Firhad Hakim: 'প্রধানমন্ত্রী এবং মুখ্যমন্ত্রী দু’জন দক্ষ প্রশাসক কোনও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করছেন, ছোটরা কেন নাক গলাবে?', দিলীপ ঘোষকে কটাক্ষ ফিরহাদ হাকিমের
Firhad Hakim & Dilip Ghosh. Photo Source: Wikipedia

কলকাতা, ২৩ মে: “বড়রা যখন নিজেদের মধ্যে কথা বলে কোনও সিদ্ধান্ত নেন। তখন ছোটদের তার মাঝে ঢুকতে নেই।” বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকে (Dilip Ghosh) ঠিক এভাবেই কটাক্ষ করলেন কলকাতা পুরসভার প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim)। ২২মে সকাল ১১ টা নাগাদ আম্ফান বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শনে বাংলায় আসেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi)। বাংলার পরিস্থিতি দেখে ১০০০ কোটি টাকার আর্থিক সাহায্যের আশ্বাস দেন তিনি রাজ্যবাসীকে। সেই প্রসঙ্গেই প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লেখেন দিলীপ ঘোষ। চিঠিতে তাঁর বক্তব্য ছিল, “সকলের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা সরাসরি যেন ঢুকে যায়।” এই চিঠি লেখালেখি নিয়েই দিলীপ ঘোষকে কটাক্ষ ফিরহাদ হাকিমের।

দিলীপ ঘোষ নরেন্দ্র মোদিকে একটি খোলাচিঠি দেন। সেই চিঠি সম্পর্কে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হতে বিস্তারিত জানান রাজ্য বিজেপি সভাপতি। দিলীপ ঘোষ বলেন, “প্রধানমন্ত্রী এবং মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ হয়েছে। আম্ফানের জেরে কতটা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বাংলা। তার একটা অনুমান চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে আমরা চাই পীড়িত মানুষের ব্যঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি যেন ঢুকে যায় কেন্দ্রীয় সরকারের অনুদান। কারণ আয়লা, বুলবুল কিংবা উত্তরবঙ্গের বন্যার সময় আমরা দেখেছিলাম পীড়িত মানুষেরা টাকা পায়নি। টাকা নয়ছয় হয়েছে।” আরও পড়ুন: The Great Banyan Tree In Kolkata: আড়াই দশকে আম্ফান-সহ তিনটে বড় ঘূর্ণিঝড় সামলে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে শতাব্দীপ্রাচীন বট গাছ 

এই প্রসঙ্গেই দিলীপ ঘোষকে একহাত নিলেন ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেন, “বড়রা যখন কথা বলে তখন তার মাঝে কথা বলতে নেই। আমরা ছোট থেকেই এটা দেখে এসেছি। কিন্তু উনি হয়তো সেই সৌজন্যটুকুও জানেন না। প্রধানমন্ত্রী এবং মুখ্যমন্ত্রী-দু’জন দক্ষ প্রশাসক যখন নিজেদের মধ্যে কোনও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করছেন, তখন ছোটরা কেন নাক গলাবে?”