কচুয়া ধামে মৃত পুণ্যার্থীর পরিবার ও আহতদের পাশে রাজ্য সরকার, আর্থিক সাহায্য ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের
মমতা ব্যানার্জি। (Photo Credit: Twitter)

কলকাতা, ২৩ আগস্ট: জন্মাষ্টমীর শুভ লগ্নেই কচুয়াধামে ভয়াবহ দুর্ঘটনা। ধামের একটি পাঁচিল ভিড়ের চাপে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে। আতঙ্কে ঘটনাস্থলে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। এই ঘটনায় নজন গুরুতর আহত হওয়ায় এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতলে ভর্তি করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত দুজনের মৃত্যুর হয়েছে বলে খবর। বৃহস্পতিবারের এই মর্মান্তিক ঘটনায় আহতদের দেখতে শুক্রবার এনআরএসে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানেই মৃত ও আহতদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্যের বিষয়টি ঘোষণা করেন। আহতদের সঙ্গে দেখা করার পাশাপাশি নিহতদের পরিজনদের সঙ্গেও কথা বলেন সমবেদনা জানান তিনি।

এদিন বেলা গড়াতেই এনআরএস এবং এসএসকেএম হাসপাতাল নিজে পরিদর্শনে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ নিহত এবং আহতদের পরিজনদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি৷ ভিড় সামলাতে কোনও গাফিলতি ছিল কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলেই জানান মুখ্যমন্ত্রী৷ নিহত এবং আহতদের পরিবারের পাশে রাজ্য সরকার রয়েছে বলেও আশ্বাস তিনি৷ এদিন নিহত চারজনের পরিবারপিছু ৫ লক্ষ টাকা, আহতদের ১ লক্ষ টাকা এবং অল্প জখমদের ৫০ হাজার টাকা করে আর্থিক সাহায্যের কথা ঘোষণা করেন তিনি৷ এছাড়া শহরের অন্যান্য হাসপাতালে কচুয়াধামে জখম কেউ ভরতি রয়েছেন কি না, তা খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যকে৷ খাদ্যমন্ত্রী তথা উত্তর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূল সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে কচুয়াধামের পরিস্থিতির উপর নজর রাখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ অন্যান্য মন্দিরগুলির মতো কচুয়াধামে পুণ্যার্থীদের প্রবেশপথ সংস্কারের দিকে রাজ্য সরকার নজর দেবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি৷ আরও পড়ুন-দেশে গণতন্ত্র নেই, চিদম্বরমের গ্রেপ্তারি নিয়ে মুখ খুলে বিজেপিকেই দুষলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

জন্মাষ্টমী উপলক্ষে প্রতি বছর বহু মানুষ ভিড় জমান উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাটের কচুয়া ধামে৷ চলতি বছর ব্যতিক্রম নয়৷ একে মুষলধারে বৃষ্টি, তার উপর অত্যধিক ভিড় – দু’য়ের জেরে মন্দির সংলগ্ন একটি পাঁচিল হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে৷ পাঁচিলের পাশেই ছিল বেশ কয়েকটি অস্থায়ী দোকান৷ ভেঙে পড়ে সেগুলিও৷ সরু রাস্তায় বিপদের হাত থেকে বাঁচতে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়৷ তাতেই পদপিষ্ট হয়ে যান অনেকেই৷ তড়িঘড়ি শুরু হয় উদ্ধারকাজ৷ আহতদের উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয় বসিরহাট মহকুমা হাসপাতালে৷ সরকারি মতে দুজনের মৃত্যুর কথা জানা গেলও বেসরকারি সূত্র অনুযায়ী চারজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে পুরুষ মহিলা দুইই রয়েছেন।