Babul Supriyo: 'চাল চুরির মত টিকা চুরি' হওয়ার 'ভয়ে' তৃণমূলকে আগাম সতর্কবার্তা বাবুল সুপ্রিয়র
বাবুল সুপ্রিয় (Photo Credits: PTI)

কলকাতা, ১২ জানুয়ারি: কোভিড (Covid-19) যুদ্ধে সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে যারা লড়াই করছেন, এমন ৩ কোটি স্বাস্থ্যকর্মীকে বিনামূল্যে প্রতিষেধক দেবে কেন্দ্র। এছাড়াও আরও ২৭ কোটি মানুষকে ফ্রি-তে দেওয়া হবে করোনা টিকা। এবার সেই করোনা টিকাও এল রাজনৈতিক আঙিনায়। করোনা টিকা নিয়ে যাতে রাজ্যে কোনও বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি না হয়। সেই নিয়ে আগাম সতর্ক করলেন কেন্দ্রীয় নেতা বাবুল সুপ্রিয় (Babul Supriyo)। ভ্যাক্সিন নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নোত্তরে সেই বিষয়টি নিয়ে মমতা ব্যানার্জিকে (Mamata Banerjee) সরাসরি আক্রমণ করেন বাবুল সুপ্রিয়। তিনি আরও বলেন, "উনি বলেন ওনার কাছে টাকা নেই। তাহলে কীভাবে টিকা যোগাড় হচ্ছে। এটা নেহাতই ভোটের আগে মানুষের মন জয় করার উপায়। টিকা বিনামূল্যে আসবে রাজ্যে। শুধু আম্ফানের সময় চাল চুরির মত যেন টিকা চুরি না হয়। সেটি নজরে রাখুক তৃণমূল। সেটি যেন দলের লোকেদের উনি সতর্ক করে দেন।" আরও পড়ুন: Covishield Reached in Kolkata: দমদম বিমানবন্দর থেকে বাগবাজারে কেন্দ্রীয় মেডিক্যাল স্টোরে পৌঁছল করোনা ভ্যাকসিন

এদিকে কেন্দ্রের নির্দেশের পরই রাজ্যের মানুষের কাছে বিনা পয়সায় করোনা প্রতিষেধক পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, দুই মেদিনীপুর, দুই ২৪ পরগনা, বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, পশ্চিম বর্ধমানের মতো জেলাগুলির পুলিশ এবং স্বাস্থ্য-কর্তাদের কাছে চিঠি লেখেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। কোভিশিল্ড ভ্যাক্সিন এবং ভারত বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাক্সিন, দেশে উৎপাদিত করোনা প্রতিষেধক পুরোটাই রয়েছে কেন্দ্রের অধীনে। টিকাকরণ নিয়ে বিভ্রান্তি ও অব্যবস্থার আশঙ্কায় জেরে প্রথম সারির স্বাস্থ্যকর্মীর সংখ্যার নিরিখে কেন্দ্রই বিনামূল্যে রাজ্যগুলিকে সেই সংখ্যক ভ্যাক্সিন পাঠাবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সেখানে কীভাবে নিখরচায় ভ্যাক্সিন পৌঁছে দেওয়া হবে জনসাধারণের কাছে? সেই বিষয়ে বিশদ উল্লেখ নেই এবং ভ্যাক্সিন বাবদ কেন্দ্র না রাজ্য, কে খরচ বইবে; সেটিরও উল্লেখ নেই। এই বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রের তোপের মুখে পড়েছে রাজ্য সরকার।

আজ কলকাতায় এসে পৌঁছয় এইমুহূর্তের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মহৌষধ করোনা ভ্যাকসিন (Covid Vaccine)। দমদম বিমানবন্দর থেকে বাগবাজার স্টোরে পৌঁছল ভ্যাকসিন। আজ থেকে জেলায় জেলায় বণ্টন শুরু হবে। পুনের সিরাম ইন্সটিটিউট থেকে বিশেষ বিমানে কলকাতায় এল প্রায় সাত লক্ষ ভ্যাকসিন। ফ্রিজারে নির্দিষ্ট তাপমাত্রা মেনে দু'টি ভ্যানের মাধ্যমে নিয়ে আসা হয় করোনার ভ্যাকসিন। ওয়াক ইন কুলারে ভ্যাকসিন নিয়ে আসা হয়। ভ্যাকসিনের সুরক্ষায় মোতায়েন রয়েছে পুলিশ। নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে নিয়ে আসা হয় ভ্যাকসিন। আগামী ১৬ জানুয়ারি শুরু হবে টিকাকরণ। রাজ্যের প্রতিটি জেলাতেই পৌঁছেছে ভ্যাকসিন।