লিজে রেসিং বাইক চড়বেন?  সুবর্ণ সুযোগ দিচ্ছে ইন্ডিয়ান মোটর সাইকেল
এফটিআর ১২০০ এস(Photo Credit: Twitter)

বাইকের প্রতি অমোঘ ভালবাসা নেই এমন লোকের সংখ্যা এখন প্রায় হাতে গোনা বলতে পারেন। যাঁরা বাইককেই বন্ধু করেছেন তাঁদের প্রায় প্রত্যেকেরই মনে রেসিং বাইকের প্রতি চোরা টান রয়েছে। কিন্তু সাধ ও সাধ্যের মধ্যে বড়সড় বাধা হয়ে দাঁড়ায় রেসিং বাইকের আর্থিক মূল্য। বিরাট অংকের টাকা দিয়ে রেসিং বাইক কেনার মতো স্পর্ধা দেখাতে পারেন না বেশিরভাগ ভারতীয় যুবকই। তাইবলে কী সাধ সাধই থেকে যাবে। তাতো হতে পারে না। গ্রাহকের মনোবাঞ্চা পূরণে এবার মধ্যবিত্তের সাধ্যের মধ্যে রেসিংবাইক আনল প্রস্তুত কারক সংস্থা ইন্ডিয়ান মোটর সাইকেল (Indian Motorcycle)। তাদের ‘ফ্ল্যাট-ট্রাক চ্যাম্পিয়নশিপ’ জেতা বাইক ‘এফটিআর ৭৫০’ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে তার আদলেই আনল দু’টি নতুন বাইক।

‘এফটিআর ১২০০ এস’ (FTR 1200 S) ও ‘এফটিআর ১২০০ এস আরআর’ (FTR 1200 S Race Replica)। এই দুটি রেসিং বাইক ক্রুজার স্টাইলের অনুসারী। ২০১৬-তে ‘এফটিআর ১২০০ এস’ ও ‘এফটিআর ১২০০ আরআর’ প্রথম লঞ্চ করে মার্কিন যুক্ত রাষ্ট্রে। সেখানকার বাইক বাজারে রীতিমতো সাড়া ফেলে দেয় প্রস্তুত কারক সংস্থা ইন্ডিয়ান মোটর সাইকেল। তারপরেই ভারতের বাজারে দুই রেসিং বাইকের লঞ্চ নিয়ে ভাবতে শুরু করে সংস্থাটি কিন্তু এত দামের বাইক আদৌ ভালরকম জনপ্রিয়তা পাবে কি না তানিয়ে সন্দেহ ছিলই। তখন ‘এফটিআর ১২০০ এস’ ও ‘এফটিআর ১২০০ এস আরআর’-এর রেপ্লিকা তৈরি করে সংস্থা। এফটিআর ১২০০ এসের দাম ধার্য করা হয়েছে ১৫.৯৯ লক্ষ টাকা এবং ‘এফটিআর ১২০০ আরআর (রেস রেপ্লিকা)-র দাম ১৭.৯৯ লক্ষ টাকা (এক্স শোরুম)। দু’টি বাইক-ই  রেসিং বাইকের আদলে তৈরি এবং এর নিম্বল হ্যান্ডলযুক্ত ক্রুজার স্টাইল বাইক আরোহীদের এক দিকে যেমন রেসিং বাইক চালানোর অনুভূতি দেবে। আরও পড়ুন-ভারতের বাইক বাজারে তাক লাগাতে হাজির ডুকাটি, ডিয়াভেলের নতুন সিরিজ

ইন্ডিয়ান মোটর সাইকেল এই ‘এফটিআর ১২০০ এস’ ও ‘এফটিআর ১২০০ এস আরআর’ রেসিং বাইক দুটির উপরে শুধুমাত্র ভারতের বাজারের জন্য বিশেষ অফার রেখেছে। মাত্র দুলক্ষ টাকায় ইন্ডিয়ান মোটরসাইকেলের যে কোনও ডিলারের থেকে এই বাইক বুকিং করতে পারবেন। অথবা প্রতিমাসে ৩৯,৯৯৯টাকা দিয়ে লিজেও পেতে পারেন এই রেসিং বাইক। এই বাইকে চালানোর জন্য থাকবে তিনটি মোড-স্পোর্ট, স্ট্যান্ডার্ড এবং রেইন। পরিস্থিতি অনুযায়ী মোডগুলি পরিবর্তন করে রেসিং বাইককেই সাধারণ বাইকের মতো চালাতে পারবেন, আবার বর্ষাকালে অতিরিক্ত সাবধানতা নেওয়ার জন্য ব্যবহার করতে পারবেন এর বিশেষ ‘রেইন’ মোড। তাই সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে ভুলবেন না।