Communal Violence In Kannauj: মন্দির চত্বরে মাংসের টুকরো ফেলার অভিযোগ ঘিরে সাম্প্রদায়িক হিংসা উত্তরপ্রদেশের কনৌজে
Communal Violence In Kannauj (Photo: IANS)

কনৌজ, ১৭ জুলাই: গ্রামের মন্দির (Temple) চত্বরে মাংসের (Meat) টুকরো ফেলার অভিযোগ ঘিরে সাম্প্রদায়িক হিংসা (Communal Violence) ছড়াল উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) কনৌজ জেলায় (Kannauj)। অভিযোগ, অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা গ্রামের একটি মন্দির চত্বরে মাংসের টুকরো ফেলে দেয়। এছাড়াও দুটি জায়গায় মূর্তি ভাঙচুর করে। গ্রামের কয়েকটি দোকানে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, একটি কবরস্থানের গেটও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ঘটনার ২টি এফআইআর নথিভুক্ত করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, যারা শান্তি বিঘ্নিত করার চেষ্টা করছে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পুলিশ জানিয়েছে, কনৌজ জেলার তালগ্রাম থানার রসুলবাদ গ্রামে হিংসার ঘটনাটি ঘটেছে। পুরোহিত জগদীশ চন্দ্র মন্দির চত্বরে মাংসের টুকরো দেখতে পান এবং পুলিশকে খবর দেন। সার্কেল অফিসার শিব প্রতাপ সিং এবং স্টেশন হাউস অফিসার হরি শ্যাম সিং ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুরো জায়গাটি পরিষ্কার করেন। তবে এ ঘটনায় পুলিশ নীরব থাকার অভিযোগে ক্ষুব্ধ জনতা তালগ্রাম-ইন্দরগড় সড়ক অবরোধ করে। তিন ঘণ্টা অবরোধ চলার পর পুলিশের হস্তক্ষেপে অবরোধ ওঠে। এদিকে, অবরোধ তুলে নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দুই জায়গায় মূর্তি ভাঙচুরের খবর ছড়িয়ে পড়ে। আরও পড়ুন: IndiGo Flight Diverted To Pakistan’s Karachi: যান্ত্রিক গোলযোগের কারণে এবার পাকিস্তানের করাচিতে অবতরণ ইন্ডিগো বিমানের

এরপরই জনতা ক্ষুব্ধ হয়ে চারটি দোকান পুড়িয়ে দেয় এবং একটি কবরস্থানের গেটে ভাঙচুর চালায়। শনিবার সন্ধ্যায় ইন্সপেক্টর জেনারেল (কানপুর রেঞ্জ) প্রশান্ত কুমার এবং কানপুর ডিভিশনে কমিশনার রাজ শেখর ওই গ্রামে যান। পুলিশ আধিকারিকরা জানিয়েছেন, তাঁরা ঘটনার নেপথ্যে থাকা ব্যক্তিদের চিহ্নিত করছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এলাকায় পুলিশ টহল বাড়ানো হয়েছে।

এই ঘটনার পর যোগী আদিত্যনাথ সরকার কনৌজের জেলাশাসক রাকেশ মিশ্রকে সরিয়ে দিয়েছে। তার আগে অবশ্য পুলিশ সুপার রাজেশ শ্রীবাস্তবকে সরিয়ে দেওয়া হয়। চিত্রকূটের জেলাশাসক শুভ্রাংশ শুক্লাকে কনৌজের নতুন জেলাশাসক নিযুক্ত করা হয়েছে।