Telangana: বিয়ে বাড়িতে ডিজে বাজানো নিয়ে ঝামেলার জেরে বরপক্ষ-কনেপক্ষর চেয়ার ছোড়াছুড়ি, ভাইরাল ভিডিও
বিয়ে বাড়িতে মারামারি (Photo Credits: YouTube Grab)

সূর্যপেট, ২ নভেম্বর: বিয়ের অনুষ্ঠান অন্যদের কাছে যাই হোক না কেন কমপক্ষে বর ও কনে ও তাদেরপরিবাররে কাছে অন্যতম আকর্ষণীয় দিন হওয়ার কথা। কারণ বিয়ের অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ধরণের আবেগ থাকে। কিন্তু, একটি বিয়ের আসরে সেরকম কিছু না হয়ে হল মারপিট। তাও আবার বর ও কনেপক্ষের মধ্যে। একেবারে তুচ্ছ কারণে এই ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে। সোশাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। তাতে দেখা যাচ্ছে, লোকজন একটি বিয়ের মণ্ডপে একে অপরের দিকে চেয়ার ছুড়ছে ( Chairs)। শোভাযাত্রায় ডিজে ( DJ) বাজানো নিয়ে বর এবং কনেপক্ষের মধ্যে শুরু হয় বচসা। ক্রমে অশান্তির পারদ ওঠে চরমে। কথা কাটাকাটি নিমেষেই পরিণত হয় হাতাহাতিতে। দু'পক্ষই বিয়ের আসরে থাকা চেয়ার তুলে ছুড়তে শুরু করে একে অন্যের দিকে। খবর পেয়েই ঘটনাস্থানে আসে পুলিশ। মারামারিতে তিনজন আহত হয়েছেন। তাঁদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জানা যাচ্ছে, শোভাযাত্রা চলাকালীন ডিজে সংগীত বাজানো নিয়ে লড়াই হয়েছিল। বরপক্ষ যখন ডিজে বাজাতে চেয়েছিল, তখন কনেপক্ষ অস্বীকার করেছিল। ২৯ অক্টোবর ঘটনাটি ঘটেছে তেলাঙ্গানার (Telangana) সূর্যপেট (Suryapet) জেলার কোদাদে।

পুলিশ জানিয়েছে, শোভাযাত্রা বের করা নিয়েই প্রথমে বর এবং কনেপক্ষের মধ্যে শুরু হয় বচসা। ক্রমে অশান্তির পারদ ওঠে চরমে। কথা কাটাকাটি নিমেষেই পরিণত হয় হাতাহাতিতে। দু’পক্ষই বিয়ের আসরে থাকা চেয়ার তুলে ছুড়তে শুরু করে একে অন্যের দিকে। সার্কেল ইন্সপেক্টর শিব রাম রেড্ডি জানিয়েছেন, সূর্যপেট জেলার অজয়ের সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়েছিল অন্ধ্রপ্রদেশের ইন্দ্রজার। ২৯ অক্টোবর বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। সকাল থেকেই শুরু হয়েছিল বিয়ের নানা আচার-অনুষ্ঠান। আচমকাই শোভাযাত্রা বের করা নিয়ে ঝগড়া শুরু হয়ে যায় দু'পক্ষের মধ্যে। তিনি আরও জানান, শোভাযাত্রা চলাকালীন ডিজে সংগীত বাজানো একটি বড় বিতর্কে পরিণত হয়েছিল। কারণ দেরি হওয়ার কারণে ডিজে পার্টিকে চলে যেতে হয়েছিল। কনেপক্ষ তাই ডিজে বাজাতে আর রাজি ছিল না। যদিও অনড় ছিল বরপক্ষ।" আরও পড়ুন: Pallab Lochan Das: ভালো রাস্তা হলেই বেশি দুর্ঘটনা ঘটে, দাবি করলেন অসমের বিজেপি সাংসদ পল্লব লোচন দাস

এদিকে তিন আহতর চোট গুরুতর নয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। আহত অবস্থায় তিনজনকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। এই ঘটনায় বরপক্ষ বা কনেপক্ষ কেউ কারোর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ জানায়নি।