Endangered Tokay Gecko: বিপন্ন প্রজাতির তক্ষক 'টোকাই গোকো'  HIV সারাতে ও যৌনক্ষমতা বাড়াবে, দাবি বন্যপ্রাণ সংরক্ষণ কর্মীর
টোকাই গেকো (Photo Credits: Jayanta K Das Twitter)

Endangered Tokay Gecko Can Cure HIV and Enhance Sex Life: টোকাই গেকো (Tokay Gecko)। এক ধরনের বিপন্ন প্রজাতির তক্ষক। এই তক্ষকের মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে নাকি HIV বা এইডস রোগ থেকে বাঁচার উপায়। আবার যৌনক্ষমতা বাড়াতেও নাকি টোকাই গেকো-ই হবে সেরা অস্ত্র। একজন প্রবীণ সাংবাদিক ও বন্যপ্রাণ সংরক্ষণ কর্মী জয়ন্ত দাস টোকাই গেকো (Tokay Gecko) উদ্ধারের পর এমন দাবিই করলেন। এই টোকাই গেকো নামক বিরল প্রজাতির তক্ষকটিকে প্রধানত দেখতে পাওয়া যায় অসম (Assam) ও অন্যান্য উত্তরপূর্বের (North East) রাজ্যগুলিতে। নিজের হাতের ওপর রাখা ছোট্ট টোকাই গেকোর হাত রেখে টুইটে পোস্ট করলেন ছবি। নিচে ক্যাপশন দিলেন চোরাশিকারিদের হাত থেকে উদ্ধার করা সরীসৃপ। টুইটে তিনি দাবি করেন, চোরাশিকারীরা ২০ লক্ষ টাকার বিনিময়ে কিনতে চেয়েছিলো এই সরীসৃপটিকে।

তিনি গর্বের সঙ্গে জানান তাঁর কাছে টাকার থেকে বন্য প্রাণীর সংরক্ষণ করাটা বেশি প্রয়োজনীয় বলে মনে হয়। টোকাই গেকোর সবচেয়ে বেশি চোরাকারবারি হয় চীন (China) ও কোরিয়ায় (Korea)। বলা হয়, টোকাই গেকো এইচআইভি রোগ সারাতে সক্ষম। আবার যৌনজীবন বৃদ্ধি করতেও সক্ষম। ৮০- ৯০ বছর পর্যন্ত যৌনজীবন বৃদ্ধি করাতে পারে।

আরও পড়ুন, রুটি নুন খাচ্ছে পড়ুয়ারা, উত্তর প্রদেশের স্কুলের মিড-ডে মিলের মেনু ভাইরাল

গেকোর ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করে তিনি বলেছেন, ' চোরাশিকারিদের হাত থেকে রক্ষা করে বন্যজীবনে ফিরিয়ে দিলাম টোকাই গেকোকে। চোরাশিকারীরা ওর জন্য ২ মিলিয়ন আইএনআর দিতে প্রস্তুত ছিল। তারা খোঁজ পাওয়ার আগেই ওকে জঙ্গলে ছেড়ে দিয়ে আসি। অনেকটা টাকা হয়তো পেলামনা, কিন্তু আমি একটা বন্যপ্রাণীকে রক্ষা করতে পেরে অনেক বেশি সুখী। দেখুনতো আমার হাতের ওপর ওর ছোট্ট হাতটা কি সুন্দর লাগছে।'

তিনি আরও জানান,' গেকোর জিভের থেকে একধরনের কেমিক্যাল বেরোয় যা এইচআইভি কমাতে সক্ষম। এছাড়াও যৌনজীবন বাড়িয়ে ৮০- ৯০ বছর বয়স পর্যন্ত নিয়ে যেতে পারে। এদের সাধারণত আসাম বা উত্তরপূর্বের দেখতে পাওয়া যায়।'

এই ছবিটি টুইটে ভাইরাল হওয়ার পর তাঁকে অভিনন্দন দিতে থাকেন প্রচুর মানুষ। তাঁর এই মহৎ কাজের জন্য ধন্যবাদ জানায় অনেকে। এই গেকো ডায়বেটিস, আজমার মতো রোগ সারাতেও সক্ষম। টেকোর চোরাকারবার উত্তরপূর্ব ভারতে বিপজ্জনক ব্যবসা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এদের মায়ানমার ওঅন্যান্য জায়গায় পাচার করা হয়।