Onam 2020: কাসাভু কটনে সেজে পুককালাম আল্পনা দিচ্ছে আটারলি বাটালি গার্ল, ওনাম উৎসবে বিশ্বের কেরালিয়ানদের শুভেচ্ছায় আমূলের বিজ্ঞাপন
আমূলের ওনাম বিজ্ঞাপন (Photo Credits: Twitter)

আজ সোমবার কেরালার সর্ববৃহৎ ও তাৎপর্যপূর্ণ উৎসব ওনাম উদযাপিত হচ্ছে। হ্যাঁ ওনাম ২০২০-র (Onam 2020) প্রধান অনুষ্ঠান থিরুভোনাম অথবা থিরু ওনাম আজ, তাই আনন্দ চেপে রাখতে পারছে না মানুষ। ইতিমধ্যেই উৎসবের আনন্দে কেরালাবাসী বাড়ি সাজাতে শুরু করেছে। মেঝে জুড়ে পুককালাম আঁকা চলছে। মালয়লি মহিলারা ঐতিহ্যবাহী কাসাভু শাড়ি পরে কলাপাতায় সুস্বাদু খাবার পরিবেশনে মেতেছেন। মহামারীর কারণে উদযাপন এখন শুধুমাত্রই বাড়ি কেন্দ্রিক হয়েছে। তবে তাতেকি, নিজের বাড়িতেই এই বিপর্যয়ের মধ্যে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি উদযাপনে মেতেছেন কেরালিয়ানরা। যা, জীবনের প্রতি ভালবাসাকেই নির্দেশ করে। ভারতের অন্যতম ডেয়ারি ব্র্যান্ড আমূল এই নবান্ন উসব ওনাম উপলক্ষে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের কেরালার বাসিন্দাদের শুভেচ্ছা জানিয়েছে একেবারে নিজের মতো করে। আরও পড়ুন-NEET And JEE 2020 Update: করোনা আবহে NEET ও JEE 2020-র প্রবেশিকা পরীক্ষা স্থগিত হোক, সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির দ্বারস্থ ১৭ বছরের পড়ুয়া

আমূল তার সাম্প্রতিক বিজ্ঞাপনে ওনাম উপলক্ষে সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে। টুইট বার্তায় আমূলের বিজ্ঞাপনের ছবি মালয়লিদের এই ওনাম উৎসবের মুহূর্তকে আরও আনন্দে ভরিয়ে তুলবে। বিজ্ঞাপনের ব্যাকগ্রাউন্ডে দেখতে পাচ্ছি কথাকলি নাচের একটি মুখ। এরপর ফোরগ্রাউন্ডে আমূলের আটারলি বাটারলি গার্ল একেবারে ঐতিহ্য মেনে কেরালার সাদা খোলের সোনালী পাড়ের কাসাভু শাড়ি পরে বসে আছে। সঙ্গে লালরঙা ব্লাউজের কম্বিনেশন। আপনিও চাইলে কাসাভু শাড়ি পরতে পারেন। তবে আমূল গার্ল শুধু কাসাভু শাড়িই পরেনি। একই সঙ্গে পুককালাম আল্পনাও আঁকছে। পুককালাম আল্পনা দক্ষিণ ভারতের ঐতিহ্য বহন করে। সাধারণত আতপ চালের গুঁড়ো, খড়িমাটি ও ফুলের পাপড়ি থেকে প্রাকৃতিক রং তৈরি করেই এই আল্পনা আঁকা হয়। কাসাভু শাড়ি ও পুককালাম আল্পনা ছাড়াও ওনাম উদযাপনে আমূলের ‘Add Swadya to Sadya’ ট্যাগলাইনও কেরালিয়ানদের মন কেড়ে নিয়েছে। কেননা ওনাম উৎসবে বাড়ির সদস্যরা একসঙ্গে বসে বিভিন্ন পদ দিয়ে ভোজ সারছেন, কেরালিয়ান কাছে এই খাওয়াদাওয়া একটা বিরাট উপভোগ্য বিষয়।

কেরালার মহান সাসক মহাবলীর উদ্দেশ্যে সম্মান জানানোর জন্যই এই ওনাম উৎসবের উৎপত্তি। ভালবাসা ও নিষ্ঠা দিয়েই এই রাজা রাজ্যবাসীর মন জয় করে নিয়েছিলেন। তাইতো ভগবান বিষ্ণু তাঁকে নিয়ম করে প্রতিবছর একটি দিনের জন্য মর্ত্যে পাঠান। যাতে ওই দিনটিতে মহাবলি বাড়ি বাড়ি ভ্রমণ করতে পারেন। আমরা প্রত্যেককেই এই ওনাম উৎসব উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানাই।