মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাম-কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের কথা বলেননি, 'মিডিয়া গল্প বলছে'
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, আবদুল মান্নান ও সুজন চক্রবর্তী(File Photo)

কলকাতা, ২৭জুন: রাত কাটতে না কাটতেই ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গেল শাসক তৃণমূল কংগ্রেস (TMC)। বিধানসভায় তৃণমূলের পরিষদীয় দলের তরফে জানানো হল, বাম কংগ্রেসের সঙ্গে কোনওরকম জোটের কথা বলেননি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (CM Mamata Banerjee)। গোটা ঘটনার জন্য সংবাদ মাধ্যমের দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলে বলা হল, মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের অপব্যাখ্যা করেছে মিডিয়া। এরপরেই বৃহস্পতিবার বিধানসভায় হইচই শুরু হয়ে যায়। সুজন চক্রবর্তী (Sujon Chakraborty)আসন ছেড়ে স্পিকারের আসনের দিকে তে়ড়ে যান। মার্শালদের সঙ্গে তাঁর ধস্তাধস্তি শুরু হয়ে গেলে আসরে নেমে পড়েন বাম ও তৃণমূল বিধায়করা। পরস্পরের দিকে কাগজ ছোঁড়াছুঁড়ি শুরু করে দেন। আরও পড়ুন-বিজেপিকে ঠেকাতে তৃণমূল জোট চাইলেও মমতাকে সমস্বরে না বলল বাম-কংগ্রেস, কী বললেন মুখ্যমন্ত্রী?

 

কিছুক্ষণের মধ্যেই ওয়াক আউট করেন বাম ও কংগ্রেস বিধায়করা। মুখ্যমন্ত্রী বুধবার যে ফুলটস দিয়েছিলেন, তা বুধবার ব্যাট উঁচিয়ে খেলার সব রকম চেষ্টা করেছিল কংগ্রেস ও সিপিএম। বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নান (Abdul Mannan) বলেছিলেন, বাংলায় বিজেপি-কে নেমন্তন্ন করে এনেছিলেন মমতা। আর সুজনবাবুরা বলেছিলেন, তৃণমূলের সঙ্গে হাত মেলানোর কোনও প্রবৃত্তিই নেই। এই পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার বিধানসভার অধিবেশন শুরু হওয়ার পর একটি বিবৃতি পড়ে শোনাতে চান পরিষদীয় প্রতি মন্ত্রী তাপস রায়। তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রী বাম ও কংগ্রেসের সঙ্গে কোনও জোটের কথা বলেননি। যে ভাবে জাতীয় স্তরে বিজেপি-বিরোধী ২৩টি দল একজোট হয়েছে। উনি সে রকমই একটা ব্যবস্থার কথা বলেছিলেন। সংবাদমাধ্যমে ওঁর কথার ভুল ব্যাখ্যা করা হচ্ছে।

বাংলায় বিজেপি-কে রুখে দেওয়ার প্রশ্নে বুধবার বিধানসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্পষ্টতই বলেছিলেন, ‘মান্নানভাই, সুজনদা চলুন আমরা জয়েন্টলি করি। এক সঙ্গে বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই করি’। কোন ভাবনা থেকে তিনি বাম-কংগ্রেসের সঙ্গে হাত মেলানোর কথা বলেছিলেন, তা স্পষ্ট ভাবে সকলের কাছে পৌঁছয়নি। উল্টে মমতার প্রস্তাবে সপাটে খারিজ করে বাম-কংগ্রেস যৌথ ভাবে প্রশ্ন তুলেছিল, “সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে আপনি কি আন্তরিক? খাল কেটে আপনিই তো কুমীর এনেছেন!” শুধু তা-ই নয়, অনেকে এই ব্যাখ্যা করতেও শুরু করেন, যে মমতার এই কথায় তাঁর দুর্বলতাই প্রকাশ পেয়ে যাচ্ছে। উনি নিজেই বুঝিয়ে দিচ্ছেন বিজেপি-কে একা ঠেকানোর আত্মবিশ্বাস তাঁর আর নেই। এরপরই রাতারাতি অবস্থান বদল করে ফেল শাসক তৃমমূল যার প্রতিফলন এদিনের বিধান সভায় দেখা গিয়েছে।