Kolkata: বিধানসভায় শাসক- বিরোধী দলের হাতাহাতি সামাল দিতে ওয়েলে এলেন মমতা ব্যানার্জী
বিধানসভা (Photo Credits: Facebook)

কলকাতা, ৬ সেপ্টেম্বর: Mamata Banerjee intervened to stop chaos in Assembly: আজ শুক্রবার বিধানসভায় (Assembly) চলছিল অধিবেশন। তারপর বেনজির গন্ডগোলের সাক্ষী হল গোটা বিধানসভা। শাসক ও বিরোধী দলের বিধানসভার অধিবেশন চলাকালীন রীতিমতো হাতাহাতির পর্যায় পৌঁছে যায়। খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) ওয়েলে নেমে আসেন। পরিস্থিতি সামাল দিতে হয় তাঁকেই। এরপর শান্ত হন বিধায়করা।

ঘটনাটির সূত্রপাত এ দিনের প্রশ্নোত্তর পর্বে। মুর্শিদাবাদের কংগ্রেস বিধায়ক প্রতিমা রজক পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীকে তাঁর দফতরে চাকরি দেওয়ার প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন করেন। তিনি জিজ্ঞেস করেন, 'বিভিন্ন জায়গা থেকে অভিযোগ আসছে পরিবহন দফতরে ৩- ৪ লক্ষ টাকা নিয়ে চাকরি দেওয়া হচ্ছে। এটা কি সত্যি?' এই প্রশ্নে ক্ষুব্ধ হন শুভেন্দু অধিকারী। নিজের জায়গা থেকে উঠে এসে বলেন 'এটা যদি হয়ে থাকে তাহলে প্রমান করুন। যদি প্রমান করতে না পারেন তাহলে ক্ষমা চাইতে হবে'। আরও পড়ুন, বৌ বাজারে বাড়ি ধসে যাওয়া ক্ষতিগ্রস্তদের ৫ লাখ টাকা দেওয়ার ঘোষণা মেট্রোর

কংগ্রেস (Congress) বিধায়কদের অভিযোগ, এ কথা বলেই থেমে থাকেননি তিনি। গোটা মুর্শিদাবাদ ফাঁকা হয়ে গিয়েছে বলে মন্তব্য করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। প্রতিমাকে উদ্দেশ্য করে তিনি মন্তব্য করেন,‘পরের নির্বাচনে আপনি হারবেন।' মন্ত্রীর কথা শুনে প্রচণ্ড উত্তেজিত হয়ে ওঠেন ভরতপুরের কংগ্রেস বিধায়ক কমলেশ চট্টোপাধ্যায়। তিনি নিজের জায়গা ছেড়ে বেরিয়ে আসতে যান। তাঁকে বাধা দিয়ে থামাতে গিয়ে সামান্য আঘাত পান তাঁর দলেরই বিধায়ক হুমায়ুন রেজা।

বাম বিধায়করাও এতে যোগ দেন। মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim) ও অরূপ বিশ্বাস (Arup Biswas) ঘটনাটি সামাল দিতে ব্যর্থ হন। এরপর মুখ্যমন্ত্রী নিজেই ওয়েলে নেমে আসেন। বিরোধীদের নিজের জায়গায় ফেরত যেতে অনুরোধ জানান। নিজের দলের লোকদের বকাবকি করে বসিয়ে দেন। শেষপর্যন্ত পরিস্থিতি ঠিক হয় তাঁর হস্তক্ষেপে। বিধানসভার স্পিকার ঘটনাটির তীব্র নিন্দা করেন।