এবার জামিন অযোগ্য ধারায় গ্রেপ্তার রূপা গাঙ্গুলির ছেলে, আদালতে যাওয়ার হুমকি দিলেন আকাশের আইনজীবী
দুর্ঘটনাগর্স্ত গাড়ি(Photo Credit: ANI Twitter)

কলকাতা, ১৬ আগস্ট:  বেপরোয়া গাড়ি চালিয়ে রয়্যাল ক্যালকাটা গল্ফ ক্লাবের (RCGC) পাঁচিলে ধাক্কা মারার অভিযোগে জামিন অযোগ্য ধারায় গ্রেপ্তার রূপা গাঙ্গুলির (Rupa Ganguly) ছেলে আকাশ। তাঁর বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৭৯, ৪২৭(অন্যের সম্পত্তি ক্ষতি করা), মোটর ভেহিকল অ্যাক্টের বিভিন্ন ধারা এবং ৩ পিডিপিপি অ্যাক্টে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। এরপরেই আকাশের আইনজীবী দিব্যেন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, সরকারি সম্পত্তি নষ্ট হলে পিডিপিপি (PDPP) আইনের আওতায় মামলা হতে পারে। কিন্তু যে পাঁচিলটি ভেঙেছে সেটি তো বেসরকারি সম্পত্তি, তাহলে কীকরে এমন মামলা দায়ের করল পুলিশ বুঝতে পারছি না। তবে এনিয়ে আমরা আদালতে যাব। আরও পড়ুন-বেপরোয়া গাড়ি চালিয়ে রয়্যাল ক্যালকাটা গল্ফ ক্লাবের পাঁচিলে ধাক্কা, আটক বিজেপি সাংসদ রূপা গাঙ্গুলির ছেলে

জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাতে রয়্যাল ক্যালকাটা গল্ফ ক্লাবের পাঁচিলে কালো রঙ্গে সেডান গাড়ি নিয়ে ধাক্কা মারেন আকাশ। গাড়ির গতি এতটাই তীব্র ছিল যে পাঁচিল ভেঙে প্রায় পাঁচফুট ঢুকে যায়। সেই অবস্থাতেই বাবা ধ্রুব গাঙ্গুলিকে ফোন করেন তিনি। পরে ধ্রুববাবু এসে ছেলেকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যান। ঘটনাস্থলের উল্টোদিকেই আকাশের বাড়ি। পরে যাদবপুর থানার পুলিশ আকাশকে আটক করে। মত্ত অবস্থায় গাড়ি চালাচ্ছিল কি না তা জানতে এম আর বাঙুরে তাঁর মেডিক্যাল পরীক্ষাও হয়। তবে তাতে কিছুই ধরা পড়েনি। পরিবারের দাবি, এই দুর্ঘটনায় আকাশের কোনও হাত নেই। কয়েকদিন আগেই তিনি দিল্লি থেকে ফিরেছেন। আর দীর্ঘদিন ধরে সেডান গাড়িটি বাড়ির গ্যারাজে পড়েছিল। চালানো হয়নি। গাড়ির অ্যাক্সিলেটর খারাপ হয়ে যাওয়াতেই নাকি সব বিপত্তি ঘটেছে। আকাশের পাশাপাশি তাঁর বাড়িরও লোকেরও এটাই দাবি। আকাশ জেরায় জানান, রাতে বাড়ি ফেরার সময় অ্যাক্সিলেটর কিছুতেই কাজ করছিল না। এর জেরে গাড়ির গতি বাড়তে থাকে। একপাশে রাস্তায় লোকজনের ভিড়, অন্যদিকে বস্তি। তাই প্রাণহানি এড়াতে রয়্যাল ক্যালকাটা গল্ফ ক্লাবের পাঁচিলই তাঁর চোখে পড়েছিল। এক্ষেত্রে আকাশ সত্যি বলছেন কি না তা জানতে গাড়ির মেকানিক্যাল পরীক্ষার করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

তবে স্থানীয়দের দাবি, বেপরোয়া গাড়ি চালানোর বহু অভিযোগ রয়েছে আকাশের বিরুদ্ধে। এনিয়ে বেশ কয়েকবার তাঁকে সতর্কও করা হয়েছে, তবে কাজের কাজ যে কিছুই হয়নি তার প্রমাণ গত রাতের ঘটনা। যদিও বিষয়টিনিয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও মন্তব্যই করেননি সাংসদ রূপা গাঙ্গুলি।