Viral:হাঁটু জলে ঝাঁকে ঝাঁকে ঘুরছে হাঙর, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল ভিডিও
এই সেই হাঙরের দল (Photo Credits: Jeremy Johnston Instagram)

ফ্লোরিডা, ২৫ ফেব্রুয়ারি: বিচের কাছাকাছি হাঙরের ঝাঁক, একটা দুটো নয়, একেবারে শয়ে শয়ে ঘুরছে। সমুদ্রে সার্ফিং করতে নেমেই অস্বস্তি টের পেয়েছিলেন মার্কিনযুক্ত রাষ্ট্রের ফ্লোরিডার (Florida)  বাসিন্দা জেরেমি জনস্টন। ১০ মিনিটের মধ্যেই জব থেকে উটে আসেন। পরের দিন নামার আগে একবার বিচে গিয়ে ড্রোন উড়িয়ে জল পরীক্ষা করে দেখেন তিনি। আর সেই ছবি দেখতেই তাঁর আত্মারাম খাঁচা ছেড়ে যাওয়ার জোগাড় হয়েছে। বিচের একাবারে গা ঘেঁষে হাঙরের ঝাঁক একেবারে কিলবিল করছে। এই দৃশ্য দেখে আঁতকে উঠেছিলেন তিনি। অন্যদেরও সমুদ্রে নামতে নিষেধ করে দেন। বিষয়টি জানাজানি হতে সময় নেয়নি। তিনি ড্রোন ক্যামেরায় তোলা ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করতেই তা ভাইরাল হয়েছে।

ভিডিওটি দেখে ন্যাশনাল জিওগ্রাফির দাবি, এই ঘটনা স্বাভাবিক। জানানো হয়েছে এই হাঙরগুলি ব্ল্যাকটিপ প্রজাতির। এরা উপকূলের কাছেই সাধারণত থাকে। আর ফ্লোরিডাকে তো পৃথিবীর হাঙরের রাজধানী বলা হয়। এখানে যাঁরা সমুদ্রে সাঁতার কাটেন, তাঁদের প্রত্যেকের ১০ ফুটের মধ্যে কোনও না কোনও হাঙর থাকে। এদিকে ঝাঁকে জাঁকে হাঙরের হ্যাংওভার এখনও কাটিয়ে উঠতে পারেননি জেরেমি জনস্টন। তিনি বলেছেন, “একসঙ্গে এত হাঙর আমি আগে কখনও দেখিনি। আমি শুধু ভিডিওতে দেখেছি একসঙ্গে হাঙরদের ঘুরতে। আমরা যেখানে বাস করি তাকে পৃথিবীর হাঙরের রাজধানী বলা হয়। তাই আমি আশা করেছিলাম এই ধরনের দৃশ্য কোনও দিন দেখব। সেটাই দেখতে পেলাম।” কেউ বলছেন, জেরেমি খুব ভাগ্যবান। তিনি হাঙরদের এত কাছে গিয়েও ফিরতে পেরেছেন। ফ্লোরিডার বেশ কিছু বাসিন্দা লিখেছেন, তাঁরা এখন কয়েক দিন সমুদ্রের ধারে পর্যন্ত যাবেন না। অনেকে আবার ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে আর্জি জানিয়েছেন। আরও পড়ুন-Mohan Bhagwat: সংঘ প্রধানের মাথায় সাধুর পা, বাবার আশীর্বাদ নিতে রাঁচিতে মোহন ভাগবত; ছবি ভাইরাল

গত মঙ্গলবার ঘটনাটি ঘটেছে ফ্লোরিডার নিউ স্মিরনা বিচের। এই ঘটনার পরে নিজের ইনস্টাগ্রামে সেই ভিডিও শেয়ার করে জেরেমি লেখেন,  গতকাল বিচের মধ্যে ২০ মিনিট দাঁড়িয়ে ছিলাম। কেন জানি না একা সার্ফিং করতে ভয় করছিল আমার। তারপর ১০ মিনিট সার্ফিং করে আমি চলে আসি। পরের দিন আমি বিচে গিয়ে ড্রোন উড়িয়ে দেখি হাঁটু জলে ঘুরে বেড়াচ্ছে অসংখ্য হাঙর। এই দৃশ্য দেখে আমি আঁতকে উঠেছিলাম।