Lok Sabha Elections 2024: রচনা, লকেট থেকে অর্জুন সিং-কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, সোমবার বাংলায় ভাগ্যপরীক্ষা যেসব তারকা প্রার্থীদের
Rachana Banerjee, Locket Chatterjee, Arjun Singh. (Photo Credits: X)

পার্থ প্রতিম চন্দ্র: দেশের সঙ্গে বাংলাতেও আগামী সোমবার হতে চলেছে পঞ্চম দফার ভোটগ্রহণ। এই দফায় রাজ্যের ৭টি লোকসভা আসনে ভোট হতে চলেছে। সোমবার, ২০ মে ভোটগ্রহণ হবে- হুগলি জেলার ৩ টি কেন্দ্র: শ্রীরামপুর, হুগলি ও আরামবাগ। হাওড়া জেতার ২টি কেন্দ্র: হাওড়া ও উলুবেড়িয়া। উত্তর ২৪ পরগণার দুটি কেন্দ্র- ব্যারাকপুর ও বনগাঁ-য়।

দিদি গড়ে ভোটে এবার বিজেপি কতটা দাঁত ফোটাতে পারে সেটাই দেখার। গত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি বাংলায় ঝড় তুললেও এই সাতটা কেন্দ্রের মধ্যে তৃণমূল জিতেছিল ৪টি (আরামবাগ, হাওড়া, উলুবেডিয়া, শ্রীরামপুর)-তে, পদ্মের দখলে ছিল ৩টি (হুগলি, ব্যারাকপুর ও বনগাঁ)।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক পঞ্চম দফায় বাংলার তারকা প্রার্থীদের-

১) রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় (হুগলি): যে হুগলির সিঙ্গুরের আন্দোলন থেকে রাজ্য় রাজনীতিতে মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়ের সিংহাসন প্রাপ্তি হয়েছে, সেই হুগলি গত লোকসভায় হাতছাড়া হয় দিদির। এবার হুগলি পুনরুদ্ধারে দিদির বাজি 'দিদি নম্বর ওয়ান'। জনপ্রিয় অভিনেত্রী-সঞ্চালিকা রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির জয়ের লকেট ছিনিয়ে নিতে গত কয়েক দিনে পরিশ্রম করেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু বিতর্কিত মন্তব্যে রচনা ভাইরাল হয়েছেন। তবে দিদি নম্বর ওয়ানকে হাতের সামনে পেয়ে হুগলির মহিলারা যে ভালাবাসা দিচ্ছেন তা ধরা পড়ছে।

২) লকেট চট্টোপাধ্যায় (হুগলি): গতবার রত্না দে নাগ-কে হারিয়ে হুগলিতে পদ্ম ফোটানো লকেটের সামনে এবার বড় চ্যালেঞ্জে তৃণমূলের রচনা লেখার সুযোগ না দেওয়া। ২০১৯ বিধানসভা দাঁড়িয়ে চুঁচুড়ায় লজ্জার হারের মুখে পড়তে হয়েছিল লকেট-কে। লকেটের এবার অগ্নিপরীক্ষা।

৩) অর্জুন সিং (ব্যারাকপুর): গতবার তৃণমূলের টিকিট না পেয়ে বিজেপি-তে দাঁড়িয়ে দিদির প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদী-কে হারিয়ে অঘটন ঘটিয়েছিলেন অর্জুন সিং। এবারও ব্যারাকপুরে লক্ষ্যভেদ করতে পারবেন কি ঠিক গতবারের মত নাটকীয়ভাবে বিজেপি প্রার্থী হয়ে দাঁড়ানো অর্জুন? এবার অর্জুনের সামনে রাজ্যের মন্ত্রী তথা নৈহাটির বিধায়ক পার্থ ভৌমিক।

৪) পার্থ ভৌমিক (ব্যারাকপুর): নির্বাচন যুদ্ধে এখনও পর্যন্ত অপরাজিত অর্জুন সিং। বাম আমলে সিপিএমের শক্ত জমিতে তিনি কাস্তে হাতুড়িকে হারিয়েছেন। মোদী ঝড়ের মাঝেও ভাটপাড়ায় অনায়াসে তৃণমূলের টিকিটে জিতেছিলেন। আবার বিজেপি-তে গিয়ে দিদির মজবুত গড় হিসেবে পরিচিত ব্যারাকপুরে তৃণমূল-কে হারিয়েছেন। অপরাজিত অর্জুনের রথের চাকা আটকানোর চ্যালেঞ্জ মমতার সারথী পার্থ ভৌমিকের।

৫) প্রসূণ বন্দ্যোপাধ্যায় (হাওড়া): হাওড়ায় হ্যাটট্রিকের হাতছানি তৃণমূলের ফুটবলার-বিদায়ী সাংসদ প্রসূণ বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের। ২০১৩ লোকসভার উপনির্বাচনে জিতে প্রথমবার সাংসদ হয়েছিল প্রসূণ। এরপর টানা দুটো সাধারণ নির্বাচনে জিতেছেন। প্রথমবার ২০১৪ লোকসভায় তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন সিপিএমের শ্রীদীপ ভট্টাচার্য, আর ২০১৯ লোকসভায় বিজেপির রন্তীদেব সেনগুপ্ত। এবার প্রসূণের প্রতিপক্ষ বিজেপি-র রথীন চক্রবর্তী ও সিপিএমের সব্যসাচী চট্টোপাধ্যায়।

৬) কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় (হুগলি): ২০০৯ থেকে টানা চারটে লোকসভায় শ্রীরামপুর থেকে জিতে আসছেন। গত ১৫ বছরে তৃণমূলে কতা নেতা এলেন, গেলেন, কিন্তু শ্রীরামপুরে দিদির ভরসা সেই কল্যাণ। মুখটা সব সময় সামলাতে পারেন না, কিন্তু আস্থার পাত্র, কাজের মানুষ, দলের খারাপ সময়ে পাশে থাকেন। সেই কল্যাণ এবারও সেই শ্রীরামপুরে প্রার্থী। এবার আবার কল্যাণের প্রতিপক্ষ তাঁর প্রাক্তন জামাই কবীর শঙ্কর বসু। কংগ্রেস সমর্থিত সিপিএম প্রার্থী দীপশ্তা ধরও লড়ছেন।

৭) শান্তনু ঠাকুর (বনগাঁ, বিজেপি):  গতবার মমতাবালা ঠাকুরকে লক্ষাধিক ভোটে হারিয়ে সাংসদ হয়ে মোদীর কাছে ভাল নম্বর পাওয়া শান্তনু ঠাকুরের কাছে এবার অগ্নিপরীক্ষা ।  মতুয়া গড় ধরে রাখতে না পারলে রাজ্য রাজনীতিতে বিজেপির লড়াই একেবারে কঠিন হয়ে পড়বে। শান্তনুর প্রতিপক্ষ তৃণমূলের পোড়খাওয়া নেতা তথা বাগদার বিধায়ক বিশ্বজিত দাস প্রচারে পরিশ্রম করেছেন।

এ ছাড়াও আছেন-দেবদূত ঘোষ(ব্যারাকপুর/সিপিএম), রথীন চক্রবর্তী (হাওড়া/বিজেপি), সাজদা আহমেদ (উলুবেড়িয়া/তৃণমূল)।