Viral: সবার মাঝে হাঁটু গেঁড়ে মন্ত্রীর জুতো খুলে দিতে বাধ্য হল আদিবাসী কিশোর! ইন্টারনেটে হৈ-চৈ
তামিলনাড়ুর বনমন্ত্রী দিনদিগুল সি শ্রীনিবাসন (Photo Credits: Twitter)

চেন্নাই, ৭ ফেব্রুয়ারি: এ যেন একবিংশ শতকে (Twenty First Century) দাঁড়িয়ে জমিদারি প্রথা কিংবা রাজতন্ত্রের নিকৃষ্ট উদাহরণ। ইন্টারনেটে (Internet) ওই দুই শাসনব্যবস্থার ছবি খুঁজলে বর্বরচিত যদি কোনও ছবি ভেসে ওঠে, এ ঘটনাও অনেকটা সেইরকম। যে ঘটনা ঘটেছে দক্ষিণের রাজ্য তামিলনাড়ুতে (Tamil Nadu)। সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে এমন এক ঘটনা, যা জানলে ক্রোধে ফুঁসে উঠবে আপনার লোমকূপ। জানা গিয়েছে, তামিল ভূমের নীলগিরিতে আদিবাসী এক কিশোরকে ডেকে এনে নিজের জুতো (Shoe) খুলতে বাধ্য করেছেন রাজ্যের এক মন্ত্রী (Minister Of State)। আর এই ঘটনায় দেশজুড়ে তীব্র হয়েছে নিন্দার ঝড়। মন্ত্রীর বিরুদ্ধে ঘটনায় অভিযোগ এনে পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছে 'অপমানিত' কিশোর।

নীলগিরির (Nilgiri) একটি ধর্মস্থানে ভ্রমণে গিয়েছিলেন তামিলনাড়ুর বনমন্ত্রী দিনদিগুল সি শ্রীনিবাসন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন ১৪ বছরের এক কিশোর। তাঁকে ডেকে তিনি বলেন, 'এই, এ দিকে ছুটে আয়।' এরপর ছেলেটি তাঁর কাছে গেলে মন্ত্রী বলেন, 'জুতোর বাকলটা খুলে দে।' ধর্মস্থানে ঢোকার আগে একটু নীচু হয়ে নিজের জুতো খুলতে পারেননি মন্ত্রী। এজন্য তিনি আদিবাসী কিশোরকে ডেকে নেওয়ায় তাঁর সমালোচনায় মুখর হয়েছেন অনেকেই। মন্ত্রীর বিরুদ্ধে মাসিনাগুড়ি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে ছেলেটি। তাঁর অভিযোগ, সে দিনের ঘটনা সব সংবাদমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ায় সে অপমানিত বোধ করেছে। চিঠিতে ছেলেটি লিখেছে, 'আমাকে যিনি নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি একজন মন্ত্রী হওয়ায় তাঁর পাশে উপস্থিত পুলিশকর্তারাও ভয়ে তাঁকে কিছু বলেননি। তারা সবাই দাঁড়িয়ে দেখলেন, আমি মন্ত্রীর জুতো খুলে দিচ্ছি। মন্ত্রী ও সরকারের সবাই এটা খুব ভালো করে জানতেন যে সেখানে উপস্থিত সবাই আদিবাসী। আমি খুবই দুঃখ পেয়েছি। অপমানিত হয়েছি। আমাকে ডেকে কীভাবে এমন কাজ করানো হল, তা ভেবে ভয়ও পাচ্ছি।' আরও পড়ুন: Karnataka Shocker: পর্ন দেখতে জোরাজুরি স্ত্রীয়ের, একাধিক পুরুষের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের ভিডিও ফাঁস, বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন স্বামীর

তফশিলি জাতি ও উপজাতিদের সুরক্ষার আইনে অভিযুক্ত মন্ত্রীর বিরুদ্ধে যাতে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হয়, সেই আর্জি জানিয়েছে কিশোরটি। তবে মন্ত্রীর দাবি, তিনি কোনও অন্যায় করেননি। নিউজ ১৮-এর খবর অনুযায়ী,  সাংবাদিকদের (Journalists) মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেছেন, 'আমি হেঁটে হাতির ক্যাম্পে যাচ্ছিলাম। হঠাত্‍‌ই আমায় বলা হল মন্দিরে যাওয়া হবে। আমার পায়ে জুতো ছিল। আমার পাশে থাকা সবাই এতটাই বড় ছিল যে তাঁদের আমার জুতো খুলে দিতে বলতে পারিনি। সামনেই একটা বাচ্চা ছেলে খেলছে দেখে তাকেই ডেকে বলি আমার জুতোটা খুলে দিতে। আমি ওকে নিজের নাতির মতো মনে করে ডেকেছিলাম। অন্য কোনও উদ্দেশ্য আমার ছিল না। কারও খারাপ লাগলে আমি অনুতপ্ত।'