King Charles France Visit: ফ্রান্সে চলমান বিক্ষোভের মধ্যে রাজা তৃতীয় চার্লসের সফর স্থগিত
King Charles III (Photo Credit: Reuters UK/ Twitter)

লন্ডন, ২৫ মার্চ: অবসরের বয়স ৬২ থেকে ৬৪ করার সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ফ্রান্স জুড়ে চলমান বিক্ষোভের মধ্যে, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর পরামর্শে ইংল্যান্ডের রাজা তৃতীয় চার্লসের আসন্ন তিন দিনের প্যারিস সফর স্থগিত করা হয়েছে। শুক্রবার বাকিংহাম প্যালেসের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ফ্রান্সে 'পরিস্থিতি'র কারণেই রাজা ও রানির সফর স্থগিত করা হয়েছে। রবিবার থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল প্যারিস ও বোর্দোর (Bordeaux) সফর। গত জানুয়ারিতে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর বৃহস্পতিবার এই দুই শহরে সবচেয়ে ভয়াবহ সহিংসতার ঘটনা ঘটে।

সফর স্থগিত রাখার পরামর্শ দিতে গিয়ে ম্যাক্রোঁ বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে শ্রমিক সংগঠনগুলো যে মুহূর্তে ২৮ মার্চ দশম জাতীয় কর্মদিবস ঘোষণা করেছে, সেই মুহূর্ত থেকে তিনি মনে করেন, ব্রিটিশ রয়্যালসের পক্ষে ফ্রান্স সফর করা অনুচিত হবে। ম্যাক্রোঁ আরও বলেন, তাঁর দেশ গ্রীষ্মের শুরুতে এই সফর করার প্রস্তাব দিয়েছে, যখন পরিস্থিতি আবার শান্ত হবে। সব পক্ষের সম্মতিতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে ব্রিটেন সরকার। রাজা চার্লসের এই সফরটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সফর হিসাবে বিবেচিত হয়েছিল কারণ তিনি রাজা হওয়ার পর এটি প্রথম রাষ্ট্রীয় সফর এবং পাশাপাশি ব্রিটেনের নিকটতম এবং প্রাচীনতম মিত্রদের মধ্যে একটি।

পরিকল্পনায় ছিল, রাজা ও ক্যামিলা প্যারিসের কেন্দ্রস্থলে চ্যাম্পস-এলিসিস পর্বতমালায় ভ্রমণ করবেন এবং প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁর সঙ্গে ভার্সাইলে এক ভোজসভায় মিলিত হবেন। প্যারিসের অন্যতম আকর্ষণ মিউসি ডি'অর্সে (Musee d'Orsay) ক্যামিলা একটি শিল্প প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন বলে আশা করা হয়েছিল। তখন তাদের বোর্দোর দিকে যাওয়ার কথা ছিল। ২৯ মার্চ ফ্রান্স থেকে জার্মানি যাওয়ার কথা ছিল রাজা ও ক্যামিলার। এর পরিবর্তে চার্লসের প্রথম রাষ্ট্রীয় সফর শুরু হবে বার্লিনে।

বিবিসির খবরে বলা হয়, বৃহস্পতিবারের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের ফাঁকে ফ্রান্সের বেশ কয়েকটি শহরে হিংসা দেখা গেছে, যা ১০ লাখেরও বেশি মানুষকে আকৃষ্ট করেছে। বোর্দো শহরের টাউন হলের প্রবেশ পথ যখন জ্বলে ওঠে, প্যারিসে তখন কাঁদানে গ্যাস ছোড়া হয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড দারম্যানিনের (Gerald Darmanin) মতে, প্যারিসে ৯০৩টি স্থানে আগুন জ্বলেছে। ফ্রান্স জুড়ে শত শত পুলিশ অফিসার আহত হয়েছেন।