Mamata Banerjee Over Subrata Mukherjee: প্রোগ্রাম দে, আমিও গোয়ায় যাব;' মমতাকে বলেছিলেন সুব্রত
Mamata Banerjee and Subrata Mukherjee (Photo Credits: Facebook)

কলকাতা, ৫ নভেম্বর:  ‘‘আমি একদম ঠিক আছি। প্রোগ্রাম দে। আমিও গোয়ায় যাব। আর যেখানে যেখানে যেতে হবে বলিস। শুয়ে থাকতে ভাল লাগছে না।’’ গোয়া থেকে ফিরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) যখন এসএসকেএম হাসপাতালে সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে (Subrata Mukherjee)  দেখতে গিয়েছিলেন, তখন তাঁকে দেখে একথাই বলেছিলেন প্রয়াত মন্ত্রী। কালীপুজোর দিন সকাল থেকেই কোননও কিছু স্বস্তি পাচ্ছিলেন না মমতা। মনে হচ্ছে কোথায় যেন তাল কাটছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই খবর পেলেন সুব্রতদার শরীর ভাল নেই। এরপর কিছুক্ষণ অন্তর তাঁর শারিরীক অবস্থার অবনতির খবর আসতে শুরু করল।  মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে কালীপুজো শুরু হয়েছে। পুজোয় মন বসাতে পারছেন না  তিনি। আচমকাই এল দুঃসংবাদ। আরও পড়ুন-PM Modi Arrives In Kedarnath: আদি শঙ্করাচার্যের সমাধি ও মূর্তি উন্মোচনে কেদারনাথে প্রধানমন্ত্রী (দেখুন ছবি)

কোনওরকমে হোম সম্পন্ন করে ছুটলেন হাসপাতালে। সেখানে প্রয়াত মন্ত্রীর স্ত্রী ছন্দাবাণী বৌদিকে বুঝিয়ে বাড়ি পাঠালেন। সুব্রতদা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে মন্ত্রী ছিলেন না। আর মমতাও এই বর্ষীয়ান রাজনীতিকের কাছে মুখ্যমন্ত্রী নন। একেবারে দাদা বোনের নিখাদ সম্পর্ক। রাজনীতিতে সুব্রতদার হাত ধরেই বোন মমতার শেখা শুরু। রাজীব গান্ধী যখন যাদবপুরে লড়াকু মেয়ে প্রার্থী করতে চাইছেন। তখন সুব্রত মুখোপাধ্যায় নিজে মমতার নাম জানিয়েছিলেন ইন্দিরাপুত্রকে। প্রিয় নেতা অগ্রজকে হারিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজ শোকস্তব্ধ। তাই মনের মাঝে ভিড় করে আসছে অনেক কথা। কংগ্রেসে শুরু দিন থেকে মমতর উপরে ভরসা রেকেছিলেন তিনি। বাকি নেতৃত্ব যখন সংশয়ের দোলাচালে, তখন তিনি বলেছিলেন, "পারলে ওই পারবে।" রাজনীতির অলিন্দে সবসময় অনুজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে থেকেছেন সুব্রতবাবু। সুপরামর্শ দিয়েছেন, সৎ উপদেশ দিয়েছেন। কংগ্রেসে প্রিয়রঞ্জন দাস মুন্সি, সৌমেন মিত্র ও সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে ত্রয়ী বলা হত। এই জনপ্রিয় ত্রয়ীর দুজনে আগেই চলে গেছেন। শেষজনও অনন্তলোকে যাত্রা করলেন।

সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে বঙ্গীয় রাজনীতির এক বর্ণময় অধ্যায়ের সমাপ্তি হল। অসুস্থ অবস্থাতেও হাসপাতালে বসে জরুরি পাইলে সই করেছেন। গোয়ায় যাওয়ার জন্য একেবারে ব্যস্ত ছিলেন। আশা ছিল ফিরবেন। নিজেও জানতেন সেকতা। কিন্তু সর্বশক্তিমানের ইচ্ছে খানিকটা আলাদাই ছিল। তাই কালীপুজোর রাতে রাজপাট মন্ত্রীত্ব একডালিয়ার পুজোর ভার সব ফেলে অনন্তলোকে পাড়ি দিলেন রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী।