Iran: মিসাইল হানায় ভেঙে পড়ছে ইউক্রেনের বিমান, ভিডিও পোস্ট করে গ্রেপ্তার যুবক
ভেঙে পড়া ইউক্রেনের বিমান (Photo Credits: AFP)

তেহরান, ১৫ জানুয়ারি: গত শুক্রবার ভোররাতে তেহরান বিমানবন্দরের অদূরেই ১৭৬ জন যাত্রী নিয়ে ভেঙে পড়ে ইউক্রেনের বিমান (Ukrainian passenger plane)। এই দুর্ঘটনায় সকলেরই মৃত্যু হয়েছে। খবরটি প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই আমেরিকা বলে যাচ্ছিব, বিমান দুর্ঘটনা হয়নি, মিসাইল হানায় দুর্ঘটনা ঘটিয়েছে ইরান। প্রথমে মার্কিন যুক্ত রাষ্ট্রের এই দাবি মানতে রাজি হয়নি তেহরান। পরে সেখানকার বিদেশ মন্ত্রকের তরফে টুইট করে জানানো হয় দুর্ঘটনাটি অনিচ্ছাকৃতভাবেই ঘটেছে। মৃতদের পরিবারের কাছে ক্ষমাও চেয়ে নিয়েছেন বিদেশমন্ত্রী। এমনকী, এই ঘটনা কেন ঘটল তার তদন্ত শুরু হয়েছে। তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলে, অভিযুক্তকে কড়া শাস্তি দেওয়া হবে। আজ জানা গেল, এই হামলার ভিডিও করার অপরাধে একজনকে আটক করেছে সেখানকার পুলিশ।

গত বুধবার তেহরান বিমানবন্দর থেকে ওড়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই ফ্লাইট পিএস৭৫২ –কে গুলি করে নামানো হয়। ওই বিমানে ১৭৬ জন যাত্রী ছিলেন। এটা নাকি ভুল বশত গুলি করে নামানো হয়েছে। তবে এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে অনেককেই নাকি গ্রেপ্তার করেছে তেহরান পুলিশ। এই প্রসঙ্গে হাসান রৌহানি বলেছেন, “এই ঘটনা প্রতিদিন ঘটে না। দুর্ঘটনার তদন্ত ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে। স্পেশ্যাল কোর্টে এর বিচার হবে। গোটা বিশ্ব এই বিচার দেখার সুযোগ পাবে। এমন মর্মান্তিক দুর্ঘটনা কখনওই একজনের ঘাড়ে চাপানো যাবে না। অনেকেই এই ঘটনার জন্য দায়ী।” আরও পড়ুন-US-Iran Tensions: ট্রাম্প-রৌহানির হুঙ্কারের মধ্যেই ফের হামলা, ইরাকের আল-বালাদ সেনাঘাঁটিতে আছড়ে পড়ল রকেট

ইউক্রেনের বিমানের উপরে মিসাইল হামলার ঘটনা প্রথমে মানতেই চায়নি ইরান। পর জানায় এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমের ভুলে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। তবে বিমান ভেঙে পড়ার ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতেই প্রকৃত সত্য প্রকাশ্যে চলে আসে। তাতে দেখা যায় মিসাইল হানায় যাত্রীবাহী ইউক্রেনিয়ান বিমানটি ভেঙে পড়ছে। ইতিমধ্যেই সেদেশের সেনা ভিডিও পোস্ট করা ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে। কিন্তু লন্ডনে বসবাসকারী ইরানের এক সাংবাদিক আর একটি ভিডিও পোস্ট করে দাবি করেছেন, তাঁর পোস্ট করা ভিডিওটি সেফ। তিনিই আসল ভিডিওটি পোস্ট করেছেন। তাই ভুল ব্যক্তিকে আটক করেছে ইরানের সেনা।