফৌজি', 'মালগুদি ডেস'-র মত শো দর্শকদের মধ্যে চিরকালীনভাবে ঠাঁই করে নেয়। দূরদর্শনের প্রথম শো ছিল চৌপল, খবর ও কল্য়ানী।

১৯৬৭ সাল থেকে শুরু হওয়া দেশের কৃষিক্ষেত্রের জন্য শো 'কৃষি দর্শন' একটানা সম্প্রচার হয়েছিল। প্রথমে দেশের ৮০টি গ্রামে দেখানো হয়েছিল এই শো। পরে ২০১৪ সালে এই শোয়ের জন্য আলাদা একটা চ্যানেল করা হয়। যার নাম হয় 'কিষাণ টিভি'। দূরদর্শনের এখন মোট ২৩টি চ্যানেল আছে।

১৯৯১ সালে দেশে মাত্র একটাই টিভি চ্যানেল ছিল-দূরদর্শন। এখন সেখানে দেশে ৮০০টি লাইসেন্সধারী চ্য়ানেল। ১৯৯৮ সালে দেশে প্রথম বেসরকারী খবরের চ্য়ানেল শুরু হয়। এখন সেখানে ১৫টি ভাষায় ৪০০টি নিউজ চ্যানেল আছে। এত কঠিন প্রতিযোগিতার মধ্যে দূরদর্শন টিকে আছে তার বিশ্বস্ততা, রুচিশীল অনুষ্ঠান পরিবেশন করে। দূরদর্শনের অনুষ্ঠানের মান নিয়ে মাঝেমাঝে প্রশ্ন ওঠে। তবু দূরদর্শনের আবেদন একেবারে অন্য জায়গায় ধরা থাকে। দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে দূরদর্শন এখন বিদেশেও পাড়ি দিচ্ছে। বাংলাদেশ সহ প্রতিবেশী দেশে দূরদর্শন ছড়িয়ে পড়ছে। ৬০ বছরে এসেও নিজেকে টিকিয়ে রাখার সব চেষ্টা চালাচ্ছে দূরদর্শন। শুধু নস্টালজিয়া দেখে যেতে নয়, বর্তমান-ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবছে দূরদর্শন।