Uyghur Cultural Genocide: গত তিন বছরে কয়েক হাজার মসজিদ ধ্বংস করেছে চিন, দাবি থিঙ্ক ট্যাঙ্কের
Id Kah Mosque in Kashgar | File Image | (Photo Credits: Wikimedia Commons)

ক্যানবেরা, ২৫ সেপ্টেম্বর: মাত্র তিন বছরে কয়েক হাজার মসজিদ ধ্বংস করেছে চিন। চিনের শিনজিয়াং প্রদেশে চলেছে এই ধ্বংসলীলা (mosques were destroyed by China)। এমনটাই দাবি করছে অস্ট্রেলিয়ার থিঙ্ক ট্যাঙ্ক (Australian think tank)। কিছু মসজিদ পুরোপুরি ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে আর কিছু মসজিদ আংশিক অর্থাৎ গম্বুজ এবং চূড়া ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। আরও পড়ুন:  Tax Imposed on School Textbooks? স্কুলের বই-য়ে অতিরিক্ত কর চাপাচ্ছে কেন্দ্র! আসল তথ্য দেখুন PIB ফ্যাক্ট চেকে

এএসপিআই। অস্ট্রেলিয়ার সরকার প্রতিষ্ঠিত এবং সেদেশের প্রতিরক্ষা বিভাগের অনুমোদন প্রাপ্ত থিঙ্ক ট্যাঙ্ক। স্যাটেলাইট ইমেজ, শিনজিয়াং ডিফেক্টরের টেস্টিমনিজ দেখে এবং বিদেশি পর্যটকদের থেকে তথ্য সংগ্রহ করে এই রিপোর্ট পেশ করেছে এই সংস্থা। কয়েক বছর ধরেই চিনের শিনজিয়াং প্রদেশে বসবাসকারী উইঘুর (Uighur) মুসলিমদের নির্মূল করার ছক কষছে শি জিনপিংয়ের প্রশাসন। কিছুদিন আগেই আন্তর্জাতিক সংবাদসংস্থা এমন একটি খবরের কিছুটা ইঙ্গিত দিয়েছিল। এবার সরাসরি প্রকাশিত হল সেই তথ্য।

চিনে সবমিলিয়ে ১৬ হাজার মসজিদ ধ্বংস করা হয়েছে। এরমধ্যে গত তিন বছরে ধ্বংস করা হয়েছে ৮,৫০০ মসজিদ। মসজিদ ছাড়াও শিনজিয়াংয়ের ইসলামিক ধর্মস্থান-সহ একাধিক মাজার, ইসলামিক তীর্থযাত্রার পথ ভাঙচুর চালিয়েছে চিন। সবমিলিয়ে এই মুহূর্তে চিনে মসজিদ রয়েছে মাত্র ১৫,৫০০ টি। ১৯৬০ সালে সাংস্কৃতিক বিপ্লবের জেরে চিনে যে জাতীয়বাদী ভাবাবেগের উত্থান ঘটে, তারপর থেকে এই প্রথম সেখানে মসজিদের সংখ্যা এত কমে গিয়েছে। মসজিদে ভাঙচুর হলেও কোনও গির্জা কিংবা বুদ্ধ মন্দিরের উপর আঘাতের একটাও চিহ্ন নেই।

তবে এসমস্ত কিছু অভিযোগই উড়িয়ে দিয়েছে চিন। ডিটেনশন শিবিরে মুসলিমদের বন্দি করার অভিযোগও উড়িয়ে দিয়েছে চিন। শিনজিয়াংয়ে এই মুহূর্তে ২৪ হাজার মসজিদ রয়েছে বলে দাবি করেন সেদেশের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন।