মালদার শোভানগর গ্রাম পঞ্চায়েতে গণনা কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা।গণনা কেন্দ্র থেকে ব্যালট বাক্স নিয়ে দৌড় প্রার্থীর স্বামীর।ঘটনার জেরে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। পুলিশ ধাওয়া করে তাকে ধরে ফেলে। উদ্ধার করা হয় ব্যলট বাক্স। 

ভোটের গণনা চলাকালীন ব্যারাকপুরে উত্তেজনা, ভোটের গণনা কেন্দ্র থেকে জোর করে এক ব্য়ক্তিকে টেনে বের করে দিলেন নিরাপত্তারক্ষীরা। বরুণ সুন্দর নামের ওই ব্যক্তিকে টেনে হিচড়ে গণনা কেন্দ্র থেকে বের করে নিয়ে যায়। যদিও ব্যক্তির কি বক্তব্য তা স্পষ্ট ভাবে শোনা যায়নি

গণনাকেন্দ্রে ঢুকতে বাধা দেয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে সোনারপুর মহাবিদ্যালয়ের সামনে। বিজেপির এজেন্টকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে।ঘটনার পরই সেখানে উপস্থিত হন বিজেপি নেত্রী শর্বরী মুখোপাধ্য়ায়।পাল্টা পৌছে যান তৃণমূলের লাভলি মৈত্র।দুই দলের তরফেই দেওয়া হতে থাকে স্লোগান।পর পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। 

এর পাশাপাশি মুর্শিদাবাদের সামসেরগঞ্জেও তৃণমূল ও কংগ্রেসের মধ্যে মারামারির অভিযোগও উঠে আসছে।হরিহরপাড়া থানা এলাকাতে তৃণমূল প্রার্থী ও তার স্বামীকে মারধরের অভিযোগ ওঠে সিপিএমের কর্মীদের বিরুদ্ধে।

পঞ্চায়েত ভোটের গণনা শুরু হতেই বীরভূমের নানুরে ভোটকেন্দ্রে যেতে বাধা তৃণমূল কর্মীদের।তাদের বাধা দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ। যদিও তৃণমূলের পক্ষ থেকে এই অভিযোগকে অস্বীকার করা হয়েছে।

 

গণনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়াল বালিতে। বালির জগাছা ব্লকের গণনা কেন্দ্রে বিজেপি এজেন্টদেরকে গণনা কেন্দ্রে ঢুকতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ। বিজেপির এক কর্মীর মাথা ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ। এছাড়া  এক বিজেপি কর্মীর পোশাক ছিঁড়ে নেওয়ার অভিযোগ  ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যে হিংসার আবহ তা প্রত্যক্ষ করেছে রাজ্য়বাসী। কোথাও ব্যালট বাক্স লুঠ তো কোথা বুথ দখলের মতন ঘটনা ঘটেছে। এই নির্বাচনের এখনও পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছে ৪২ জন। হিংসা রুখতে নির্বাচন কমিশনকে বারবার জানানোর সত্বেও মেলেনি কোন সুরাহা। কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকলেও তা আদতে কতটা কাজে লেগেছে তা দিনভর দেখেছে রাজ্যবাসী।

এবার গণনার দিনেও বিশৃঙ্খলার খবর শিরোনামে এসেছে। রাজ্যের কোথাও গণনা কর্মীদের বুথে ঢুকতে বাধা তো কাউকে মারধর করার খবর উঠে আসছে বিভিন্ন জায়গা থেকে।

ডায়মন্ড হারবারে গণনাকেন্দ্রে বোমাবাজির মতন ঘটনা ঘটেছে। ছবিতে দেখা গেছে সেই দৃশ্য।

রাজ্য নির্বাচন কমিশনে জানানোর পরও কোন সুরাহা হয়নি।বালিগঞ্জ, উত্তর ২৪ পরগগা, মুর্শিদাবাদ সহ বেশ কিছু এলাকায় গণনার দিনেও বিক্ষিপ্ত ঘটনা ঘটে।

হাওড়ার বালিতে জগাছা কেন্দ্রে বিজেপি কর্মীদের ঢুকতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ। বিজেপি মহিলা কর্মীর পোশাক ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ শাসক দলের বিরুদ্ধে।