Nijeder Motey, Nijeder Gaan Song: অপশাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের হাতিয়ার 'নিজেদের মতে, নিজেদের গান', বহুত্ববাদ রক্ষায় গান বাঁধলেন টলিউডের শিল্পীরা
নিজেদের মতে, নিজেদের গান (Picture Credits: Youtube Videograb)

একুশের নির্বাচন কোথাও যেন বাংলাকে ফের একবার প্রমাণ করার সুযোগ করে দিচ্ছে 'হোয়াট বেঙ্গল থিংস টুডে, ইন্ডিয়া থিংস টুমোরো'। বিভেদের রাজনীতি, ধর্ম নিয়ে রাজনীতি, পিতৃতন্ত্র, মিথ্যে প্রতিশ্রুতি, মুখ থুবড়ে পড়া অর্থনীতি, মূল্যবৃদ্ধি, বেকারত্বে জেরবার গোটা ভারত। এর বিরুদ্ধে গর্জে ওঠার ডাক দিতে মিটিং, মিছিল, স্লোগান উঠেছে বহু। দলবদলের বর্তমান রাজনীতির পরিপ্রেক্ষিতে যাঁরা মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে রয়েছেন তাঁরাই বেঁধেছেন এক ঐক্যের গান। গানের নাম 'নিজেদের মতে, নিজেদের গান'। মিথ্যা আর ঘৃণার চাষ এ ভারতের বুকে হয় না, এই দেশ ভালোবাসার দেশ। এই বার্তা দিয়েই গান বাঁধলেন টলিউড এবং থিয়েটার জগতের একঝাঁক তারকা। মূলতঃ দেশে চলা অপশাসনকে প্রতিরোধ করতেই হাতিয়ার করা হয়েছে এই গানকে।

গানটিতে রয়েছেন বিশিষ্ট থিয়েটার শিল্পী রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত, অভিনেতা সব্যসাচী চক্রবর্তী, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, অনির্বাণ ভট্টাচার্য, অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়, কৌশিক সেন, ঋদ্ধি সেন, ঋতব্রত মুখার্জি, সাহানা বাজপেয়ী, রেশমি সেন, চন্দন সেন, সুমন মুখ্যোপাধ্যায় প্রমুখ। শিক্ষার ওপর প্রহার, বিরোধিতা করলে জুটেছে 'পাকিস্তানি' তকমা, করা হয়েছে মিথ্যে খবরের প্রচার, দেশপ্রেমের নামে ধর্মের রাজনীতি, সিএএ, এনআরসিকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে 'এ দেশেতেই থাকার' কড়া হুঁশিয়ারিই এই গানের বার্তা। এ যেন 'সর্বনেশে' আইনকানুন, এই আইন ভাঙতেই গর্জে উঠেছেন শিল্পীরা। পাশাপাশি সৌহার্দ্যের, শান্তির ও বহুত্ববাদের বাংলা গড়ার বার্তা দিয়েছেন। বাঙালি হিসেবে, ভারতীয় হিসেবে 'ফ্যাসিবাদ'-র বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে প্রস্তুত বাঙালিরা।

আরও পড়ুন, ‘পশ্চিমবঙ্গে ২০০-র বেশি আসনে জিতবে বিজেপি’, রাজনাথ সিং

নিৰ্বাচনের আগে এই গানটি যেন আন্দোলনের গণসঙ্গীত হয়ে দাঁড়িয়েছে। গানটি মুক্তি পাওয়ার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। ভেঙে পড়া গণতন্ত্রকে তুলে ধরতে এ যেন নতুন সকালের আগমন বার্তা।