থাইল্যান্ডে শ্যুটিংয়ে গিয়ে শহরের অভিনেত্রীকে নির্যাতন-হেনস্থা, উদ্ধার PMO-র সাহায্যে
অভিনেত্রীকে হেনস্থা। Representational Image. (Photo Credit: File Photo)

কলকাতা, ২০ জুলাই: থাইল্যান্ডে এক ট্র্যাভেল এজেন্সির শ্যুটিংয়ে গিয়ে চরম হেনস্থার মুখে পড়লেন কলকাতার এক তরুণী। বছর বাইশের ওই তরুণীর অভিযোগ, শ্যুটিংয়ের নামে তাঁকে আটকে রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা হয়েছে। সংবাদমাধ্যমে দেহের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের দাগও দেখান তিনি। শুধু তাই নয় শুটিং থেকে চলে আসতে চাইলে তাঁর পরিবারের কাছ থেকে ২ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণেরও দাবি করে পরিচালক ও অন্যান্যরা। তা না দিলে তাকে ছাড়া হবে না বলেও হুমকি দেওয়া হয়েছিল।

কলকাতার বিভিন্ন নিউজ চ্যানেলে এই খবর দেখানো হয়। অনেক কষ্টে বাড়ির লোকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারার পর শেষ অবধি তরুণীকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর দফতরের সঙ্গে যোগাযোগ করেন পরিবারের লোকজন। তার পরেই সক্রিয় হয়ে ওঠে থাইল্যান্ডে ভারতীয় দূতাবাস। আরও পড়ুন-বারাণসী বিমানবন্দরে আটক তৃণমূলের প্রতিনিধি দল

সেখানকার আধিকারিকদের সহায়তায় দেশে ফেরেন ওই তরুণী। মুম্বইয়ের এক ট্র্যাভেল এজেন্সির প্রমোশনাল শুটিংয়ে থাইল্যান্ডে গিয়েছিলেন বেনিয়াপুরুরের বাসিন্দা বছর ২৩-এর সেই তরুণী। কিন্তু সেখানে গিয়ে অন্য মূর্তি ধরেন পরিচালক ও অন্যান্য কর্মীরা। শুক্রবার রাতেই বেনিয়াপুকুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ওই তরুণী। অভিযোগ আনা হয়েছে ট্রাভেল এসেন্সির এক প্রবাসী কর্তা ও ২ মহিলার নামে।

ঠিক কী করা হয়েছিল অভিনেত্রীকে? সূত্রের খবর, শ্যুটিংয়ের পর তাঁকে আটকে রেখে কার্যত মুক্তিপণ দাবি করা হয়। কোনও কারণ ছাড়াই তাঁকে চুক্তিভঙ্গের অভিযোগে স্থানীয় পুলিশের কাছে ভুয়ো পাসপোর্ট রাখার অভিযোগে গ্রেফতার করানোর ভয় দেখানো হয় বলে অভিযোগ। চলে অসম্ভব শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। তাঁর পরিবারের কাছ থেকে ২ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণেরও দাবি করে পরিচালক ও অন্যান্যরা। তা না দিলে তাকে ছাড়া হবে না বলেও হুমকি দেওয়া হয়েছিল।