Maharastra: মহারাষ্ট্রে রাজনৈতিক নাটকে হোটেল ব্যবসার পৌষমাস
দেবেন্দ্র ফডনবিশ ও অজিত পাওয়ার (Photo Credits: ANI)

মুম্বই, ২৫ নভেম্বর: মহারাষ্ট্রে (Maharastra) রাজনৈতিক নাটক জারি থাকার কারণে মুম্বইয়ের (Mumbai) হোটেলগুলির (Hotel) ব্যবসা বেড়েছে। টাইমস অফ ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১২ নভেম্বর রাজ্যে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি হওয়ার ঠিক পর থেকেই মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক দলগুলি তাদের বিধায়কদের হোটেলবন্দি করতে শুরু করে। তাদের ভয় ছিল দলীয় বিধায়কদের অন্য দল ভাঙিয়ে নিয়ে যেতে পারে। তাদের উপরে নজরদারি চালাতেও শুরু করে তারা। মহারাষ্ট্র বিধানসভায় ভোটাভুটির আগে শিবসেনা, এনসিপি ও কংগ্রেস হোটেলে তাদের দলীয় বিধায়কদের রাখতে শুরু করে। হোটেলগুলিকে অন্য নেতা-কর্মীদের আনাগোনাও বেড়েছে। ফলে সার্বিকভাবে হোটেলের ব্যবসা বেড়েছে। লেম ট্রি প্রিমিয়ার থেকে জে ডব্লু মেরিয়ট, হায়াত রিজেন্সি থেকে রেনেসাঁন্স, শহরের হোটেলগুলি বিধায়কদের রাখতে ব্যবহার করা হচ্ছে।

রবিবার সকালে মহারাষ্ট্র মামলায় সব পক্ষকে নোটিশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court)। সর্বোচ্চ আদালতের তিন বিচারপতির বেঞ্চ সরকার পক্ষকেও নির্দেশ দিয়েছে, সোমবার সকাল সাড়ে দশটার মধ্যে দেবেন্দ্র ফডনবিশের তরফে রাজ্যপালকে দেওয়া সংখ্যাগরিষ্ঠতার চিঠি এবং রাজ্যপালের ফডনবিশেকে সরকার গড়তে আমন্ত্রণ জানানোর চিঠি জমা দিতে হবে। মামলাটি পিছোনো নিয়ে বিজেপি এবং সরকারের আর্জি খারিজ করে দিয়েছে আদালত। আজ শীর্ষ আদালত আজ দুটি নথি পরীক্ষা করবে এবং তারপরে মহারাষ্ট্রে ফ্লোর টেস্ট সংক্রান্ত নির্দেশ দিতে পারে। আরও পড়ুন: Maharashtra: ঘরে ফিরল আরও ২ এনসিপি বিধায়ক, আজ সুপ্রিম কোর্টের দিকে তাকিয়ে শরদ পাওয়ার, উদ্ধব ঠাকরে

আর দুই বিধায়ক ফিরে এল এনসিপির (NCP) শরদ পাওয়ার (Sharad Pawar) শিবিরে। তবে আরও দুই বিধায়ক এখনও নিখোঁজ। ফিরে আসা দুই বিধায়ক হলেন দৌলত দারোদা ও অনিল পাতিল। তাঁরা দু'জনেই বাকি বিধায়কদের সঙ্গে হায়াত হোটেলে উঠেছেন। রবিবার গভীর রাতে তাঁদের নিয়ে মুম্বই ফেরেন এনসিপির ছাত্র সংগঠনের প্রধান সোনিয়া দোহন ও এনসিপির যুব সংগঠনের নেতা ধীরাজ শর্মা। জানা যাচ্ছে, নীতিন পাওয়ার নামে আরও এক বিধায়ক মুম্বই ফিরেছেম। তবে তিনি হায়াত হোটেলে উঠেছেন কি না তা জানা যায়নি। তবে এখনও নিখোঁজ নরহরি জিরওয়াল নামে এক বিধায়ক। সূত্রের খবর, তিনি দিল্লিতে রয়েছেন।

এনসিপি নেতা নওয়াব মালিক (Nawab Malik) জানিয়েছেন, দলের জয়ী ৫৪ জন বিধায়কের মধ্যে ৫২ জনই দলের সঙ্গে রয়েছেন। একজনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। রবিবার রাতে এনসিপি তাদের সব বিধায়ককে হায়াত হোটেলে স্থানান্তরিত করে। এদিকে অজিত পাওয়াকে বোঝানোর চেষ্টার খামতি রাখছে না এনসিপি। আজ তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গেছেন ছগন ভুজবল।