Crypto Scam: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রতারণার শিকার এক ভারতীয় মহিলা, হারালেন জীবনের সব সঞ্চয়
Credit: Pixabay

নিজেকে মদ ব্যবসায়ী বলা এক ব্যক্তি ইন্টারনেটের মাধ্যমে কয়েক মাসের চেষ্টায় ভালোবাসার জালে ফাঁসান এক ভারতীয় মহিলাকে। এরপর ফিলাডেলফিয়ায় বসবাসকারী ওই মহিলার সঙ্গে ছল করে নেওয়া হয় ৪.৫ লক্ষ ডলার অর্থাৎ প্রায় ২.৫ কোটি টাকা। ক্রিপ্টোকারেন্সির এই নতুন ধরনের 'রোমান্স স্ক্যাম'-এর শিকার হয় ৩৭ বছর বয়সী ভারতীয় মহিলা শ্রেয়া দত্ত। সারা জীবনের সঞ্চয় হারিয়ে ফেলার পাশাপাশি ঋণের সুদের চাপও এসে পড়ে তার উপর। এই আধুনিক প্রযুক্তি কেলেঙ্কারিতে, প্রতারকরা এমন পদ্ধতি ব্যবহার করছে যার জেরে প্রতারিত ব্যক্তির মনে হচ্ছে তার মস্তিষ্ক হ্যাক করা হয়েছে।

আমেরিকায় এই ধরনের প্রতারণাকে বলা হয় "পিগ কসাই"। তবে এই জালিয়াতিতে পদ্ধতি একই রকম রয়েছে। প্রথমে প্রেমের জালে ফাঁসিয়ে পড়ে শিকার। এরপর তাদের ক্রিপ্টো মুদ্রায় প্রতারণামূলক বিনিয়োগ করার জন্য জোর করা হয়। জানা গেছে, হয়তো এই ধরনের জালিয়াতি দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার বড় চক্রের দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে, যার জেরে শুধু আমেরিকাতেই প্রতারণা করা হয়েছে কোটি কোটি ডলার এবং সেই অর্থ ফেরত পাওয়ার কোনও সম্ভাবনা নেই।

অন্যান্য অনেক গল্পের মতো শ্রেয়া দত্তের গল্প শুরু হয়েছিল "কবজা" নামে একটি ডেটিং অ্যাপের মাধ্যমে। এই অ্যাপে, গত বছরের জানুয়ারিতে, আনসেল নামে একজন ব্যক্তির সঙ্গে পরিচয় হয় শ্রেয়ার। যিনি নিজের পরিচয় দিয়েছিলেন ফিলাডেলফিয়ায় বসবাসকারী একজন ফরাসি ওয়াইন ব্যবসায়ী হিসেবে। শ্রেয়া জানান, তিনি খুব শীঘ্রই আনসেলের প্রতি আকর্ষিত হয়ে পড়েছিলেন এবং কথোপকথন ডেটিং অ্যাপ থেকে হোয়াটসঅ্যাপে কথা বলা শুরু করেন। অনলাইন সম্পর্কের যুগে এটি একটি খুব নতুন অভিজ্ঞতা ছিল তার।

এরপর তারা একে অপরকে একাধিক ছবি পাঠানোর পাশাপাশি ভিডিওতেও অনেকবার কথা বলেছেন। কথোপকথন খুবই সুন্দর করে করলেও ব্যক্তিগতভাবে দেখা করার পরিকল্পনা সবসময় এড়িয়ে যেত আনসেল। ভিডিও কলগুলিতে, আনসেলকে দেখে শ্রেয়ার মনে হয় কুকুরের সঙ্গে বসবাসকারী একজন লাজুক ব্যক্তি তিনি। কিন্তু পরে জানা যায় যে এটি এআই মাধ্যমে তৈরি একটি ডিপফেক ছিল।

এরপর একদিন আনসেল একটি ক্রিপ্টো ট্রেডিং অ্যাপ ডাউনলোড করার জন্য একটি লিঙ্ক পাঠায় শ্রেয়াকে। এটিতে দ্বি-ফ্যাক্টর প্রমাণীকরণের বৈশিষ্ট্য থাকায় সবকিছু ঠিকঠাক মনে হয়েছিল শ্রেয়ার। এরপর বিনিয়োগের কিছু টিপসও দেন ওই ব্যক্তি। শ্রেয়া প্রথমে তার কিছু সঞ্চয় ক্রিপ্টোকারেন্সিতে রূপান্তরিত করেন। প্রাথমিকভাবে তিনি সেই জাল অ্যাপের মাধ্যমে লাভবান হলে তার মনোবল বেড়ে যায়। এরপর আনসেল আরও বিনিয়োগ করার জন্য উৎসাহ করে শ্রেয়াকে। ওই ব্যক্তি শ্রেয়াকে ঋণ নিতে এবং তার অবসর ফান্ডও বিনিয়োগ করতে বলে।

গত বছরের মার্চের মধ্যে শ্রেয়া প্রায় সাড়ে ৪ লক্ষ ডলার বিনিয়োগ করে অ্যাপটি থেকে দ্বিগুণ অর্থ ফেরত পান। কিন্তু তিনি যখন তার টাকা তোলার চেষ্টা করেন তখন বাজে বিপদের ঘণ্টা। এরপর অ্যাপটি ট্যাক্স দেওয়ার জন্য বলে। এইসব দেখে শ্রেয়া লন্ডনে বসবাসরত তার ভাইয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ভাই আনসেলের ছবি যাচাই করে জানতে পারেন ছবিটি জার্মানিতে বসবাসকারী একজন ফিটনেস ইনফ্লুয়েন্সারের। যতদিনে শ্রেয়া বুঝতে পারেন যে তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন ততদিনে তিনি সমস্ত অর্থ হারিয়ে ফেলেছেন।