Shatrughan Sinha: গোষ্ঠীকোন্দল চুপ করাতেই 'খামোশ' শত্রুঘ্ন সিনহা-কেই বাবুলের আসনে প্রার্থী! মুনমুন সেনের পর ফের আসানসোলে তারকা তাস দিদির
Shatrughan Sinha. (Photo Credits: Twitter)

কলকাতা, ১৩ মার্চ: বাবুল সুপ্রিয়-র আসানসোলে এবার 'বিহারী বাবু'-কে প্রার্থী করল তৃণমূল। বিজেপি, কংগ্রেস ঘুরে তৃণমূলে আসা শত্রুঘ্ন সিনহাকে (Shatrughan Sinha)-ই এবার আসানসোলে দাঁড় করালেন মমতা ব্যানার্জি। গত দুটো লোকসভা ভোটে অনেক চেষ্টার পরেও আসানসোলে জিততে ব্যর্থ হওয়া দিদির দলের তাস এবার বলিউড তারকা তথা প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শত্রুঘ্ন। ২০১৯ লোকসভা কেন্দ্র বাঁকড়ার সাংসদ মুনমুন সেনকে আসানসোলে বাবুলের বিরুদ্ধে দাঁড় করিয়ে জিততে চেয়েছিলেন মমতা। কিন্তু দলীয় কোন্দল, বাবুলের জনপ্রিয়তা আর মোদী ঝড়ে উড়ে গিয়েছিলেন আসানসোলে দিদির তারকা তাস মুনমুন সেন। মুনমুনকে প্রায় ১ লক্ষ ৯৮ হাজার ভোটে হারিয়েছিলেন বাবুল।

এবার সেই বাবুল এখন ফুল বদলে তৃণমূলে। তাঁর ছেড়ে আসা আসনে আবারও তারকা তাস খেললেন দিদি। তবে রাজ্য এত নেতা থাকতে কেন 'বহিরাগত' শত্রুঘ্নকে আসানসোলে প্রার্থী করলেন দিদি, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন বিরোধীরা। ক দিন আগেই আসানসোল পুরনিগমের ভোটে বড় জয় পেয়েছিল তৃণমূল। তবে তারপরেও গোষ্ঠী কোন্দলের আশঙ্কা থেকেই যায়। আসানসোলই রাজ্যের হাতেগোণা কিছু কেন্দ্র (বহরমপুর, দার্জিলিং) যেখানে তৃণমূল কখনও লোকসভায় জিততে পারেনি। আরও পড়ুন: Babul Supriyo: মন্ত্রিসভায় আনতেই বিধানসভা ভোটে প্রার্থী! ফুলের সঙ্গে গঞ্জও বদল বাবুলের

আসানসোলে অবাঙালি ভোট, তারকা প্রীতি আর দলীয় গোষ্ঠী কোন্দলের কথা মাথায় রেখে শত্রুঘ্ন সিনহাকেই দাঁড় করালেন তৃণমূল সুপ্রিমো। ২০১৪ লোকসভায় আসানসোলে দোলা সেনকে দাঁড় করিয়ে তৃণমূল হেরেছিল মূলত গোষ্ঠীকোন্দলের জন্য। এবার তাই খামোশ অভিনেতাকেই নামনো হল গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চুপ করাতে। কংগ্রেস ছেড়ে গত বছর তৃণমূলে আসা শত্রুঘ্ন একটা সময় বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ছিলেন। তারপর নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহ-র সঙ্গে দূরত্ব বাড়িয়ে ২০১৯ সালে কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন। ২০১৯ লোকসভা ভোটে কংগ্রেসের টিকিটে বিহারের পটনা সাহিব কেন্দ্র থেকে দাঁড়িয়ে হেরেছিলেন শত্রুঘ্ন। অনেক প্রচারের পরেও বিজেপি-র তারকা নেতা রবিশঙ্কর প্রসাদের কাছে শত্রুঘ্ন হারেন প্রায় ২ লক্ষ ৮৪ হাজার ভোটের ব্যবধানে ।

তবে এর আগে সেই কেন্দ্র থেকেই বিজেপি-র টিকিটে দাঁড়িয়ে বড় ব্যবধানে জিততেন তিনি। অটল বিহারী বাজপেয়ী জমানায় স্বাস্থ্য-পরিবারকল্যাণ ও জাহাজ মন্ত্রী ছিলেন শত্রুঘ্ন। রাজেশ খান্নার বিরুদ্ধে ভোট দাঁড়িয়ে রাজনৈতিক জীবন শুরু হয়েছিল শত্রুঘ্ন-র। তবে সেই ভোটে তিনি রাজেশ খান্নার কাছে হেরে গিয়েছিলেন। ২০০৯ সালে পটনা সাহিব থেকে বিজেপি-র টিকিটে দাঁড়িয়ে শত্রুঘ্ন হারিয়েছিলেন আর এক বলিউড সেলেব শেখর সুমনকে। এরপর ২০১৪ লোকসভাতেও সেখান থেকে জেতেন। কিন্তু এরপর মোদী-শাহর সঙ্গে দূরত্ব বাড়ায় বিজেপি ছেড়ে কংগ্রেসে যোগ দেন তিনি। তবে কংগ্রেসেও বেশি দিন টিকতে পারেননি। খামোমশ অভিনেতা গত বছর ২১ জুলাই শহীদ দিবসের মঞ্চে তৃণমূলে যোগ দেন।