Karachi Plane Crash: করোনাভাইরাস নিয়ে আলোচনায় মশগুল ছিলেন দুই পাইলট, সেই কারণেই করাচিতে ভেঙে পড়ে পাকিস্তানের বিমান
করাচি বিমান দুর্ঘটনা (Photo Credits: Twitter)

ইসলামাবাদ, ২৪ জুন: গত মাসে করাচিতে (Karachi) ভেঙে পড়ে পাকিস্তান আন্তর্জাতিক এয়ারলাইন্সের ( Pakistan International Airlines) একটি বিমান। বিমান দুর্ঘটনার তদন্তে নেমে চাঞ্চল্যকর তথ্য পেলেন গোয়েন্দারা। তাঁরা জানিয়েছেন, দুই পাইলট করোনাভাইরাস (Coronavirus) নিয়ে কথা বলছিলেন, এতই মগ্ন হয়ে পড়েছিলেন যে বিমানের ওপর থেকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন। পাকিস্তানের অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী বুধবার সংসদে একথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, “দুই পাইলটের অতিমাত্রায় আত্মবিশ্বাস ও মনোযোগের অভাবেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।"

লাহোর থেকে করাচি যাওয়ার পথে ২২ মে করাচির জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিকটবর্তী একটি আবাসিক এলাকায় ভেঙে পড়েছিল বিমানটি। বিমানের দুই ইঞ্জিনই বিকল হয়ে গিয়েছিল বলে জানা যায়। করাচি বিমানবন্দরের কাছে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় ভেঙে পড়ে বিমানটি। এই দুর্ঘটনায় বিমানের বাকি সব যাত্রী ও কর্মীদের মৃত্যু হয়। মৃতর সংখ্যা ৯৭। দুই যাত্রী বরাত জোরে বেঁচে যান। আরও পড়ুন: Victory Parade in Moscow: রাশিয়ার ভিকট্রি ডে প্যারেডে অংশ নিল ভারতীয় সেনার তিন বাহিনী: ভিডিয়ো

ফেডারেল বিমান পরিবহন মন্ত্রী গোলাম সরোয়ার খান (Sarwar Khan) বিমান দুর্ঘটনার বিষয়ে অন্তর্বর্তীকালীন তদন্ত রিপার্ট পেশ করেন। তিনি জানিয়েছেন যে বিমানের পাইলট এবং কনট্রোলার কেউই সাধারণ নিয়ম মান্য করেননি। এয়ারবাস এ৩২০ ল্যান্ড করানোর সময় দুই পাইলট করোনাভাইরাস নিয়ে আলোচনা করছিলেন বলে দাবি করেছেন পাক মন্ত্রী। সেই কারণেই বিমানটির ওপর থেকে তাঁরা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

দুর্ঘটনাগ্রস্ত বিমানটির ভয়েস রেকর্ডার এবং অন্য তথ্য খতিয়ে দেখে এই সিদ্ধান্তে এসেছে তদন্ততারী দল। পাকিস্তানের বিমান পরিবহণ মন্ত্রকের আধিকারিকরা ছাড়াও তদন্তকারী দলে রয়েছে ফ্রান্স সরকারের অফিসাররা। পাকিস্তানের বিমান পরিবহণ মন্ত্রী গুলাম সারওয়ার খান জানিয়েছেন যে বিমানটি আকাশে ওড়ার জন্য ১০০ শতাংশ ফিট ছিল। বিমানটিতে কোনও যান্ত্রিক গোলযোগ ছিল না বলে দাবি করেছেন তিনি।