Handwara Encounter: হান্দওয়ারা এনকাউন্টারে নিকেশ শীর্ষ লস্কর কমান্ডার হায়দার
সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াই (Photo Credits: PTI

শ্রীনগর, ৩ মে: জম্মু ও কাশ্মীরের (Jammu and Kashmir) হান্দওয়ারায় (Handwara Encounter) নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে নিকেশ হয়েছে লস্কর-ই-তইবার শীর্ষ কমান্ডার হায়দার (Lashkar-e Taiba Commander Haider)। তার বাড়ি পাকিস্তানে। আজ একথা জানিয়েছেন কাশ্মীর পুলিশের আইজি বিজয় কুমার। শনিবার রাতে তাদের নাশকতার ছক বানচাল করতে গিয়ে প্রবল গুলিযুদ্ধে জড়িয়ে পড়লেন ভারতীয় নিরাপত্তারক্ষীরা। এর ফলে শহিদ হলেন রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের এক কর্নেল, একজন মেজর এবং দুই জওয়ান আর জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের এক সাব ইনস্পেক্টর। পালটা গুলিতে খতম হয়েছে দুই জঙ্গিও।

সম্প্রতি সীমান্তে অনুপ্রবেশের চেষ্টা ও জঙ্গি কার্যকলাপ বেড়েছে। সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তান থেকে জঙ্গিদের একটি দল কাশ্মীরে যে অনুপ্রবেশ করেছে, সে খবর নিরাপত্তা বাহিনীর কাছে ছিল। গোয়েন্দা সূত্রে পাওয়া সেই খবরের ভিত্তিতেই গত কয়েক দিন ধরে হান্দওয়ারায় জঙ্গল ও গ্রামগুলিতে তল্লাশিতে নামে তারা।শনিবার সকালে খবর আসে উত্তর কাশ্মীরের কুপওয়ারা জেলার হান্দেওয়ারার চানাজমুলা গ্রামের এক বাসিন্দার বাড়িতে লুকিয়ে রয়েছে দু’জন জঙ্গি। বাড়ির সদস্যদের পণবন্দি করে রেখেছে তারা। এরপরই ২১ নম্বর রাষ্ট্রীয় রাইফেলস এবং জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের যৌথ বাহিনী ওই এলাকায় তল্লাশি চালাতে শুরু করে। দুপুর সাড়ে তিনটা নাগাদ পণবন্দি নাগরিকদের উদ্ধার করতে ওই বাড়ির মধ্যে ঢোকার চেষ্টা করেন যৌথ বাহিনীর সদস্যরা। সেসময়ই আচমকা ভিতর থেকে গুলি চালাতে শুরু করে জঙ্গিরা। পালটা জবাব দিতে শুরু করে বাহিনীও। দীর্ঘক্ষণ গুলির লড়াই চলার পর রাতে বন্ধ থাকে। রবিবার ভোর হতেই ফের শুরু হয়ে এনকাউন্টার। শহিদ হন রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের কমান্ডিং অফিসার কর্নেল আশুতোষ শর্মা, মেজর অনুজ, একজন ল্যান্সনায়েক, একজন রাইফেলম্যান এবং জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের এসআই (SI) শাকিল কাজি। আরও পড়ুন: INS Jalashwa Honours COVID-19 Warriors: বঙ্গোপসাগরে আইএনএস জলস্বাতে 'ধন্যবাদ' বার্তা দিয়ে করোনা ওয়ারিওর্সদের শ্রদ্ধাজ্ঞাপন নৌবাহিনীর

ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং (Defence Minister Rajnath Singh)। টুইটে তিনি লিখেছেন, "আমাদের সেনা ও নিরাপত্তা কর্মীদের হারানো গভীর বেদনাদায়ক। তাঁরা সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে দৃষ্টান্তমূলক সাহস দেখিয়েছেন এবং দেশের সেবা করার সময় সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করেছেন। আমরা তাঁদের সাহস ও ত্যাগকে কখনই ভুলব না।"