Ram Mandir Bhumi Pujan: রাম মন্দির আমাদের সংস্কৃতি ও জাতীয়তাবাদ অনুভূতির আধুনিক প্রতীক হবে: নরেন্দ্র মোদি
নরেন্দ্র মোদি (Photo: ANI)

অযোধ্য়া, ৫ অগাস্ট: "রাম মন্দির আমাদের সংস্কৃতি ও জাতীয়তাবাদ অনুভূতির আধুনিক প্রতীক হবে।" অযোধ্যায় রাম মন্দিরের (Ram Mandir) ভূমিপুজোর (Bhumi Pujan) অনুষ্ঠানে বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Narendra Modi )। প্রধানমন্ত্রী বলেন, "ভারত ভক্ত ও রাম ভক্তদের অভিনন্দন। পুরো বিশ্বে আজ আওয়াজ পৌঁছচ্ছে আজকের অনুষ্ঠানের। জয় শ্রীরাম জপ কেবল অযোধ্যায় নয়, গোটা বিশ্বে প্রতিধ্বনিত হচ্ছে। বহু বছরের প্রতীক্ষার আজ অবসান হল। অনেকে ভাবেতেই পারেননি যে তাঁদের জীবীতকালে রাম ন্দিরের নির্মাণ দেখতে পাবেন।"

মোদি বলেন, "দেশের সমস্ত নাগরিক এবং ভগবান রামের সমস্ত ভক্তদের আজকের পবিত্র অনুষ্ঠানের জন্য কৃতজ্ঞতা জানাই। আমাদের রাম লল্লার জন্য দুর্দান্ত মন্দির তৈরি হবে। আজ রাম জন্মভূমি ভাঙা এবং আবার গড়ার চক্র থেকে বিরতি পেয়েছে - যা বহু শতাব্দী ধরে চলছিল। আমার সৌভাগ্য যে এই ঐতিহাসিক মুহূর্তটি দেখার জন্য আমন্ত্রিত করা হয়েছে। কন্যাকুমারী থেকে ক্ষীরভবানী, কোটেশ্বর থেকে কামাখ্যা, জগন্নাথ থেকে কেদারনাথ, সোমনাথ থেকে কাশী বিশ্বনাথ ... আজ পুরো দেশ রাম নামে ডুবে।" আরও পড়ুন: Ram Mandir Bhumi Pujan: অপেক্ষার অবসান, রাম মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী

এরপরই মোদি বলেন, "রাম মন্দির আমাদের ঐতিহ্যের আধুনিক প্রতীক হয়ে উঠবে। এটি আমাদের নিষ্ঠার, জাতীয় অনুভূতির প্রতীক হয়ে উঠবে। এই মন্দিরটি কোটি কোটি মানুষের সম্মিলিত ক্ষমতারও প্রতীক হবে। এটি ভবিষ্যত প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করবে। আজ প্রত্যেক হৃদয় আলোকিত। পুরো দেশের জন্য একটি আবেগময় মুহূর্ত। দীর্ঘ প্রতীক্ষার আজ শেষ হচ্ছে। এই মন্দির নির্মাণের সাথে সাথে কেবল ইতিহাস তৈরি হচ্ছে না, তবে ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। আদিবাসীরা যেভাবে ভগবান রামকে সাহায্য করেছিলেন, শিশুরা যেভাবে ভগবান কৃষ্ণকে গোবর্ধন পর্বত তুলতে সাহায্য করেছিল, তেমনি প্রত্যেকের চেষ্টায় মন্দিরের নির্মাণ কাজ শেষ হবে।"

প্রধানমন্ত্রীর যোগ, "রাম আমাদের মনে খোদাই করা, আমাদের সঙ্গে মিশে। আপনি ভগবান রামের আশ্চর্য শক্তি দেখুন, ভবন ধ্বংস হয়ে যায়। কিন্তু কিছুই হয়নি, অস্তিত্ব নির্মূল করার জন্য চেষ্টা করা হয়েছিল। তবে রাম আজও আমাদের মনে রয়ে গেছেন, তিনি আমাদের সংস্কৃতির ভিত্তি। আমি বিশ্বাস করি যে শ্রীরামের নামের মতো অযোধ্যাতে নির্মিত এই মন্দির ভারতীয় সংস্কৃতির সমৃদ্ধ ঐতিহ্যকে প্রতিফলিত করবে। আমি বিশ্বাস করি এটি অনন্তকাল পর্যন্ত সমগ্র মানবতাকে অনুপ্রাণিত করবে।"