China Bans Japanese Seafood: পরিশোধিত তেজস্ক্রিয় জল সমুদ্রে ফেলায় জাপানের সামুদ্রিক খাদ্য নিষিদ্ধ করল চিন
People Protesting Against Japan's Radioactive Water Discharging in Sea (Photo Credit: CTV News/ X)

ফুকুশিমা পারমাণবিক কেন্দ্র থেকে পরিশোধিত তেজস্ক্রিয় বর্জ্যযুক্ত জল সমুদ্রে ছেড়ে দেওয়ার টোকিওর সিদ্ধান্তের প্রতিক্রিয়ায় চীন জাপানের সব ধরনের সামুদ্রিক খাবার নিষিদ্ধ করার ঘোষণা করেছে। সমুদ্রে এই জল ফেলার সিদ্ধান্তটি প্রথম থেকেই বিতর্কিত যা অনেক ভোক্তার পাশাপাশি কিছু আঞ্চলিক দেশের কাছ থেকে তীব্র আপত্তির সম্মুখীন হয়েছে আর এই ক্ষেত্রে বেজিং সেই সমালোচনার নেতৃত্ব দিয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে এই জল সমুদ্রে ফেলা শুরু হলে চীনের পক্ষ থেকে এই অভিযানকে 'স্বার্থপর ও দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজ' বলে অভিহিত করা হয়। সেই সময় চীনের শুল্ক বিভাগ ঘোষণা করে যে তারা জাপান থেকে আগত সমস্ত জলজ পণ্য আমদানি বন্ধ করবে, যার অর্থ এই নিষেধাজ্ঞা সমুদ্রের লবণ এবং সামুদ্রিক আগাছার মতো সামুদ্রিক খাদ্য ছাড়াও অন্যান্য সামুদ্রিক পণ্যকে সীমিত করতে পারে। শুল্ক বিভাগ তাদের বিবৃতিতে বলেছে, জাপানের ফুকুশিমা পারমাণবিক দূষিত জল নিষ্কাশনের ফলে খাদ্য নিরাপত্তায় তেজস্ক্রিয় দূষণের ঝুঁকি ঠেকানো এবং চীনা ভোক্তাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। Nepal: রপ্তানিতে ৪০ শতাংশ শুল্ক ভারতের, নেপালের বাজারে ঘাটতি পেঁয়াজের

জাপানে এই বিতর্কে যুক্তি দিয়েছে যে পরিশোধিত তেজস্ক্রিয় বর্জ্যযুক্ত জল নিঃসরণ নিরাপদ এবং অকেজো পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি খালি করা অবিলম্বে প্রয়োজন। রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বিদ্যুৎ সংস্থা টোকিও ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানি জানায়, স্থানীয় সময় দুপুর ১টা থেকে এই কাজ শুরু হয়। CNN-এর খবর অনুসারে, সংস্থাটি জানিয়েছে তারা কেবল ২০০ বা ২১০ ঘনমিটার পরিশোধিত বর্জ্য জল ছাড়ার আশা করছে। শুক্রবার থেকে, এটি ২৪ ঘন্টার মধ্যে ৪৫৬ ঘন মিটার পরিশোধিত বর্জ্য জল এবং ১৭ দিনের মধ্যে মোট ৭৮০০ ঘন মিটার নিষ্কাশন করার পরিকল্পনা করেছে। কোনো অস্বাভাবিকতা ধরা পড়লে, অবিলম্বে অভিযান স্থগিত করা হবে এবং পরিশোধিত বর্জ্যের অপসারণ সরঞ্জাম বা পাতলাকরণের মাত্রায় কোনও তদন্ত করা হবে।

বিদ্যুৎ সংস্থা পরে বন্দরে একটি নৌকা পাঠায় যা নমুনা সংগ্রহ করে, পরে তা পর্যবেক্ষণ করা হয় এবং নিশ্চিত করা হয় যে বর্জ্যযুক্ত জল আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা মান পূরণ করছে। ২০১১ সালে জাপানের ভয়াবহ ভূমিকম্প ও সুনামিতে ফুকুশিমা পারমাণবিক কেন্দ্রের ভেতরের জল অত্যন্ত তেজস্ক্রিয় পদার্থে দূষিত হয়ে পড়ে। তখন থেকে, চুল্লিগুলিতে জ্বালানীর ধ্বংসাবশেষ ঠান্ডা করার জন্য নতুন জল পাম্প করা হয়েছে, অন্যদিকে ভূগর্ভস্থ এবং বৃষ্টির জল লিক হয়ে আরও তেজস্ক্রিয় বর্জ্য জল তৈরি করেছে। জল ছাড়ার পরিকল্পনাটি বছরের পর বছর ধরে কাজ করে আসছে। কর্তৃপক্ষ ২০১৯ সালে সতর্ক করে দিয়েছে যে উপাদানটি সংরক্ষণের জন্য স্থানটি শেষ হয়ে যাচ্ছে এবং তাদের কাছে অন্য কোন বিকল্প নেই তারপর এই সিদ্ধান্তে আসে তারা।