Kolkata: বর্ষবরণের রাতে দত্তপুকুরে যুবতিকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ৩
প্রতীকী ছবি। (Photo: Pixabay)

কলকাতা, ২ জানুয়ারি: বর্ষবরণের রাতে বছর তিরিশের এক যুবতিকে গণধর্ষণের (Gang rape) অভিযোগ। মঙ্গলবার রাত ২টো নাগাদ ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার (North 24 pargana) দত্তপুকুর (Duttapukur) থানা এলাকায়। পুলিশ তিন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে। ধৃতদের নাম রতন দাস, সৌগত সরকার ও মৃণাল বিশ্বাস। এক অভিযুক্ত পলাতক। তাদের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের মামলা রুজু করা হয়েছে। অভিযোগ, চার মত্ত যুবক দরজা ভেঙে সেই ঘরে ঢুকে যুবতিকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ। দুষ্কৃতীদের বাধা দিতে গিয়ে প্রহৃত হন বাড়ির মালিক। আনন্দবাজারের খবর অনুযায়ী, বারাসত পুলিশ-জেলার এএসপি (ASP) বিশ্বচাঁদ ঠাকুর বলেন, ‘‘আরও কেউ যুক্ত ছিল কি না, পুলিশ খতিয়ে দেখছে।’’ বুধবার বারাসত জেলা হাসপাতালে যুবতির মেডিক্যাল চেকআপ হয়েছে। রতন ২০১১ সালে দত্তপুকুরে কলেজ ছাত্র সৌরভ চৌধুরী খুনের ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছিল। পরে প্রমাণের অভাবে ছাড়া পায়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, যুবতির স্বামী ওইদিন রাতে কর্মসূত্রে বাইরে ছিলেন। মঙ্গলবার বর্ষবরণের রাতে এলাকায় একটি পিকনিক চলছিল। সাউন্ডবক্সে গান বাজিয়ে মত্ত অবস্থায় নাচানাচি করছিল কয়েক জন যুবক। রাত ২টো নাগাদ চার যুবক ওই যুবতির ঘরে চড়াও হয়ে দরজা ভাঙার চেষ্টা করে। শব্দ শুনে বেরিয়ে আসেন বাড়ির মালিক। তিনিও বাড়িতে একাই থাকেন। বুধবার তিনি বলেন, ‘‘তারস্বরে মাইক বাজছিল। তার মধ্যেই দরজা ভাঙার শব্দ শুনে বাইরে আসি। সৌগত বলে এক যুবককে দেখেছিলাম। ওরা আমাকে গালিগালাজ, ধাক্কাধাক্কি শুরু করে। এক জন ঘুষি মেরে আমাকে নালায় ফেলে দেয়। এর মধ্যেই ওরা যুবতির ঘরে ঢুকে পড়ে।’’ এর কিছুক্ষণ পরে ওই প্রৌঢ়ই পাড়া-পড়শিদের ঘুম থেকে তুলে ঘটনার কথা বলেন। তাঁরা এসে দেখেন, যুবতি অচৈতন্য অবস্থায় ঘরের মেঝেতে পড়ে রয়েছেন। দিন দশেক আগে ওই দম্পতি এলাকায় ঘর ভাড়া নিয়েছিলেন। পরে যুবতি পুলিশকে জানিয়েছেন, ওই যুবকরা প্রথমে জানলায় ধাক্কা দিয়ে দরজা খুলতে বলে। ভয়ে তিনি চিৎকার করতে থাকেন। তখন দরজা ভেঙে চার যুবক ঘরে ঢুকে তাঁকে শারীরিক নির্যাতন করে। পরে যুবকরা পালিয়ে যায়। আরও পড়ুন: Vatican City: আর্শীবাদ নিতে আসা মহিলাকে চড়, সমালোচনার মুখে ক্ষমা চাইলেন পোপ ফ্রান্সিস

পুলিশ জানিয়েছে, ২০১১ সালে এলাকার অসামাজিক কাজকর্মের প্রতিবাদ করে খুন হয়েছিলেন কলেজ ছাত্র সৌরভ চৌধুরী। এই ঘটনার মূল অভিযুক্ত শ্যামল কর্মকার ও তার দলবলকে এলাকা থেকে পালাতে সাহায্য করার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছিল রতন ওরফে তোতা। সৌরভ হত্যাকাণ্ডে শ্যামল-সহ অন্যেরা সাজা পেলেও প্রমাণের অভাবে ছাড়া পেয়ে যায় তোতা। এ দিন সৌরভের দাদা সন্দীপ বলেন ‘‘আমার ভাইয়ের মৃত্যুর পরে বেশ কিছু দিন এলাকায় অসামাজিক কাজ বন্ধ ছিল। কিন্তু ফের এরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে।’’