লন্ডনে ভারতীয় দূতাবাসের বাইরে প্রতিবাদের নামে ভাঙচুর পাকিস্তানের সমর্থকদের, কাশ্মীর নিয়ে বিক্ষোভে গিয়ে ভারতীয় দূতাবাসে আক্রমণ (দেখুন ভিডিও)
লন্ডনে ভারতীয় দূতাবাসে এভাবেই কার্যত হামলা চালাল পাকিস্তানের বিক্ষোভকারীরা। (Photo Credits: ANI)

লন্ডন, ৪ সেপ্টেম্বর: কাশ্মীর ইস্যুতে (Kashmir Issue) ভারতকে আন্তর্জাতিক মহলে চাপে ফেলতে ব্যর্থ পাকিস্তান (Pakistan) এবার ভাঙচুরের পথে। গতকাল, মঙ্গলবার লন্ডনে ভারতীয় দূতাবাসে  (Indian High Commission) কার্যত হামলা চালাল পাকিস্তানের বিক্ষোভকারীরা। লন্ডনে ভারতীয় দূতাবাসের বাইরে প্রায় হাজার দশেক পাকিস্তান বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ ও ব্রিটেনে কাজ করতে আসা পাকিস্তানীরা কাশ্মীর ইস্যুতে প্রতিবাদ জানাতে জড়ো হয়। নিরাপত্তার মাঝেও ইঁট, ঢিল-পাটকেল ছুঁড়ে ভারতীয় দূতাবাসের জানলা ভাঙে পাকিস্তানীরা। লন্ডনের মেয়র শাদিক খান পাকিস্তানের সমর্থকদের এই কীর্তিতে নিন্দা জানিয়ে টুইট করেছেন।

ভারতীয় দূতাবাস লক্ষ্য করে ইঁট-পাটকেলের পাশাপাশি ডিম, টমেটো, জুতো, ধোঁয়া বোম, বোতলও ছোঁড়ে। চলতি সপ্তাহে এবার নিয়ে মোট দু বার এমন ঘটনা ঘটল।    গত ১৫ অগাস্টেও লন্ডনে ভারতীয় দূতাবাসে একই ধরনের হামলা চালানোর চেষ্টা করেছিল পাকিস্তানের সমর্থকরা। আরও পড়ুন-বৌবাজারে বিপত্তির জেরে ফের স্থগিত ইস্ট- ওয়েস্ট মেট্রোর কাজ ফলে প্রকল্প শেষ হতেও দেরি, জানাল মেট্রো

'কাশ্মীর স্বাধীনতা যাত্রা'-র নামে ব্রিটিশ কাশ্মীর গ্রুপের নাম দিয়ে চলছে এই প্রতিবাদ। ভারতীয়রা অবশ্য পাল্টা প্রতিবাদের পথে গিয়ে আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নিত করার পথে হাঁটছেন না। কাশ্মীর স্বাধীনতা যাত্রা-য় পার্লামেন্ট স্কোয়ার থেকে ডাউনিং স্ট্রিট হয়ে হাই কমিশন বিল্ডিং অবধি চলছে প্রতিবাদ কর্মসূচি। স্লোগান উঠেছে- 'আজাদি', 'আমরা স্বাধীনতা চাই'। বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড হাতে- কাশ্মীরে 'যুদ্ধ অপরাধ' বন্ধ করার ডাক দেওয়া হয়েছে। রাষ্ট্রসংঘকে কাস্মীর নিয়ে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়ার ডাকও দেওয়া হয়েছে।

মুখে স্লোগান,  প্ল্যাকার্ড হাতে পাকিস্তানের সমর্থকরা আন্দোলন তুঙ্গে তোলার চেষ্টা করছেন। কিন্তু এতে আদৌ কোনও ফল হবে কি না তা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। কারণ চিন ছাড়া আর কেউই পাকিস্তানের পাশে নেই। গোটা বিশ্বই প্রায় জানিয়ে দিয়েছে কাশ্মীর হল ভারতের আভ্যন্তরিন বিষয়।

জম্মু-কাশ্মীরে সংবিধানের ৩৭০ ধারা রদ করার সিদ্ধান্তকে কোনও দেশের আভ্যন্তরিন বিষয় নিয়ে নাক গলাতে চায় না আমেরিকা, রাশিয়া। তবু এরপরেও পাকিস্তান এসব শুনতে নারাজ। যে করেই হোক কাশ্মীর ইস্যুকে জিইয়ে রেখে ভারত বিরোধী কণ্ঠ তীব্র করতে চায় ইসলামাবাদ। তাই একেবার ভারতীয় দূতাবাসে হামলার পরিকল্পনা।