সংস্থার সিইও পদে AI রোবট, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার নির্দেশনায় কাজ করবে মানুষ
AI Robot Representative Image (Photo Credits: Pixabay)

যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিজ্ঞান আর প্রযুক্তির ধরাছোঁয়ার বাইরে বোধ হয় আর কোন কিছুই নেই। সবই সম্ভব হয়ে উঠছে আসতে আসতে। মানুষের হাতের তৈরি রোবটের নির্দেশে চলছে এবার মানুষই। শুনতে অবিশ্বাস্য মনে হলেও এটাই সত্যি। এতো দিন রোবট চলত মানুষের নির্দেশনায়। এবার রোবটের নির্দেশে চলবে মানুষ। পোল্যান্ডের একটি কলম্বিয়ান রাম (মদ) কোম্পানি ( Colombian Rum Company) তাদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বা সিইও (CEO) পদে একটি AI (Artificial Intelligence) রোবটকে নিয়োগ করেছে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্বারা পরিচালিত ওই রোবটের নাম মিকা (Mika)। বিশ্বে এমন ঘটনা প্রথম ঘটল। পোল্যান্ডের ওই সংস্থার এই দূরদর্শী সিদ্ধান্তটি আলোড়ন ফেলে দিয়েছে গোটা বিশ্বজুড়ে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং রোবোটিক্স কর্পোরেটের সঙ্গে মানব সভ্যতার এমন মেলবন্ধন ভবিষ্যতে কোটি কোটি মানুষের কর্মসংস্থান হারা হওয়ার আশঙ্কাকে যেন আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।

Dictador এবং Hanson Robotics-এর মেলবন্ধনে গবেষণা প্রকল্পের ফলাফল হল মিকা। এআই (AI) ক্ষমতা সহ মানুষের মতো রোবট তৈরিতে বিশেষজ্ঞ একটি বিখ্যাত কোম্পানি তৈরি করেছে মিকাকে (AI Robot Mika)। সংস্থার সিইও পদে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা চালিত ওই রোবটটি নিযুক্ত হওয়ার পর থেকেই আলোড়ন পরে গিয়েছে বিশ্বজুড়ে।

মিকাকে সংস্থার মাথায় বসে কাজ পরিচালনা করার জন্য, বোর্ডের সদস্য হওয়া কিংবা কৌশলগত সিদ্ধান্তগুলিকে প্রভাবিত করার জন্যে এআই-এর উন্নত প্রযুক্তি প্রদান করা হয়েছে। ব্যবসার ভবিষ্যতে প্রযুক্তি কীভাবে বিপ্লব আনতে পারে মিকার কার্যক্ষমতা বিশ্লেষণ করে চলুন তা দেখে নেওয়া যাক...

ডেটা-চালিত সিদ্ধান্ত গ্রহণঃ

মিকার মূল শক্তি হল উন্নত কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। যা তাকে দ্রুত, নির্ভুল এবং ডেটা-চালিত সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম করে তোলে।

দক্ষতা এবং নির্ভুলতাঃ

প্রচুর পরিমাণে ডেটা প্রক্রিয়াকরণের ক্ষমতা রয়েছে মিকার। বাজারের প্রবণতা বিশ্লেষণ করে, ঝুঁকি মূল্যায়ন করে দক্ষতা সহকারে নির্ভুল সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

হিউম্যানাইজিং এআইঃ

মিকাকে বানানোর সময়ে AI-কে 'মানবিকীকরণ' করার উপর জোর দেওয়া হয়েছে। রোবটের এআই সিস্টেমে অনুভুতি সহ বেশ কিছু মানুষের প্রবণতা প্রদান করা হয়েছে।

কৌশলগত উদ্ভাবনঃ

সংস্থার সিইও পদে মিকার নিয়োগ কেবল প্রযুক্তির অগ্রগতি নয় বরং ব্যবসায়িক নেতৃত্বেও এটি একটি কৌশলগত উদ্ভাবনের দিক খুলে দেবে। একজন সিইও হিসেবে মিকার উপস্থিতি অন্যান্য সংস্থাকেও আগামী দিনে এই পদক্ষেপ নেওয়ার জন্যে প্রভাবিক করতে পারে।