এখনও পর্যন্ত ১২০ কোটি নাগরিকের কাছে আধার কার্ড রয়েছে। অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাব, কর প্রদানে আরও সরলীকরণ করতে প্যান এবং আধার কার্ড দুটোই ব্যবহার হবে। প্যান না থাকলে আধার কার্ড দিয়ে কর প্রদান করা যাবে।

বাজারে আসছে ১,২,৫,১০ ২০ টাকার নতুন কয়েন, বাজেটে জানালেন অর্থমন্ত্রী-র

দৃষ্টিহীনদের সুবিধার জন্য বিশেষভাবে তৈরি নতুন কয়েন বাজারে আসবে খুব তাড়াতাড়ি। ১,২,৫,১০ টাকার পাশাপাশি ২০ টাকার কয়েনও এবার বাজারে আসতে চলেছে। 

স্বচ্ছ ভারত অভিযান দেশের মানুষের নজর কড়েছে। ৯.৬ কোটি টয়লেট তৈরি করা হয়েছে ২০১৪ সালের অক্টোবর থেকে। এবার থেকে স্চ্ছ ভারত অভিযান সলিড ম্যানেজমন্টও হবে। প্রধানমন্ত্রী গ্রামীন ডিজিটাল অভিযানের মাধ্যমে দেশের প্রতিটি পঞ্চায়েত ডিজিটাল আদানপ্রদানের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। ন্যাশনাল স্পোর্টস এডুকেশন বোর্ড তৈরি করা হবে, সমস্ত রকম খেলাধুলোয় উৎসাহ দিতে ও আর্থিক সাহায্য দিতে বোর্ড কাজ করবে।  শহরে ১৩ লাখ ঘর তৈরি করা হয়েছে গরিব মানুষের জন্য। 

 

২০২২ সালের মধ্যে সব ঘরে দেওয়া হবে গ্যাস। ২০২২ সালের মধ্যে দেশের ঘরহীন মানুষের নিজস্ব ঘর হবে।

গ্রামীণ এলাকায় প্রধানমন্ত্রী গ্রাম সড়ক যোজনায় ৮০২৫০ কোটি টাকারও বেশি খরচ করে ১ লাখ কিলোমিটারেরও বেশি রাস্তা তৈরি করা হবে।

২০১৯ সালের ২ অক্টোবরের মধ্যে খোলা শৌচালয় মুক্ত দেশ গড়ার লক্ষ্য

৯৫ শতাংশ শহর খোলা শৌচালয় মুক্ত হয়েছে দেশে। শহরাঞ্চলে ২৪ লক্ষ বাসস্থান তৈরি করে হস্তান্তর করা হয়েছে

গ্রাম থেকে শহরের দিকে চলে আসার প্রবণতার জন্য পরিষেবা দেওয়াই বড় চ্যালেঞ্জ। এই সরকার মনে করে দ্রুত শহরায়ন একটা বড় চ্যালেঞ্জ

আনা হচ্ছে 'প্রধানমন্ত্রী কর্ম যোগী মন ধন যোজনা'। যে যোজনায় ৩৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে সরকার। যার মাধ্যমে বছরে দেড় কোটি টাকার নীচে লেনদেনকারী ছোটো ব্যবসায়ী ও দোকানদারদের পেনশন দেওয়া হবে।

 গত পাঁচ বছরে  দেড় কোটি গ্রামীণ বাড়ি তৈরি করা হয়েছে

প্রতিটি গ্রামের প্রতিটি গ্রামে ২০২২ সালে বিদ্যুৎ ও দূষণহীন জ্বালানি পৌঁছে দেওয়া হবে 

উজ্জ্বলা যোজনায় ৭ কোটি নতুন গ্যাস কানেকশন দেওয়া হয়েছে ।

 গ্রাম-গরিব-কৃষক, আমাদের সরকারের প্রতিটি প্রকল্পে এই লক্ষ্যই থাকে আমাদের সরকারের, বললেন অর্থমন্ত্রী 

 

'ভারতমালা', 'সাগরমালা' প্রকল্পের মাধ্যমে শহর-গ্রামের ব্যবধান কমানোর পরিকল্পনা

২০১৮ থেকে ৩০ এর মধ্যে রেলের জন্য ৫০ লক্ষ কোটি টাকা প্রয়োজন আমরা সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগের পরিকল্পনা করা হয়েছে

দেশের মানুষের জন্য তৈরি করা হবে সস্তার ঘর।

 

২০২০ সালের মধ্যে হলদিয়ায় হবে পণ্য পরিবহন টার্মিনাল। ফরাক্কায় হবে টার্মিনাল লক।

দেশের রাজ্যগুলিতে সড়ক যোগাযোগ আরও উন্নত করা হবে।  ইলেকট্রিক গাড়ি চালু করার ওপরে সরকার জোর দিয়েছে।

 

রুপে কার্ড দেশের অর্থনীতিতে উল্লেখযোগ্য কাজ করছে। ভারতমালা দেশের সড়ক যোগাযোগে বিপ্লব আনব। সাগরমালা প্রকল্প জল পরিবহনের আমূল পরিবর্তন এনে দেবে। এতে শহর ও গ্রামের দূরত্ব কমবে।

দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে বেসরকারি কোম্পানিগুলি।

এক দেশ এক গ্রিড বিদ্যুৎ প্রকল্প চালু করা হবে। গঙ্গা দিয়ে পণ্য পরিবহণ চারগুণ বেড়েছে।

