সারদার পর এবার রোজভ্যালি কাণ্ডেও রাজীব কুমারকে নোটিশ পাঠাল CBI, দ্রুত হাজিরার নির্দেশ
রাজীব কুমার (Photo Credits: IANS)

কলকাতা, ২২ সেপ্টেম্বর : সারদার পর এবার রোজ় ভ্যালিকাণ্ডেও (Rose Valley case) কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে (Rajeev Kumar) নোটিশ পাঠাল সিবিআই (CBI)। আনন্দবাজারের খবর অনুযায়ী, রবিবার দুপুরে ৩৪ নম্বর পার্ক স্ট্রিটে রাজীবের বাসভবনে পৌঁছোন সিবিআই কর্তারা। ওই দলে ছিলেন এক মহিলা আধিকারিকও। সিবিআইয়ের একটি সূত্রে খবর, কলকাতা পুলিশের প্রাক্তন কমিশনারের স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি এ বার রোজ়ভ্যালি কাণ্ডেও রাজীব কুমারকে নোটিস দেওয়া হয়েছে। অবিলম্বে তাঁকে সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআই দফতরে হাজির হতে বলা হয়েছে।

এদিকে এখনও 'পলাতক' কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার (Rajeev Kumar)। তাঁর নাগাল পেতে মরিয়া সিবিআইও (CBI)। কলকাতাসহ রাজ্যের অন্য জায়গায় তারা তল্লাশি চালাচ্ছে। রবিবারও শহরের বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালান কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার অফিসাররা। ২৪ ঘণ্টার খবরে প্রকাশ, কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার ৫ দল হানা দিচ্ছে শহরের বিভিন্ন জায়গায়। দুপুরে ৩৪ পার্কস্ট্রিটে রাজীব কুমারের কোয়ার্টারে ফের হানা দেয় সিবিআই দল। প্রায় পনেরো মিনিট ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় রাজীবের স্ত্রী সঞ্চিতা কুমারকে(Sanchita Kumar)। এরপর সেখান থেকে বেরিয়ে মা ফ্লাইওভার ধরে সল্টলেকের দিকে রওয়া হয় ওই দল। অন্যদিকে আলিপুরের বডিগার্ড লাইনেও চলে তল্লাশি। আরও পড়ুন : Rajeev Kumar: রাজীব কুমারের খোঁজে তল্লাশি জারি, প্রাক্তন নগরপালের স্ত্রীকে ফের জিজ্ঞাসাবাদ CBI-র

কলকাতার প্রাক্তন নগরপাল তথা বর্তমান এডিজি সিআইডি (ADG-CID) রাজীব কুমারের খোঁজ পেতে তাঁর ঘনিষ্টদের দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। শনিবার সিবিআইয়ের পক্ষ থেকে একটি চিঠি দেওয়া হয়েছে ডিসি পোর্ট মির ওয়াকার রেজ়াকেও। বেশ কয়েকজন বড় ব্যবসায়ীর উপরেও নজর রয়েছে গোয়েন্দাদের। রয়েছে একটি ট্রাফেল এজেন্সির নামও। তাঁরা মনে করছেন রাজীব কুমারকে গা ঢাকা দিতে সাহায্য করছেন ওরাই। সারদাকাণ্ডে (Sarada Case) কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে (Rajeev Kumar) হেফাজতে নিতে চাইছে সিবিআই (CBI)। যদিও রাজীব কুমারের খোঁজ নেই। শনিবার আলিপুর আদালত রাজীব কুমারের আগাম জামিনের আবেদন খারিজ করে দিয়েছে। তাই রবিবার যথেষ্ট তৎপরতা চোখে পড়েছে সিবিআই দফতরে। আজ একযোগে সিবিআই-এর ৫টি টিম সিজিও কমপ্লক্সে থেকে বেরিয়ে শহরের বিভিন্ন জায়গায় রাজীব কুমারের খোঁজে হানা দিয়েছে।

আলিপুর বডিগার্ড লাইন্সে কলকাতা পুলিশের কন্ট্রোল রুমেও পৌঁছে গেছিলেন গোয়েন্দারা। তল্লাশির পাশাপাশি এ দিন সল্টেলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে রাজীবের দেহরক্ষীকে জেরা করা হয়েছে। রাজীবের আত্মগোপনে সাহায্যকারী কয়েক জন ব্যবসায়ীর নামও উঠে আসছে। তাঁদের কী ভূমিকা রয়েছে, তা-ও খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা। সিবিআইয়ের একটি সূত্রে জানা গিয়েছে, রাজীব-ঘনিষ্ঠ এক পুলিশ কর্তাকেও নোটিশ পাঠানো হয়েছে।