Saraswati Puja Prasad 2024 : ৫ টি মিষ্টি হলুদ খাবার যা দেওয়া যাবে বসন্ত পঞ্চমীতে দেবী সরস্বতীর ভোগে

ভারতে বসন্ত ঋতু পরিবর্তনের প্রতীক, এই দিন থেকে শীতের বিদায় এবং গ্রীষ্মের আগমন হয়। বছরের সেরা ঋতু হওয়ায় বসন্ত ঋতুকে 'ঋতুর রাজা' বলা হয়। তবে সনাতন ধর্মে এই দিনটির একটি বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। পৌরাণিক গ্রন্থ অনুসারে, এই দিনে বিদ্যা, বুদ্ধি, জ্ঞান, সংগীতের দেবী মা সরস্বতীর পুজো করা হয়। ২০২৪ সালের, ১৪ ফেব্রুয়ারি, বুধবার বসন্ত পঞ্চমীর দিনে দেবী সরস্বতীর পুজো করা হবে। হিন্দু ধর্মীয় শাস্ত্র অনুসারে, বসন্ত পঞ্চমী উপলক্ষে মা সরস্বতীকে হলুদ ফুল, হলুদ চন্দন, হলুদ বস্ত্র, হলুদ ফল দিয়ে সাজানো হয়। মা সরস্বতী হলুদ খাবারও পছন্দ করেন। কথিত আছে, এই দিন আরাধনার সময় দেবীকে তার পছন্দমতো খাবার নিবেদন করলে দেবী সরস্বতী খুশি হন এবং ভক্তদের সব ইচ্ছা পূরণ করেন। আসুন জেনে নেওয়া যাক মা সরস্বতীকে কী ধরনের খাবার নিবেদন করা উচিত এবং পুজোর পর কী ধরনের খাবার প্রসাদ হিসেবে খাওয়া উচিত।

কেশর রাইস: কেশর রাইস এবং দুধের ক্ষীর তৈরি করে প্রসাদ হিসাবে দেবী সরস্বতীকে নিবেদন করুন। মান্যতা আছে যে কেশর রং এবং সুগন্ধযুক্ত কেশর ক্ষীর দেবী সরস্বতীর খুব প্রিয়। এর বসন্ত রং ভালোর প্রতীক হিসেবেও বিবেচনা করা হয়।

কেশরের হালুয়া: কেশরযুক্ত হালুয়াও দেবী সরস্বতীর খুব প্রিয় বলে মনে করা হয়। বসন্ত পঞ্চমীর দিন, প্রসাদ হিসেবে দেবী সরস্বতীকে কেশরের হালুয়া নিবেদন করুন। শুকনো ফল দিয়ে হালুয়া সাজান, এটি সমৃদ্ধির প্রতীক এবং দেবী সরস্বতীরও প্রিয়।

বেসনের লাড্ডু: বসন্ত পঞ্চমীর দিন ভাজা বেসন, খাঁটি ঘি এবং চিনি দিয়ে তৈরি ঐতিহ্যবাহী লাড্ডু। মিশ্রণে হালকা হলুদ রং মেশাতে ভুলবেন না। পুরাণ অনুসারে, হলুদ রংয়ের লাড্ডু দেবী সরস্বতীর খুব প্রিয়।

হলুদ কেশর দুধ: হলুদ স্বাস্থ্যের জন্য খুব উপকারী। বসন্ত পঞ্চমীর দিন দুধে হলুদ, চিনি এবং কেশর মিশিয়ে দেবী সরস্বতীকে নিবেদন করলে তিনি খুশি হবেন।

আম কেশরী: এই সময়, দক্ষিণের রাজ্যগুলির বাজারে নতুন ফসলের আম আসতে শুরু করে। সেই আম থেকে তৈরি যেকোনও হলুদ রংয়ের খাবার দেবী সরস্বতীকে নিবেদন করতে পারেন।