'Cyanide Siva':  কোটিপতি হওয়ার লোভ দেখিয়ে একের পর এক খুন, অবশেষে গ্রেপ্তার সিরিয়াল কিলার সায়ানাইড শিবা
প্রতীকী ছবি(Photo Credit: Pixabay)

এলুরু, ৬ নভেম্বর: সায়ানাইড জলি ('Cyanide Jolly') বদলে গেলে সায়ানাইড শিবায় ('Cyanide Siva')। হ্যাঁ দক্ষিণ ভারতের কুখ্যাত সিরিয়াল কিলারকে (serial killer) হাতেনাতে ধরল পুলিশ। ২০ মাসের ব্যবধানে ১০জনকে বিষ খাইয়ে হত্যা করেছে ধৃত ভেলাঙ্কি সিমহাদ্রি ওরফে শিবা। কেরালা আর এক সিরিয়াল কিলার জলি জোসেফকেই (Jolly Joseph) অনুসরণ করত শিবা। সেই মতোই নিজের গেম প্ল্যান সাজিয়েছিল সে। ছিল একজন নাম মাত্র বেতনের ওয়াচ ম্যান। সেই কিনা একদিন হয়ে গেল বড় মাপের প্রোমোটার। মানুষের সন্দেহ হওয়াটা স্বাভাবিক, আসলে লোক ঠকিয়ে রোজগারের পথটাসে ততদিনে ভালই বুঝে নিয়েছে। কালো জাদুর সাহায্যে টাকা, গয়না দ্বিগুণ করে দিতে পারে। সঙ্গে সারিয়ে দিতে পারে দূরারোগ্য ডায়াবেটিস।

এসব বলেই মানুষকে ফাঁদে ফেলত সে। টাকা গয়না নিয়ে সাহায্য প্রার্থীকে কোনও একটি জায়াগায় একা আসার নিদান দিত। অনেক আশা নিয়ে ওই ব্যক্তি সেখানে পৌঁছালে প্রথমেই তাঁকে প্রসাদের নামে পটাসিয়াম সায়ানাইড খাইয়ে দিত শিবা। তৎক্ষাণৎ মৃত্যুর ঘটলেই সোনা ও টাকা পয়সা নিয়ে উধাও হয়ে যেত সে। এভাবেই বেশ চলছিল। টাকা পয়সা আসতেই প্রোমোটারি শুরু করল শিবা। কালো জাদু করলে যে টাকা পয়সা বাড়ে তা বোঝাতে নিজেকেই উদাহরণ হিসেবে উপস্থিত করত। ঝোঁপ বুঝেই চলত কোপ মারার কাজ। তক্কে তক্কে থাকত সে, পয়সাওয়ালা দুর্বচিত্তের কাউকে পেলেই মগজ ধোলাইয়ের কাজ শুরু করে দিত। এই পদ্ধতিতেই ঠাকুমা, শ্যালিকা, স্থানীয় পুরোহিত থেকে শুরু করে বহু পরিচিতকেও নিশানা করেছে সে। গত কয়েকমাসে গোটা অন্ধ্রপ্রদেশ জুড়ে একের পর এক অস্বাবাবিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটলেও পুলিশ শিবাকে সন্দেহ করতে পারেনি। কেননা মৃতদেহের শরীরে কোনও আঘাতের লেশ মাত্র নেই। তাই খুন নাকি আত্মহত্যা কিছুই বোঝা যাচ্ছিল না। আরও পড়ুন-Mumbai Shocker: গুলি চালানোর পর চপারের এলোপাথাড়ি কোপ, প্রতিবেশীর ষড়যন্ত্রে খুন যুবক

তবে সম্প্রতি এক শারীর শিক্ষার শিক্ষককে লোভ দেখিয়ে বাগে এনে ফেলেছিল শিবা। সেই ব্যক্তি প্রসাদ নিতে আসার আগে বিশ্বস্ত কাউকে জানিয়েছিলেন যে সংসারের অভাব এবার কেটে যাবে। টাকা পয়সা হীরে জহরত সব দ্বিগুণ হয়ে যাবে। কালো জাদুর আশ্রয়ে প্রসাদ নিতে যাচ্ছি। তবে আর পাঁচজনের মতোই শিবার শিকার হতে হয়েছিল ওই শিক্ষককে। কিন্তু তাঁর এই মৃত্যুতে বেজায় অবাক হয়ে যান সেই পরিচিত। তিনি পুলিশকে গোটা ঘটনা খুলে বলতেই শুরু হয় তদন্ত। অনেক পরিশ্রমের পর শিবার উপস্থিতি প্রকাশ্যে আসে। এদিকে একের পর এক সাফল্যের পর ফের ১০জনকে নিশানা করে পরবর্তী ঘুঁটি সাজিয়েই ফেলেছিল সায়ানাইড শিবা তবে তার আগেই তাকে গ্রেপ্তার করল পুলিশ।