Narendra Modi at Belur Math: 'কিছু লোক রাজনৈতিক কারণে নাগরিক আইন নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে' বিবেকানন্দের জন্মদিনে ভাষণ দিয়ে বললেন নরেন্দ্র মোদি, সন্ন্যাসীদের সঙ্গে তুললেন গ্রুপ সেলফি
নরেন্দ্র মোদি (Photo Credits: ANI)

হাওড়া, ১২ জানুয়ারি: প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর এই প্রথমবার বেলুড় মঠে (Belur Math) এলেন দেশের প্রধানমন্ত্রী। দু'দিনের এই কলকাতা (Kolkata) সফরে এখানেই করলেন রাত্রিবাস। রবিবার সকাল হতেই স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিনে বেলুড়ে পুজো দিলেন প্রধানমন্ত্রী। মঠে মঙ্গল আরতি এবং প্রার্থনা সভাতেও অংশ নেন। তারপরেই স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিন উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে মঞ্চে উঠে তিনি বলেন, 'কিছু লোক রাজনৈতিক কারণে নাগরিক আইন নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।'

স্বাগত ভাষণের পর দেশের যুবদের উদ্দেশে বার্তা দেন নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi)। স্বরণ করেন স্বামীজিকেও। তিনি বলেন, "বেলুড় মঠ তীর্থ যাত্রার চেয়ে কম নয়। আমার কাছে বেলুড়ে আসা মানেই ঘরে আসা। আমি ধন্য আমাকে এখানে থাকতে দেওয়া হয়েছে। স্বামীজির (Swami Vivekananda) সংকল্পকে রূপায়ণের দ্বায়িত্ব আগামী প্রজন্মের। জনসেবাই জীবনের মূল মন্ত্র। এই ভূমিতে আসার পর মা সারদা দেবীর আঁচল মায়ের কথা মনে করায়। আমরা কখনই একা নই। আমাদের সঙ্গে আর একজন থাকেন। চোখে ধরা পড়েন না। কিন্তু সবসময় আমাদের সঙ্গেই থাকেন। তিনি ঈশ্বর। স্বামীজি চেয়েছিলেন একশো যুবক তাঁর হাতে থাকলে দেশকে পরিবর্তন করে দেবেন। আজ বিশ্বের সবচেয়ে বেশি যুবা ভারতে রয়েছেন। এই যুবার উপরই দেশের উজ্জ্বল ভবিষ্যত বলে মনে করতেন স্বামীজি। যুবার উপরই দেশের উজ্জ্বল ভবিষ্যত বলে মনে করতেন স্বামীজি। ডিজিটাল অর্থব্যবস্থায় ভারত প্রথম সারিতে রয়েছে। ১৩০ কোটি দেশবাসীর জন্য সংকল্প স্থাপন করেছি। দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুবসমাজ পথে নমেছে। বেলুড়ে এলে নতুন শক্তি পাওয়া যায়।" এরপরেই তিনি তুলে আনেন নাগরিকত্ব আইনের প্রসঙ্গ। সংশোধিত আইনের সমর্থনে তিনি বলেন, ‘CAA নাগরিকত্ব ছিনিয়ে নেওয়ায় জন্য নয়, নাগরিকত্ব দেওয়ার আইন।’ বিরোধীদের নিশানা করে পড়ুয়াদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘যা পড়ুয়া থেকে যুব সম্প্রদায় বুঝতে পারছেন তা অনেক রাজনৈতিক ব্যক্তিরা বুঝতে পারছেন না। অনেকেই CAA নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি করছে। যুব সমাজই ভারত নির্মাণের ভরসা।’ শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ বেলুড় মঠে পৌঁছন প্রধানমন্ত্রী। জলপথে মিলেনিয়াম পার্ক থেকে বেলুড়ে পৌঁছন। শ্রীরামকৃষ্ণ, মা সারদা ও স্বামীজিকে নিবেদন করা প্রসাদই তিনি রাতের আহার হিসেবে গ্রহণ করেন। সেই ভোগে ছিল গরম লুচি, বেগুন ভাজা, আলুভাজা ও পায়েস। ছিল গুজরাটি খাবারও। আর রবিবার ভোরে ঘুম থেকে উঠে পুজো দিয়ে মঙ্গল আরতি দেখে বেলুড় মঠের সন্ন্যাসীদের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। যোগ দেন প্রার্থণাসভায়। বৈদিক মন্ত্র উচ্চারণ করে প্রার্থণা করেন মোদি। স্বামী বিবেকানন্দের ছবিতে মালাও দেন। আরও পড়ুন: Narendra Modi Kolkata Tour: আজ শহরে দুদিনের সফরে আসছেন নরেন্দ্র মোদি; কোথায়, কখন থাকবেন রইল তার তালিকা

প্রসঙ্গত, ইন্দিরা গান্ধীর (Indira Gandhi) সঙ্গেও বেলুড় মঠের সুসম্পর্ক ছিল। রাজীব গান্ধীও (Rajiv Gandhi) বেলুড়ে এসেছেন। কিন্তু তাঁরা কেউই রাত্রিবাস করেননি। সেদিক থেকে মোদি নজির স্থাপন করলেন। এদিন মঠের সন্ন্যাসীদের সঙ্গে গ্রুপ সেলফিও তোলেন প্রধানমন্ত্রী।