 ডিজিটাল ইন্ডিয়ার সুবিধা সব ক্ষেত্রে পৌঁছে যাচ্ছে বলে দাবি অর্থমন্ত্রী-র। প্রধানমন্ত্রী গ্রাম সড়ক যোজনা, জল মার্গ বিকাশ, ফ্রেট করিডর তৈরি হয়েছে। ইলেকট্রিক যানবাহন তৈরিতে উৎসাহ দেওয়া হবে। ব্যক্তিগত এবং গণ পরিবহণে এই ব্যাটারি চালিত বা ইলেকট্রিক যান ব্যবহারে জোর দেওয়া হবে 

 

সরকারি যানবাহনে যাতায়াতের জন্য একটি নির্দিষ্ট কার্ড তৈরি হবে।

ফরাক্কা ও হলদিয়ায় নেভিগেশন গেট তৈরি করা হবে ।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের জন্য ১ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।  এই ঋণের জন্য মাত্র ২ শতাংশ সুদ দিতে হবে।

 

বিমান পরিবহণ ক্ষেত্রে বিনিয়োগে উৎসাহ দেওয়া হবে। অসামরিক বিমান পরিবহণে ভারতে বিপুল বাণিজ্যের সুযোগ রয়েছে।

৫ লক্ষ কোটি মার্কিন ডলারের অর্থনীতির পথে ভারত, বাজেট পেশ করতে গিয়ে জানালেন নির্মলা সীতারামন

৫ লক্ষ কোটি মার্কিন ডলারের অর্থনীতির পথে ভারত। গত পাঁচ বছরে ২.৭৫ ট্রিলিয়ন ডলার ভারতের অর্থনীতি পৌঁছেছে। চলতি বছরে ৩ ট্রিলিয়ন ডলার পৌঁছবে। বিশ্বে অর্থনীতিতে ষষ্ঠস্থানে রয়েছে ভারত। এক দশক আগে ছিল ১১ তম স্থানে। ভারত ৫ ট্রিলিয়ন ডলারে পৌঁছতে সক্ষম বললেন অর্থমন্ত্রী

 

মেট্রো রেলে নতুন ৩০০ কিমি রেলপথের প্রস্তাব

মেট্রো রেলে নতুন ৩০০ কিমি রেলপথের প্রস্তাব। চাঁদে পৌঁছনোর লক্ষ্যে ভারত।

সংসদে অর্থ বাজেট পেশ করছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন

প্রথম পূর্ণ সময়ের মহিলা অর্থমন্ত্রী হিসেবে কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ করে নজির গড়লেন নির্মলা সীতারামন। বাজেট পেশের আগে শেয়ার সূচক পার করল ৪০ হাজার পয়েন্ট

 

Load More

নয়া দিল্লি, ৫ জুলাই: ইন্দিরা গান্ধীর পর নির্মলা সীতারামন (Nirmala Sitaraman)। সংসদে ৪৯ বছর পর সংসদে বাজেট পেশ করতে চলেছেন কোনও মহিলা অর্থমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার আর্থিক সমীক্ষা পেশের পর আজ দেশের দ্বিতীয় মহিলা অর্থমন্ত্রী হিসেবে নির্মলা সীতারামন প্রথমবার বাজেট পেশ করবেন। বিপুল ভোটে জিতে আসার পর নরেন্দ্র মোদি টু সরকারের ওপর বিপুল প্রত্যাশা। সেই প্রত্যাশার চাপ নিয়েই আজ বাজেট পেশ করতে চলেছেন নির্মলা সীতারামন।

কৃষিক্ষেত্র, কর্মসংস্থানের কী দিশা দেখাতে পারে এই বাজেট সেটার দিকে সবার নজর। আর পাশাপাশি প্রতিবারের মত এবারও আয়কর নিয়ে বাজেটে কি নীতি নেওয়া হয় সেটাও দেখার। আরও পড়ুন-কী কী প্রত্যাশা থাকছে নির্মলা সীতারমনের ওপর

এই বাজেটে একাধিক চ্য়ালেঞ্জের মুখে নির্মলা সীতারামন। একদিকে নরেন্দ্র মোদির স্বপ্ন দেশকে ৫ বছরে ৫ ট্রিলিয়ন ডলারের অর্থনীতি করে তোলার, অন্যদিকে, বেকারত্ব-মূল্যবৃদ্ধিতে চাপে থাকা সাধারণ মানুষের চাহিদা। একটা কথা পরিষ্কার বড় আর্থিক সংস্কার ছাড়া অর্থমন্ত্রী-র সামনে আর কোনও পথ খোলা নেই। সেটা করতে হলে কড়া সিদ্ধান্ত নিতেই হবে নির্মলাকে। এই সবে এত বড় ভোটে জিতে আসার পর সেটা কি করতে পারবেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী? এবারও কিন্তু সাধারণ মানুষ চাইছেন করমুক্ত আয়ের উর্ধ্বসীমা বাড়ুক। করের হারে আসুক পরিবর্তন। বাড়ুক করমুক্ত সঞ্চয়ের পরিমাণও।

গত অর্থবর্ষে আর্থিক বৃদ্ধির হার ৬.৮%, যা ৫ বছরে সবচেয়ে কম। ২০১৭-১৮ সালে বেকারত্বের হার ৬.১% যা ৪৫ বছরে সবচেয়ে বেশি। চলতি অর্থবর্ষের প্রথম ২ মাসে রাজকোষ ঘাটতির পরিমাণ, অন্তর্বর্তী বাজেটে ঘাটতির ঘোষিত লক্ষ্যমাত্রার ৫২% ইতিমধ্যেই ছুঁয়ে ফেলেছে।