J P Nadda: পশ্চিমবঙ্গে ভ্যাকসিন নিয়ে 'ঘোটালা', মিমির নাম করে ভুয়ো টিকা নিয়ে রাজ্যকে খোঁচা নাড্ডার
ছবি ইনস্টাগ্রাম, ট্যুইটার

কলকাতা, ২৯ জুন: বিজেপির (BJP) কর্ম সমিতির বৈঠকে ভুয়ো টিকাকাণ্ড নিয়ে তোপ দাগলেন জে পি নাড্ডা। মঙ্গলবার বিজেপির কর্ম সমিতির বৈঠকে ভার্চুয়ালি হাজির হন জগৎ প্রকাশ নাড্ডা (J P Nadda)।

সেখানে নাড্ডা অভিযোগ করেন, করোনা ভ্যাকসিন (Corona Vaccine) নিয়ে ঘোটালা দেশের আর কোথাও হয়নি। একমাত্র পশ্চিমবঙ্গেই (West Bengal) করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে দুর্নীতি হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে ভ্যাকসিন নিয়ে এমন দুর্নীতি হয়েছে যে, সাংসদ মিমি চক্রবর্তীকেই জাল ভ্য়াকসিন দিয়ে দেওয়া হয়। দুর্নীতিগ্রস্থদের সঙ্গে হাত মেলালে, এমনই তো হবে বলেও কটাক্ষ করেন জে পি নাড্ডা।

 

সম্প্রতি কসবায় জাল ভ্যাক্সিনেশন কাণ্ড নিয়ে তোলপাড় হয়ে যায় রাজ্য রাজনীতি। যেখানে সাংসদ মিমি চক্রবর্তীকেও (Mimi Chakraborty) ভ্যাকসিন দেওয়া হয়। টিকাকরণের পর যখন মিমির ফোনে কোনও মেসেজ আসেনি এবং তাঁকে কোনও সার্টিফিকেট দেওয়া হয়নি, তখন সন্দেহ বাড়তে শুরু করে সাংসদ অভিনেত্রীর। এরপরই মিমি চক্রবর্তী বিষয়টি নিয়ে পুলিশ প্রশাসনের দ্বারস্থ হন। পুলিশ প্রশাসন খোঁজ শুরু করার পর দেবাঞ্জন দেব নামে এক ভুয়ো আইএএসের কীর্তি প্রকাশ্যে আসে। দেবাঞ্জনকে গ্রেফতারির পর একের পর এক তথ্য সামনে আসতে শুরু করে।

আরও পড়ুন: Babul Supriyo: 'মমতা ব্যানার্জির সরকার চাকরি দেওয়ার ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা আনতে পারেননি' কটাক্ষ বাবুলের

ওই ঘটনার দু দিনের মাথায় অসুস্থ হয়ে পড়েন মিমি চক্রবর্তী। পেটে ব্যথা শুরু হলে, চিকিৎসক (Doctor) পৌঁছে যান মিমির বাড়িতে। বর্তমানে সাংসদের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানা যায়। তবে দেবাঞ্জন দেব পুরসভার নাকের ডগায় কীভাবে ভুয়ো টিকা কেন্দ্রের আয়োজন করেন, তা নিয়ে বিরোধীদের প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় তৃণমূল কংগ্রেস সরকারকে। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই সরকার এবং বিরোধীদের মধ্যে তরজা শুরু হয়েছে জোর কদমে।